মঙ্গলবার ১৬ অগাস্ট ২০২২ ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরের হোটেল-রেস্তোরাগুলোতে পচা ও বাসি খাবার বিক্রির অভিযোগ

মো. জাকির হোসেন : সৈয়দপুর শহরের অলিতে-গলিতে গড়ে উঠেছে অসংখ্য হোটেল। আর এসব হোটেলে নিুমানের খাবারসহ পচা-বাসি খাবার দেদারছে বিক্রি করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, খোদ উপজেলা পরিষদের কার্যালয়ের সামনের হোটেল-রেস্তোরাগুলোর আরো করুন অবস্থা। অভিযোগ রয়েছে শহরের তাজির হোটেল, আল সামস, নাটোর দই ঘর, ঢাকা বিরিয়ানী হাউস, জিআরপি ক্যান্টিনসহ নামিদামি হোটেল-রেস্তোরাগুলোসহ সবগুলো হোটেলেই নিুমানের পচা-বাসি পেঁয়াজ-রসুন, মরিচসহ মসল্লা ব্যবহার করে এসব দিয়ে রান্না করা খাবার গ্রাহকদের পরিবেশন করা হচ্ছে। এমনকি বিভিন্ন তরকারিতে কেমিক্যাল দিয়ে সু-স্বাদু ও মুখরোচক খাবার তৈরি করে সরবরাহ করা হচ্ছে। আরো অভিযোগ রয়েছে এসব হোটেল-রেস্তোরায় রোগাক্রান্ত গরু-ছাগল-মুরগির মাংস প্রতিনিয়ত বিক্রি করা হচ্ছে। লক্ষ্য করা গেছে, এসব হোটেল-রেস্তোরার রান্নাঘর অত্যন্ত নোংরা এবং দূর্গন্ধময়। আর এসব রান্নাঘরেই রান্না করে গ্রাহকদের খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে। ভেজাল বিরোধী অভিযান এলে তাৎক্ষনিকভাবে এসব হোটেল-রেস্তোরার এরকম অবস্থার জন্য জরিমানা করা হয় ঠিকই। কিন্তু, এসব অবস্থার কোন পরিবর্তন হয়না। সৈয়দপুর শহর ব্যবসা ও শিল্পসমৃদ্ধ শহর হওয়ায় এখানে প্রতিদিন বাইরে থেকে হাজার হাজার মানুষ আসে এবং তাদেরকে এসব হোটেল-রেস্তোরায় খেতে হয়। এসব রেস্তোরায় খেতে গিয়ে তারা আর্থিকভাবে ক্ষতির পাশাপাশি বিভিন্ন রোগ বহন করে নিয়ে যাচ্ছে। দিনাজপুর থেকে আসা মিজান, রংপুর থেকে আসা সালাম. নীলফামারী থেকে আসা গফুর, বেলাইচন্ডি থেকে আসা ফজলু জানান, এখানকার দু-একটি হোটেলের খুব নামডাক থাকলেও এসব হোটেলে খেয়ে আমরা পেটের অসুখে অসুস্থ্য হয়ে পড়েছি। এলাকাবাসী জানান, সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে শহরের মেইন সড়কের হোটেল-রেস্তোরাগুলোতে ভেজাল বিরোধী অভিযান মাঝে-মধ্যে তাও নামমাত্র চললেও নতুন ক্লথ মার্কেটে, সিনেমা সড়কে, রেললাইনের পাশের হোটেল-রেস্তোরাগুলোতে কোন ধরণের অভিযান না চালায় এরা নিুমানের খাবার বেচে নিজেরা আঙ্গুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হচ্ছে। আরও লক্ষ্য করা গেছে, উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ের সামনের হোটেল-রেস্তোরাগুলোর আরও করুন অবস্থা। অথচ, এখানে কত লোকজনই জমি কেনা-বেচাসহ বিভিন্ন দাপ্তরিক কাজে এসে দীর্ঘসময় অবস্থান করায় এসব হোটেল-রেস্তোরায় পচা বাসি ও নিুমানের খাবার খেয়ে প্রতিনিয়ত অসুস্থ্য হচ্ছে। তাই, এলাকাবাসীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা মানুষের দাবি এসব হোটেল-রেস্তোরায় তদারকির মাধ্যমে বিশুদ্ধ খাবার পরিবেশনের ব্যবস্থা করা। প্রয়োজনে এসব হোটেল-রেস্তোরায় কেমন খাবার ও হোটেল-রেস্তোরার পরিবেশ কেমন রয়েছে তা যথারীতি তদারকির জন্য যোগ্য লোকবল নিয়োগ করা। যাতে হোটেল-রেস্তোরাগুলোতে মানসন্মত খাবার পরিবেশন করা হয়।এই ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন ও পৌর প্রশাসনসহ নিয়োগকৃত স্যানিটারী ইন্সপেক্টর কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় এসব ব্যবসা রমরমাভাবে চলছে। দেখার কেউ নেই?

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email