মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সিন্ডিকেটে জিম্মী বীরগঞ্জের চা-চাষীরা

আব্দুর রাজ্জাক, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ ধানের জেলা দিনাজপুরে চা-এর আবাদ বিস্তার করতে না করতেই সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মী হয়ে পড়েছে চা-চাষীরা। চা ফ্যাক্টরী মালিকরা সিন্ডিকেট করে চা-এর কাঁচা পাতা কেনায় চা-চাষীরা তাদের উৎপাদিত পণ্যের কাংখিত দাম থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এতে দিনাজপুর জেলায় বিকাশমান এই চা শিল্প প্রসারে অন্তরায়ের সৃষ্টি হচ্ছে বলে মনে করছেন চা-চাষীরা।
ধানের জেলা হিসেবে পরিচিত দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জে বানিজ্যিকভাবে চা-এর আবাদ শুরু হয় গত ২০১৬ সালে। গত ৫ বছরে বীরগঞ্জসহ দিনাজপুর জেলায় প্রায় ৭০ একর জমিতে চায়ের বাগান গড়ে উঠেছে। এর মধ্যে বাংলাদেশ চা বোর্ডের নিবন্ধিত জমির পরিমান ৪৫.৫ একর। আর নিবন্ধিত চা-চাষীর সংখ্যা ৩৩ জন। ইতিমধ্যেই এসব চা বাগান থেকে চায়ের উৎপাদন শুরু হয়েছে। কিন্তু চায়ের উৎপাদন শুরুর সাথে সাথেই চা-ফ্যাক্টরীগুলোর সিন্ডিকেটের কারনে চা-পাতার কাংখিত মুল্য পাচ্ছেন না চা চাষীরা।
দিনাজপুর জেলার প্রথম চা চাষী জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার ঝলঝলী গ্রামের নজরুল ইসলাম। ২০১৬ সালে এক একর জমিতে চায়ের আবাদ শুরু করেন তিনি এবং ২০১৭ সাল থেকেই তার বাগানে উৎপাদন শুরু হয়। প্রথম প্রথম বেশ দাম পেলেও এখন সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি তিনি।
চা-চাষী নজরুল ইসলাম জানালেন, ৩৫ থেকে ৪০ দিন পর পর বাগান থেকে চা পাতা সংগ্রহ করেন তিনি। কিন্তু চা-পাতা বিক্রির ক্ষেত্রে পাতার দামের ক্ষেত্রে বিশাল হেরফের-এর কারনে হতাশ হয়েছেন তিনি। তিনি জানান, মার্চ মাসে তিনি চা পাতা বিক্রি করেছেন প্রতিকেজি ২৯ টাকা দরে। এরপর এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহে তিনি সেই একই পাতা বিক্রি করেন মাত্র ১৭ টাকা ৫০ পয়সা কেজি দরে। একমাসেই প্রতিকেজিতে দামের পার্থক্য সাড়ে ১১টাকা। তিনি জানান, চা ফ্যাক্টরীগুলো সিন্ডিকেট করে চা পাতা কেনায় এই দামের পার্থক্য। অনেক উৎসাহ নিয়ে চা আবাদ করার পর এখন সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের কারনে চা-চাষীরা উৎসাহ হারিয়ে ফেলছে বলে জানান তিনি। একই কথা জানান, বীরগঞ্জ উপজেলার ঝাড়বাড়ী গ্রামের চা-চাষী মোঃ আক্তার, আকছাদ আলীসহ অন্যান্যরা। খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, এই অঞ্চলের ১৮টি কোম্পানী সিন্ডিকেট করে পাতা কেনায় তাদের কাছেই জিম্মি এই অঞ্চলের চা-চাষীরা।
চা ক্রেতা পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার পপুলার চা ফ্যাক্টরীর ক্যাশিয়ার হারুনর রশিদ মিঠু জানান, পাতার উৎপাদন বেশী হলে দাম কমে, আবার উৎপাদন কম হলে দাম বাড়ে। তিনি জানান, প্রতিমাসে তাদের কোম্পানীতে চায়ের পাতা লাগে সাড়ে ৪ লাখ কেজি। এর চেয়ে বেশী পাতা তারা প্রক্রিয়াজাত করতে পারেন না। তাই পাতার পরিমান বেশী হলে তারা দাম কমিয়ে দেন। অবশ্য এ ক্ষেত্রে অন্যান্য ফ্যাক্টরীগুলোর সাথে তাদের যোগাযোগ রয়েছে বলে স্বীকার করেন তিনি। তিনি বলেন, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও এবং নীলফামারী জেলায় ১৮টি চা ফ্যাক্টরী রয়েছে এবং এই অঞ্চলের চা-চাষীদের এদের কাছেই পাতা বিক্রি করতে হয়।
বাংলাদেশ চা বোর্ডের নর্দার্ণ বাংলাদেশ প্রকল্পের দিনাজপুরে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছায়েদুল হক জানান, চা ফ্যাক্টরীগুলো যাতে সিন্ডিকেট করে চা পাতা কিনতে না পারে, সেজন্য পঞ্চগড় জেলা প্রশাসককে প্রধান করে একটি মুল্য নির্ধারনী কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই মুল্য নির্ধারনী কমিটি চা-পাতার সর্বনিম্ন মুল্য নির্ধারণ করেছে প্রতিকেজি সাড়ে ১৬ টাকা। এর নীচে কেউ পাতা ক্রয় করলে তারা বিষয়টি দেখবেন। তিনি জানান, বাংলাদেশ চা বোর্ডের নর্দার্ণ বাংলাদেশ প্রকল্পের অধীনে দিনাজপুর জেলায় ৬১ একর জমিতে চা-চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে নিবন্ধিত ৩৩ জন চা চাষী সাড়ে ৪৫ একর জমিতে চা আবাদ করেছে। সব মিলিয়ে প্রায় দিনাজপুরে প্রায় ৭০ একর জমিতে চা আবাদ হচ্ছে বলে জানান তিনি। চা আবাদে উৎসাহিত করার জন্য চাষীদের নিয়ে সেমিনার, মোটিভেশন কর্মশালা, চারা সরবরাহসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পরিচালনা করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।
উল্লেখ্য, চা ফ্যাক্টরী মালিকদের সিন্ডিকেট-এর প্রতিবাদে গত ২০১৯ সালে পঞ্চগড়েরর তেঁতুলিয়ায় বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধ করে চা-চাষীরা।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email