শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মাতা তৈয়বা মজুমদারের মৃত্যুবার্ষিকী ১৮ই জানুয়ারী

স্টাফ রিপোর্টার : ১৮ জানুয়ারী দিনাজপুরের বিশিষ্ট্য সমাজসেবী ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মাতা তৈয়বা মজুমদারের ৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ২০০৮ সালে ১৮ জানুয়ারী দিনাজপুরের জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশন এন্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউট-এ চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ৮:৪৫ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ২০ জানুয়ারী স্থানীয় শেখ ফরিদপুর গোরস্থানে স্বামী ইস্কেন্দার মজুমদার ও কন্যা সাবেক মন্ত্রী খুরশীদ জাহান হক চকলেট এর সমাধির পাশে তাকে সমাহিত করা হয়। প্রতি বছর তাঁর মৃত্যুতে কেন্দ্র করে দিনাজপুরের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান পলস্নীশ্রী ও তৈয়বা মজুমদার রেড ক্রিসেন্ট বস্নাডব্যাংক বিভিন্ন কর্মসূচী আয়োজন করেছে। এর কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে কবর জিয়ারত, মিলাদমাহফিল ও আলোচনা সভাসহ।

মরহুমা তৈয়বা মজুমদার ১৯২০ সালে ভারতবর্ষের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের শিলিগুড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন একজন সমাজসেবী। ২০০৩ সালে দিনাজপুর উপশহর এলাকায় ব্যক্তিগত অর্থায়নে ইউনিটের ৬২ ডেসিমেল জমির উপর প্রতিষ্ঠিত করেন বাংলাদেশের ২য় বৃহত্তম বস্নাডব্যাংক যা বর্তমানে তৈয়বা মজুমদার রেডক্রিসেন্ট বস্নাডব্যাংক নামে প্রসিদ্ধ লাভ করে। এখানে স্বল্প খরচে দুস্থদের জন্য রক্তের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াও রক্ত সংগ্রহ ও সরবরাহ করা হয়। এতে উপকৃত হয় দুস্থ ও স্বল্প আয়ের মানুষরা। অন্যদিকে ১৯৮৭ সালে ব্যক্তিগত মাত্র ৪ হাজার টাকার মূলধন নিয়ে দিনাজপুর শহরের বালুবাড়িতে পল্লীশ্রী নামে আরও একটি সংস্থা প্রতিষ্ঠিত করেন। যেখানে নারী অধিকার, অবহেলিত নারীদের শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবাসহ ভাগ্য উন্নয়নে কর্যক্রম রয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানে কয়েক হাজার মানুষের কর্মসংস্থান রয়েছে। আর উপকৃত পরিবারের সংখ্যা ১ লক্ষ ছাড়িয়ে গেছে। আমবাড়ি ও কমলপুরে রয়েছে তাদের নিজেস্ব ভবন। এছাড়াও মুখ ও বধির ইনস্টিটিউটের পরিচালনার দায়িত্ব তিনি পান। তাঁর প্রচেষ্টায় এই প্রতিষ্ঠানে ৫ তলা ভবন নির্মাণ সম্ভব হয়েছে। মুখ ও বধির ছাত্রদের পুঁথিগত শিক্ষা ও কারিগরি শিক্ষায়দক্ষ করে তোলা হয়। তাঁর প্রচেষ্টায় রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতাল ও মহিলা বহুমূখী শিক্ষাকেন্দ্রের কাজের গতি ফিরে আসে। মরহুমা তৈয়বা মজুমদার দেশের শীর্ষস্থানীয় রাজনৈতিক পরিবারের কর্ণধার হয়েও তিনি সাধারন মানুষের মত জীবন যাপন করতেন। আরাম আয়েস ছেড়ে তিনি সবসময় নিপীড়িত অবহেলিত মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে সচেষ্ট ছিলেন। তিনি সরাসরি কোন রাজনৈতিক দল করতেন না। তিনি জীবনের চল্লিশটি বছর মানুষের সেবায় কাজ করে গেছেন। বর্তমান ফেনীজেলার ফুলগাজী এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহনকারী স্কেন্দার মজুমদারের সহিত বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বালুবাড়ির নিজ বাসভবন ‘তৈয়বা ভিলা’ তে বসবাস করতেন।

Spread the love