বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে অভিন্ন পানির ন্যায্য হিস্যার দাবিতে সমাবেশ

মো. জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি : তিস্তাসহ সকল অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যার দাবিতে সৈয়দপুরে কৃষক খেতমজুর বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ গতকাল শুক্রবার বিকেলে বাংলাদেশ কৃষক খেতমজুর সমিতি নীলফামারী জেলা কমিটির উদ্যোগে শহরের শহীদ ডা. জিকরুল হক সড়কের শহীদ স্মৃতি অম্লান চত্বরে ওই সমাবেশের আয়োজন করা হয়৷

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ভারতের এক ঘেঁয়েমি সিদ্ধান্তের কারণে এককালে প্রমত্তা তিস্তা নদী আজ মরা নদীতে পরিণত হয়েছে৷ ভারত সরকার তাদের সীমান্তে তিস্তা নদীতে গজলডোবা বাঁধ নির্মাণ করে তিস্তা পানি এক তরফাভাবে প্রত্যাহার করে নিয়েছে৷ ফলে তিস্তা আজ ধূ ধু বালুচরে পরিণত হয়েছে৷ বাংলাদেশ সরকার তিস্তা নদীতে তিস্তা সেচ ব্যারেজ তৈরি করে তিস্তার পানি সেচ কাজে ব্যবহারের যে পরিকল্পনা নিয়েছিল, তা আজ ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়েছে৷ কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত তিস্তা সেচ ব্যারেজ আজ এ অঞ্চলের মানুষের কোন কল্যাণেই আসছে না৷

বক্তারা আরো বলেন, কৃষিপ্রধান বাংলাদেশের কৃষকরা কৃষি কাজে ভূমিকা রাখতে পারছেন না৷ গোটা তিস্তায় পানির অভাবে ধূ ধু বালিচর আজ৷ এতে করে তিস্তাপাড়ের শত শত জেলে পরিবার বেকার হয়ে পড়েছে৷ এতোদিন তারা তিস্তা নদীতে মাছ ধরে জীবন নির্বাহ করতো৷ কিন্তু আজ তারা কর্মসংস্থানের অভাবে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন৷ তিস্তা পানি প্রত্যাহারের মাধ্যমে ভারত সরকার বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলকে মরুভূমিতে পরিণত করেছে৷ অথচ ভারত সরকার বাংলাদেশের করিডোর ব্যবহারসহ নানা সুযোগ-সুবিধা ভোগ করছে৷

এ ছাড়াও সমাবেশে বক্তারা তিস্তাসহ সকল অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যার দাবি করেন৷ অন্যথায় দেশের কৃষক শ্রমিক, খেতমজুরসহ খেটে খাওয়া মানুষকে সঙ্গে নিয়ে তিস্তার পানির দাবি আদায়ে বৃহত্ আন্দোলনের হুমকি দেন৷ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন অ্যাড. তুষার কান্তি রায়, কামরুন নাহার ইরা, জয়দেব কুমার প্রমুখ৷

এর আগে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়৷ লাল পতাকা নিয়ে বিপুল সংখ্যক মানুষ ওই বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেয়৷ মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক সমূহ প্রদক্ষিণ করে৷

Spread the love