মঙ্গলবার ১৬ অগাস্ট ২০২২ ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিংড়া জাতীয় উদ্যানে জীব-বৈচিত্র সংরক্ষনে আদিবাসী শাঁওতালের গুরুত্বপূর্ণ অবদান

মোঃ আবেদ আলী, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের বীরগঞ্জে সিংড়া জাতীয় উদ্যানে জীব-বৈচিত্র সংরক্ষনে আদিবাসী শাঁওতালেরা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে। উপজেলায় সিংড়া ফরেষ্ট (শালবন) এক সময় চিত্ত বিনোদনের জন্য দেশের ভ্রমন পিপাসু মানুষের কাছে ব্যাপক পরিচিতি ও জনপ্রিয় ছিল। বর্তমান সরকার কতৃর্ক উপজেলার ভোগনগর ইউনিয়নে ৮৫৫.৫০ একর জমির উপর অবস্থিত এই বনভূমি জাতীয় উদ্যান হিসাবে ঘোষনা করা হয়েছে। প্রাচীন পত্রঝরা সিংড়ার বনাঞ্চল মূলত শাল ও সেগুন বন। তবে শাল ও সেগুন ছাড়াও জারুল, তরুল, শিলকড়ই, শিমুল, মিনজিরি, সেগুন, গামার, আকাশমনি, ঘোড়ানিম, সোনালু, গুটিজাম ও শতমুল সহ বিভিন্ন ধরনের নাম না জানা ঔষুধী উদ্ভিদ ও গুল্ম-লতা পাওয়া যায়। এ ছাড়া খরগোশ, শেয়াল, সাপ, বেজি সহ বিভিন্ন প্রজাতির পশু-পাখি কীট-পতঙ্গ দেখতে পাওয়া যায়। এ বনকে সবচেয়ে আকর্ষনীয় করে তুলেছে তার পাশ দিয়ে বয়ে চলা নর্ত্তনদী। বনকে ঘিরে ডালাগ্রাম, চাউলিয়া, নন্দগাঁও, নর্তডাঙ্গি, প্রাণনগর ও সিংড়া এই ৬টি মৌজার অবস্থান। এক সময় ভারত, পাকিস্তান, ইটালীসহ বিভিন্ন দেশের সৈন্যরা শীতকালীন মহড়া দিতে এ বনে আসত। বর্তমানে বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর সদস্যরা ঢাকা সহ বিভিন্ন সেনানীবাস থেকে শীতকালীন মহড়ায় আসেন। এ ছাড়াও হাজার হাজার ভ্রমন পিপাসু মানুষ ছুটে আসে সিংড়া জাতীয় উদ্যানে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বনভোজনের জন্য আসে। এই বনে স্থানীয় আদিবাসী শাঁওতাল সহ বিভিন্ন ধর্মের ১৩ হাজার মানুষ বসবাস করে। জনসংখ্যার বৃদ্ধির ফলে দিন দিন বনের উপর সাধারণ মানুষের চাপ ও নির্ভরশীলতা বেড়েই চলেছে বিশেষ করে জ্বালানী চাহিদা। এক জরিপে দেখা গিয়েছে বছরে গড়ে ১১ হাজার টন শালপাতা ও মরা ডালপালা এ বন থেকে আহরিত হয়। এ বন থেকে শালপাতা ও মরা ডালপালা সংগ্রহ এবং আদিবাসীদের পশু শিকারের ফলে সিংড়া শাল বন তার জীব-বৈচিত্র্য হারিয়ে ফেলার একপর্যায়ে বনবিভাগ আরডিআরএস বাংলাদেশের সহযোগিতায় এ বনের জীব-বৈচিত্র পুন:উদ্ধারের জন্য সহ-ব্যবস্থাপনার (স্থানীয় জনসাধারণ ও আশেপাশের মূল স্টেক হোল্ডারদের পূর্ণ ও সক্রিয় অংশগ্রহণে বনভূমি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষন) মাধ্যমে ’’সিংড়া শাল বনের জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষন প্রকল্প’’ নামে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। প্রকল্পের উদ্দেশ্য শাল বনের জীব-বৈচিত্র সংরক্ষণ, টেকসই ব্যবস্থাপনার জন্য বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী অংশগ্রহণ মূলক ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন করা, বনের চারিপাশে যে সকল গরীব মানুষ বসবাস করে বিকল্প আয়ের মাধ্যমে তাদের জীবন যাত্রার মান উন্নয়ন মাধ্যমে বনের উপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে আনা, ইকো-ট্যুরিজমের মাধ্যমে রাজস্ব আয়ের সুযোগ সৃষ্টি করা, আরডিআরএস বাংলাদেশ প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সিংড়া বিটের চারপাশের বসবাসকারী দরিদ্র জনগোষ্ঠী যারা কোন না কোন ভাবে বনের উপর নির্ভর করে জীবিকা নির্বাহ করে এমন নারী-পুরুষ ও যুবকদের সমন্বয়ে ৬টি গ্রাম নিয়ে ৮টি বন রক্ষা সমিতি গঠন করা হয়। যার সদস্য সংখ্যা ২০৬ জন। সিংড়া শাল বনের হারানো জীব-বৈচিত্র্য ফিরিয়ে আনার জন্য বন থেকে শালের ডালপাতা সংগ্রহকারী ও সকল জনসাধারণের মধো গণসচেতনতা বাড়ানো সহ বন নির্ভরশীলতা কমানোর লক্ষ্যে বিকল্প আয়ের অংশ হিসাবে আরডিআরএস বাংলাদেশ ৮ লক্ষ টাকার ঘুর্ণয়মান তহবিল অনুদান হিসাবে দিয়েছে। পাশাপাশি ‘‘মুরগী ও ছাগল বিনিময় কর্মসূচী’’, সেলাই প্রশিক্ষণ, পুষ্টি চাহিদা পূরণের জন্য উন্নত জাতের ফলের চারা বিতরন ও জ্বালানী সাশ্রয়ী উন্নত চূলা বিতরন সহ নানা কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছেন। তবে আশার আলো এই যে, সিংড়া জাতীয় উদ্যানের অধিবাসীরা এখন জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষনের জন্য খুব তৎপর। তারা এই বনকে নিজেদের মনে করে, এই বনের ক্ষতি তারা আর দেখতে চায়না, তাই ভালোবেসে বনকে রক্ষা করছে। তারা নিজ উদ্যগে সিংড়া শাল বনের হারানো জীব-বৈচিত্র্য ফিরিয়ে আনার জন্য ‘‘পাতা সংগ্রহকে না বলুন, শালের বংশ বিস্তারে সয়াহতা করুন ও জীব-বৈচিত্র্য রক্ষায় এগিয়ে আসুন’’ এই শে­­াগানের মাধ্যমে শালের ডালপাতা সংগ্রহকারী ও সকল জনসাধারণের মধ্যে গণসচেতনতা বাড়ানো লক্ষ্যে কাজ করে। শুধু তাই নয় গত মৌসুমে নিরলস শ্রম দিয়েছেন শুধু পাতা আহরণ বন্ধ করার জন্য।Adibasi SINGRA. 1

বাংলাদেশের বেশির ভাগ প্রাকৃতিক বনের অবস্থা নাজুক হলেও বর্তমান সিংড়া জাতীয় উদ্যান শালবন বহুলাংশে সু-নিয়ন্ত্রিত। এই ৮টি সমিতির অভিভাবক হিসাবে একনিষ্ঠভাবে কাজ করছে পিপলস ফোরাম। বন ও বনরক্ষা সমিতির যে কোন ধরনের সমস্যা সমাধানে অতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে এই ফোরামের। তাদের সহযোগীতায় সিংড়া শাল বন জাতীয় উদ্যান এলাকা ও আশেপাশের মূল স্টেক হোল্ডারদের পূর্ণ ও সক্রিয় অংশ গ্রহণের মাধ্যমে রক্ষিত এলাকা ব্যবস্থাপনার্থে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়, পরিকল্পনা শাখা-৪ এর ২৩/১১/২০০৯ তারিখের প্রজ্ঞাপন নং-পবম/পরিশা-৪/নিসর্গ/স্টিং/২০০৬/৩৯৮ মোতাবেক গত ২৬ জুলাই স্থানীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল মহোদয়ের উপস্থিতিতে সহ-ব্যবস্থাপনা কাউন্সিল গঠন করা হয়। সহ-ব্যবস্থাপনা কাউন্সিলের পদাধিকার বলে সভাপতি হিসেবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সদস্য সচিব হিসেবে সংরক্ষিত এলাকার দায়িত্ব প্রাপ্ত রেঞ্জ অফিসার দায়িত্ব পালন করছেন। আকারে ততটা বিশাল না হলেও এই বনের মনোরম প্রাকৃতিক দেখতে আসা দর্শনার্থীর সংখ্যা প্রতি দিন গড়ে ১৮০-২০০ জন। রাবার ড্যামের মাধ্যেমে বারোমাস নর্ত্তনদীকে সজীব রাখা, একটি টাওয়ার স্থাপন, শিশু পার্ক তৈরী, দর্শনার্থীর বসার চেয়ার তৈরী ও সুন্দর একটি ফটক নির্মাণসহ কিছু সংস্কারমূলক কাজ করলে এখানে দর্শনার্থীর সংখ্যা তিন থেকে চার গুণ অর্থাৎ প্রতি দিন গড়ে ৭ থেকে ৮ শত জনে বৃদ্ধি পাবে। দর্শনার্থীর সংখ্যা বাড়লে রাজস্ব্য আয়ের পাশাপাশি বনের অধিবাসীদের আয় ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃস্টি হবে ও সিংড়া শালবন ফিরে পাবে তার অতীত ইতিহাস। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আলম হোসেন বলেন, ইতিমধ্যে সিংড়া শাল বনকে পর্যটন হিসেবে ঘোষনার জন্য সংশি­ষ্ট মন্ত্রানালয়ে প্রস্তাব প্রেরণ করা হয়েছে। জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল চলতি অর্থ বছরেই রাস্তা পাকা করণ, বিদুৎ সংযোগের ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেছেন। দিনাজপুর বিভাগীয় বন কর্মকর্তা জানান, বন বিভাগ সিংড়া শাল বনের জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসীর ও আরডিআরএস বাংলাদেশের সহযোগীতা সিংড়া শালবনের উন্নয়নকে ত্বরাণিত করেছে। আরডিআরএস বাংলাদেশ এ কর্মরত প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক হাবিবুর রহমান হাবিব জানান, জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষন বলি অথবা বন রক্ষাই বলি এরজন্য বনের চারপাশে বসবাসকারী জনগোষ্ঠীর সক্রিয় গুরুত্ব ভূমিকার বিকল্প নাই পাশাপাশি বনবিভাগের বন্ধুসূলভ আচরণ।Adibasi SINGRA

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email