রবিবার ২২ মে ২০২২ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে আবাসিক এলাকায় গুল ফ্যাক্টরী, স্বাস্থ্যহানীর শিকার সহস্র এলাকাবাসী

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর শহরের আবাসিক এলাকায় বেপরোয়াভাবে গড়ে উঠেছে বেশ কিছু তামাকজাত পণ্য গুলের ফ্যাক্টরী। এই তামাকজাত গুল গুড়ো করা হয় গম ভঙ্গা মেশিনে যা গণমানুষের স্বাস্থ্যহানীর কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে দাবী করছেন এলাকার সচেতন মহল।

সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, শহরের বাঁশবাড়ি, নতুনবাবু পাড়া ও কয়ামিস্ত্রী পাড়ায় গড়ে উঠেছে তামাকপাতা গুড়ো করার ফ্যাক্টোরী। যেখানে দিনের বেলায় তামাকপাতা গুড়ো করা হয়। ওই তামাকপাতা গুড়ো করার সময় তামাকের গুড়ো বাতাসের সাথে মিশে এলকায় ছড়িয়ে পড়লে পথচারীসহ এলাকায় বসবাসকারী মানুষের শ্বাষনালিতে ঢুকে ততনাত ওই মানুষের কাঁশি শুরু হয়ে যায়। এই সমস্যাগুলো তামাক গুড়ো করার ফ্যাক্টরীর চারপাশের মানুষ গুলোর নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে। শতবার এ বিষয়ে অভিযোগ করা হলেও কোন ফল মেলেনি বলে অভিযোগ এলাকার মানুষের। কয়ামিস্ত্রী পাড়ায় এক পথচারী বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের শামিম (৩৫) এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, বসুনিয়া রোডে সকালে রাস্তা হাটাই কষ্টকর। তামাক পাতা গুড়ো করার সময় ওই গুড়োগুলি বাতাসে উড়ার কারণে এ সমস্যা গুলো হচ্ছে। বাঁশবাড়ি এলাকায় সকালে নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক পাইলট স্কুলের নবম শ্রেনীর ছাত্র অভিযোগ করে বলেন, এই এলাকায় তামাকের গুড়ো নাকের ভেতর ঢুকে প্রায় মানুষের এলার্জির সৃষ্টি হয়েছে। কারো কারো সর্দ্দি ও হাঁচ্চি লেগে থাকার কারণে এজমা হয়েছে। আমি ছোট থেকে দেখে আসছি এসব নিয়ে অনেক লেখালেখি হয়েছে। কিন্তু কোন লাভ হয়নি। এমনি অভিযোগ এসব ফ্যাক্টরীর চারপাশের অসংখ্য মানুষের।

বসুনিয়াপাড়ার আলীগ এর প্রবীন রাজনীতি নেতা শমসের আলী বসুনিয়ার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এমন অভিযোগ প্রায় আমার কাছে আসে। অনেকেই বলে বসুনিয়া সাহেব, তামাকের গন্ধে রাস্তা চলাচল বড় কষ্টকর হয়েছে। একথাগুলো শুনলে খারাপ লাগে। মানুষের যদি বিবেক না থাকে মানুষ যদি বিবেকহীন হয়ে দিনের বেলায় অপরিকল্পীত ভাবে তামাক গুড়ো করে তাহলে বলার কিছু থাকে না। বিষয়টি প্রশাসনের নলেজে আছে কিনা জানি না। আমার বয়স হয়েছে এখন আমি আগের মতো বেড় হতে পারি না। আগের মতো বেড় হলে হয়তো একটা কিছু করা যেতো। এখন বিষয়টি প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করা ছাড়া আর কি করতে পারি। তিনি এই উন্মুক্ত পদ্ধতিতে তামাকপাতাগুড়ো বন্ধ এবং এলাকায় সুস্থ পরিবেশ ফিরে পেতে যাথাযথ কর্তৃপরে আইনত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান । এ ব্যাপারে পরিবেশ অধিদপ্তরে কর্মকর্তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email