মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনে দুই প্যানেলের মনোনয়নপত্র জমা

মোঃজাকির হোসেন সৈয়দপুর (নীলফামারী)প্রতিনিধিঃউৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনের প্রার্থীরা। বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) দুপুরে নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসার উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে ১৭ টি পদের বিপরীতে মোট ৩৪ জন প্রার্থী দুইটি প্যানেলে বিভক্ত হয়ে নিজেদের মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। 
দুপুর ২ টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে সমবেত হয়ে মোনাজাতের মাধ্যমে সম্মিলিতভাবে মনোনয়ন জমা কার্যক্রম সম্পন্ন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোখছেদুল মোমিনের প্যানেলভুক্তরা। 
এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আজমল হোসেন সরকার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা বেগম লাকী, পৌর কাউন্সিলর কাজী মানোয়ার হোসেন হায়দার ও জোবায়দুর রহমান শাহীন, বাঙ্গালীপুর ইউপি চেয়ারম্যান ডা. শাহজাদা সরকার, কামারপুকুর ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার সরকার, কাশিরাম বেলপুকুর ইউপি চেয়ারম্যান লানচু হাসান চৌধুরী।
এছাড়াও ছিলেন, সৈয়দপুর ক্রিকেট ক্লাবের সভাপতি আওরঙ্গজেব, ইন্টারনাল স্কুলের অধ্যক্ষ শাহাবাত আলী শাব্বু, সৈয়দপুর সরকারী কলেজের ক্রীড়া শিক্ষক আহসান উদ্দীন বাদল, কৃষিবিদ মবিনুল ইসলাম মোবিন, কামারপুকুর কলেজের প্রভাষক নান্নুসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান ও ক্লাবের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক এবং ক্রীড়া সংস্থার সদস্যবৃন্দ। 
মোনাজাতপূর্ব আলোচনায় মোখছেদুল মোমিন বলেন, দীর্ঘ একযুগ পর উপজেলা ক্রীড়া পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতদিন একব্যক্তি সংস্থাটিকে অবৈধভাবে কুক্ষিগত করে রেখেছে। একবার সেক্রেটারী নির্বাচিত হয়ে দিনের পর দিন নির্বাচন না দিয়েই জগদ্দল পাথরের মত চেপে বসে আছেন ওই পদে। 
অথচ সৈয়দপুর ক্রীড়াঙ্গনের উন্নয়নে তার বিন্দুমাত্র অবদান নেই। বরং তিনিসহ তাঁর পরিবারের সদস্যরা এই পদকে পূঁজি করে নিজেদের আখের গুছিয়েছে। একারনে সৈয়দপুরের ক্রীড়ামোদী ও সচেতন মহল চরম হতাশাগ্রস্থ এবং বিতশ্রদ্ধ। 
তাঁরা এই অবস্থার পরিবর্তন চায়। এই উপজেলার খেলাধুলার ঐতিহ্যকে ফিরিয়ে আনতে আন্তরিক। সেকারণে তাঁরা আমার মাধ্যমে সংস্থাকে ঢেলে সাজিয়ে নতুন উদ্দমে কাজ করার লক্ষে পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়।
তাঁদের অনুরোধে সেই সেক্রেটারিকে সহ-সভাপতি করেই সিলেকশনের মাধ্যমে কমিটি করার পরামর্শ দিলে তিনি সেক্রেটারি পদ ছাড়তে নারাজ। যদিও আমি ওই সিলেকশন কমিটিতে ছিলামনা। কিন্তু তার একগুঁয়েমির কারণে এই নির্বাচনে অংশগ্রহণে বাধ্য হলাম।এমন ছোট্ট পরিসরের কোন নির্বাচন করার কথা কখনও ভাবিনি। 
তিনি আরও বলেন, সৈয়দপুরের ক্রীড়াঙ্গনের বেহাল দশা দূর করতে এবং লুটেরা সিন্ডিকেটের হাত থেকে রক্ষার জন্যই মূলতঃ প্রার্থী হওয়া। আমি মুখ থুবড়ে পড়া ক্রীড়া সংস্থাকে একটি মজবুত ভিত্তির উপর পূন:স্থাপন করে কার্যকর প্রতিষ্ঠানে উন্নীত করতে চাই। এজন্য ক্রীড়া সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগীতা আশা করছি। 
মোখছেদুল মোমিন বলেন, সৈয়দপুর ক্রীড়ার দিক থেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও উর্বর ভূমি। উপযুক্ত আন্তরিক পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এখান থেকে বিশ্বমানের খেলোয়াড় তৈরী হবে। সেই ঐতিহ্যকে ধ্বংস করা হয়েছে। কিন্তু আর না।
সবধরনের সহায়তা প্রদান করে ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব ও প্রতিদ্বন্দ্বী প্যানেলের সদস্যসহ সকল সাথে নিয়েকৃতিত্বপূর্ণ খেলা, খেলোয়াড় উপহার দিয়ে সৈয়দপুরকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আবারও তুলে ধরা হবে। 
সৈয়দপুরের ভালো চাইলে এবং খেলাধুলার প্রতি ভালোবাসা থাকলে এবারের নির্বাচনে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্রীড়া সংশ্লিষ্ট প্রকৃত ব্যক্তিদের ভোট দিয়ে কাজ করার সুযোগ দেয়ার আহ্বান জানান সেক্রেটারি প্রার্থী মোখছেদুল মোমিন। 
এর আগে সকালে মহসিন আনোয়ারুল, মোজাম্মেল রাশেদ প্যানেলের পক্ষেও মনোনয়নপত্র জমা দেয়া হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিনুল হক, পৌর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবু, সাধারণ সম্পাদক ও ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক
অন্যদের মধ্যে ছিলেন, আওয়ামীলীগ নেতা প্রকৌশলী রাশেদুজ্জামান, পৌর কাউন্সিলর এরশাদ হোসেন পাপ্পু, আসমতিয়া দাখিল মাদরাসার সুপারিন্টেনডেন্ট মাওলানা আনোয়ারুল আলম শাহ, সাবেক পৌর কাউন্সিলর সরকার কবির উদ্দীন ইউনুস, ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব হায়াত আলী জাফরি প্রমুখ।