মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সেতাবগঞ্জ চিনিকল খামারের জমি লীজ দেয়া নিয়ে ক্ষোভ

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর জেলার একমাত্র ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান সেতাবগঞ্জ চিনিকলের আওতাধীন বিভিন্ন বাণিজ্যিক খামারের জমিতে স্বল্প মেয়াদী ফসল যেমন ইরিধান, সবজি ও তরমুজ আবাদ জন্য প্রকৃত কৃষকদের নিকট থেকে লীজ গ্রহনের জন্য সেচিক/প্রশা-৩৭(ক)/২০১৩-২০১৪/৩৩৯৭ তাং- ১২-২-২০১৪ ইং তারিখের স্বারক নং এর আদেশে ৪০৯ একর জমি লীজ দেওয়ার দরপত্র আহবান করা হয়। দরপত্রে প্রাণ এগ্রো লিঃ স্বল্প  একর প্রতি ৪ হাজার টাকা দর প্রদান করলে ৩৩৮ একর জমি লীজ দেওয়া হয়। অভিযোগে জানা গেছে, গোবিন্দপুর খামারের বি-ব্লক ১/২ এলাকায় জনৈক আখচাসী রেজাউল ইসলাম ১২ একর জমি লীজ নেওয়ার জন্য ৪ হাজার ৫শত টাকা দর দেওয়ার পরও উক্ত চাষীকে ঐ ১২ একর জমি লীজ না দিয়ে সম্পন্ন বিধি বহির্ভূতভাবে ৫শত টাকা কম দর দেওয়া প্রান এগ্রো লিঃকে ঐ ১২ একর সহ সর্বমোট ৩৩৮ একর জমি লীজ দেওয়া হয়েছে। খামারের জমিতে মিলের দেওয়া শর্ত অনুযায়ী স্বল্প মেয়াদীর জন্য ইরিধান, সবজি ও তরমুজ আবাদ করার কথা থাকলেও প্রান এগ্রো লিঃ এসব শর্ত ভঙ্গ করে খামারের জমিতে বাদাম চাষ করছে। এদিকে অধিকাংশ খামারের জমিতে দ্বিগুন মূল্যে লীজ নিয়ে গত বছর যে সকল আখচাষী আখ আবাদ করেছে বর্তমানে তাদের থাকা মুড়ি আখ থাকার পরও মিল কর্তৃপক্ষ নিজের হাল দিয়ে উক্ত আখ ক্ষেতে চাষ করছে। আখচাষীদের অভিযোগ তারা দ্বিগুন মূল্যে দিয়ে খামারের জমি লীজ নিয়ে আবাদ করে আসছে কিন্তু হঠাৎ করেই মিল কর্তৃপক্ষ বিধি বহির্ভূতভাবে খামারের জমি স্বল্প মেয়াদি লীজ দেওয়ার নাম করে বাদাম চাষের জন্য প্রাণ এগ্রো লিঃ কে লীজ দেওয়ার কারন কি? চাষীদের অভিযোগ সেচিকের খামার ব্যবস্থাপক আব্দুল খালেক ও এস,এ,ডিও ধনরঞ্জন রায়ের যোগসাজসে মোটা অংকের অর্থের বিনিময় প্রকৃত আখ চাষীদের বাদ দিয়ে বিধি বহির্ভূতভাবে তারা এই লীজ প্রদান করেছেন। এব্যাপারে মিলের খামার ব্যবস্থাপক সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন চিনি কর্পোরশনের সদর দপ্তরের নির্দেশ অনুযায়ী খামারের জমি লীজ প্রদান করা হচ্ছে তবে বাদাম চাষের বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যান।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email