শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সিডনির ক্যাফে থেকে ৫ জিম্মি মুক্ত

অস্ট্রেলিয়ার সিডনি শহরের একটি ক্যাফেতে বন্দুকধারীদের হাতে জিম্মিদের মধ্যে থেকে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৫ জন মুক্ত হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল এতথ্য নিশ্চিত করেছে। এবিসি টেলিভিশনের ভিডিওতে দেখা যায়, ওই ভবনের দরজা ঠেলে ২ জনকে এবং অপরজনকে অগ্নি নিরাপত্তার সিঁড়ি ব্যবহার করে বেরিয়ে আসতে দেখা যায়।
অস্ট্রেলিয়ান ব্রডকাস্টিং করপোরেশনের এক সাংবাদিক জানান, আমরা কয়েকজনকে লিনডট ক্যাফে থেকে বের হয়ে আসতে দেখেছি। তাদের নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে গেছে পুলিশ।
ক্যাফেতে কতজন জিম্মি রয়েছে এ বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ান পুলিশ কমিশনার ক্যাথেরিন বার্ন বলেন, আমরা যে সংখ্যাটি অনুমান করছি তা সঠিক নাও হতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে সংখ্যাটি ৩০ এর বেশি হবে না।
প্রসঙ্গত, আজ সোমবার সকাল ১০টার দিকে অস্ট্রেলিয়ার সিডনির প্রাণকেন্দ্রে একটি ক্যাফেতে অস্ত্রের মুখে বেশ কয়েকজনকে জিম্মি করে বন্দুকধারীরা। দেশটির টেলিভিশনে প্রচারিত এক ফুটেজে দেখা যায়, দেয়াল ঘেঁষে হাত উঁচু অবস্থায় ক্যাফেতে আসা কয়েকজন দাঁড়িয়ে আছে। এছাড়া আরবি অক্ষর লেখা একটি কালো পতাকাও দেখা যায় পেছনে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এখন ক্যাফেটি ঘিরে রেখেছে।
স্থানীয় সময় সোমবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে লোকজন যখন মার্টিন প্লেসে তাদের কাজের জায়গায় আসছে তখনই লিন্ড ক্যাফেতে জিম্মি সঙ্কটের খবর আসে। তবে কি দাবিতে বা উদ্দেশ্যে ক্যাফের সবাইকে জিম্মি করা হয়েছে সে বিষয়ে এখনো কিছু জানা যায়নি।
অস্ট্রেলিয়ার টেলিভিশনে প্রচারিত এক ফুটেজে একজন বন্দুকধারী এবং অন্তত তিনজন জিম্মিকে হাত উঁচু করে দেয়াল ঘেঁষে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে। সিডনি শহরের ব্যবসায়িক প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত ঐ ক্যাফেটির ভেতরে আরবি অক্ষর লেখা একটি কালো পতাকাও দেখা যাচ্ছিল। সাধারণ নাগরিকদের এখন ঐ এলাকার দিকে না যেতে আহ্বান জানিয়েছে নিউ সাউথ ওয়েলস পুলিশ। এছাড়া সিডনি অপেরা হাউস থেকেও কর্মী ও দর্শনার্থীদের সরিয়ে নেয়া হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ান ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশনের একজন জানিয়েছেন কিছুক্ষণ আগে ঘটনাস্থল থেকে গুলির আওয়াজ পাওয়া গেছে। তবে এ তথ্যের সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
এ ঘটনাকে অত্যন্ত উদ্বেগের বিষয় বলে বর্ণনা করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী টনি এ্যবট। মি. এ্যবট বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী অত্যন্ত দক্ষ ও প্রশিক্ষিত। তারা দ্রুতই ঘটনা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হবেন বলে তিনি বিশ্বাস করেন।
পরিস্থিতি নিয়ে অনিশ্চিয়তা সৃষ্টি হওয়ায় সিডনিতে অধিকাংশ বড় ব্যাংকের শাখা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ধস নেমেছে শেয়ার বাজারেও। অস্ট্রেলিয়া কর্তৃপক্ষ নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি সিডনি বিমানবন্দরের নিরাপত্তা জোরদার করেছে। অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থানরত মার্কিন নাগরিকদের সতর্ক থাকতে বলেছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

Spread the love