বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাদুল্যাপুর বালিকা দাখিল মাদ্রাসার চলাচলের রাস্তা বন্ধ

জিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, গাইবান্ধা

ফসলি জমি দখল করে অবৈধ্যভাবে চলাচলের রাসত্মা করার অভিযোগ উঠেছে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর বালিকা দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি ও সহকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে। মাদ্রাসার সভাপতি জাকিরুল হক মানিক মিয়া ও তার ভাই সহকারী শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম জোর করে রাস্তা ব্যবহার করছেন বলে দাবী করছে প্রকৃত জমি মালিকরা। দীর্ঘদিনেও বিষয়টি সমাধান না হওয়ায় অবশেষে ক্ষতিগ্রস্থ জমি মালিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে চলাচলের রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়ে জমি দখলে নিয়েছেন।

 

জানা যায়, উপজেলা শহরের মধ্যে অবস্থিত সাদুল্যাপুর বালিকা দাখিল মাদ্রাসা। মাদ্রাসটি ১৯৯২ সালে এমপিও ভুক্ত হলেও মাদ্রাসায় যাওয়া আসার জন্য নিজস্ব কোন জমি বা রাস্তা নেই। মাদ্রাসার পশ্চিম পার্শ্বের বেশ কিছু ফসলি জমি ও দুটি বসতবাড়ি ঘেঁষে চলাচলের রাস্তা ব্যবহার করা হয়। অথচ রাস্তা করার সময় জমির মালিকদের সঙ্গে কথা না বলে জোর পূর্বক দখল করে অবৈধ্যভাবে চলাচল করছেন শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা। এ কারণে জমি মালিকরা অধিকার বঞ্চিত হয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।

 

ক্ষতিগ্রস্থ জমি মালিক সাবু মিয়া বলেন, দীর্ঘদিন ধরে মাদ্রাসার লোকজন আমার ফসলি জমি দখল করে চলাচল করায় ফসল না পেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। তাই বাধ্য হয়ে চলাচলের পথ বন্ধ করে জমি দখলে নিয়েছি। তিনি আরো জানান, মাদ্রাসাটি যে জমির উপর অবস্থিত তার মালিকা নিয়েও দ্বন্ধ ও মামলা চলছে। এসব জমি দেখিয়ে মাদ্রাসাটি এমপিওভুক্ত, শিক্ষক-কর্মচারীর বিল-বেতনসহ অনৈতিকভাবে সুযোগ সুবিধা আদায় করছেন। অথচ আজও মাদ্রাসার নিজস্ব চলাচলের কোন রাস্তা নেই। জমি মালিক নিখিল চন্দ্র বলেন, এরআগেও কয়েকবার রাস্তা দিয়ে চলাচলে বাঁধা দিলে বিভিন্ন হুমকি দেওয়া হয়। জমি মালিক সুজিত কুমার চক্রবর্তী বলেন, তারা প্রভাবশালী হওয়ায় আমারা বাঁধা দেওয়া সত্বেও জোর করে রাস্তা ব্যবহার করে আসছেন। জমি মালিক মনিরাজ বলেন, আমরা তাদের ভয়ে কথা বলতে পারিনা। আমরা এই অত্যাচার থেকে রেহাই পেতে চাই। এব্যাপারে মাদ্রাসার সভাপতি জাকিরুল হক মানিক মিয়া ও সহকারী শিক্ষক জাহিদুল ইসলামের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

 

মাদ্রাসার একাধিক শিক্ষক-কর্মচারী জানান, একই পরিবারের একজন প্রতিষ্ঠাতা, একজন সভাপতি ও স্বামী-স্ত্রী দুইজন সহকারী শিক্ষক হিসাবে থাকায় মাদ্রাসাটি বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্ণীতি আখড়ায় পরিণত হয়েছে। তারা মনগড়া ও নিজ ক্ষমতার দাপটে মাদ্রাসা পরিচালনা করায় অনেক শিক্ষক-কর্মচারী তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন। এছাড়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় আরো একাধিক ব্যক্তি জানান, জাকিরুল হক মানিক, রতন, জাহিদুল ইসলাম প্রভাবশালী হওয়ায় ভূয়া কাগজপত্র তৈরি করে অন্যের জমি দখলসহ জমি সংক্রান্ত বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে পড়ছেন। তারা একাধিক সরকারী রাস্তা দখল করে নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, কবরস্থান ও বসতবাড়ির প্রাচীর নির্মাণ করছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email