মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সেতাবগঞ্জ চিনিকল ৪২ কোটি টাকার চিনি অবিক্রিত অবস্থায় পড়ে থাকলেও আখচাষীদের পাওনা ৪ কোটি টাকা

দিনাজপুর প্রতিনিধি : চলতি ২০১৩-২০১৪ ইং মাড়াই মৌসুমের শেষ দিকে এসে চরম অর্থ সংকটের কবলে পড়েছে দিনাজপুর জেলার একমাত্র ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান সেতাবগঞ্জ চিনিকল। একদিকে ৪২ কোটি টাকার চিনি অবিক্রিত অবস্থায় গোডাউনে পড়ে থাকলেও মিলে আখ সরবরাহ করে সময়মত টাকা পাচ্ছে না আখচাষীরা। এমনকি গত জানুয়ারী মাসের মাসিক বেতন ভাতা পাননি মিলের আওতাভূক্ত শ্রমিক কর্মচারীরাও। যার ফলে এখন এক চরম অর্থ সংকটে মুখে সেতাবগঞ্জ চিনিকল। সেচিকের কারখানা ব্যবস্থাপক এস,বি ইউসুফ ডাব্লু জানান, ২০১৩-২০১৪ আখ মাড়াই মৌসুমের জন্য ২০ ডিসেম্বর-১৩ সেতাবগঞ্জ চিনিকল ৬ হাজার ৫শত মেঃটন আখ মাড়াই করে ৪ হাজার ৫শত মেঃটন চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করে যার গড় রিকোভারী ধরা হয় ৭.৫। গতকাল ১৭ ফেব্রুয়ারী সকাল ৮টা এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সেতাবগঞ্জ চিনিকলে ৫৯ হাজার ৪০ মেঃটন আখ মাড়াই করে ৩ হাজার ৯শত ৯০ মেঃটন টন চিনি উৎপাদন করে যার গড় রিকোভারী ছিল ৬.৯৫। বর্তমানে মিলের বিভিন্ন সাবজোনে যে পরিমান আখ রয়েছে তাতে মিলটি ২৫ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত চলতে পারে । কিন্তু মিলের গত ২০১১-১২ ও ২০১২-১৩ মাড়াই মৌসুমের উৎপাদিত ৬হাজার ৫শত ৯৮ মেঃটন চিনি ও বর্তমান মাড়াই মৌসুমের ৩ হাজার ৯শত ৯০ মেঃটন সর্বমোট ১০ হাজার ৫শত ৮৮ মেঃটন চিনি অবিক্রিত অবস্থায় পড়ে থাকায় চরম অর্থ সংকটের কবলে পড়েছে মিলটি। বর্তমান বাজার মূল্যে অনুযায়ী সেচিকে ৪৪ কোটি ৩৪ লাখ ৭২ হাজার টাকার চিনি অবিক্রিত রয়েছে। চিনি বিক্রি না হওয়ার কারনেই আখচাষীদের পাওনা প্রায় ৪ কোটি বকেয়া টাকা সময়মত পাচেছনা মিলকর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি মিলের আওতাভূক্ত শ্রমিক কর্মচারী কর্মকর্তারাও গত জানুয়ারী মাসের বেতন ভাতা ফেব্রুয়ারীর শেষে এসেও হাতে না পেয়ে চরম হতাশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। আখচাষীরা দিনের পর দিন মিলে ধর্না দিলেও বকেয়া টাকা না পাওয়ায় আখ চাষের প্রতি নিরুৎসাহিত হচ্ছেন।