বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে এমপি’র বিশেষ বরাদ্দের প্রায় ৬শত টন চাল হরিলুট

জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ সৈয়দপুর ও কিশোরগঞ্জ উপজেলার গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণে এমপি’র বিশেষ বরাদ্দ ৫৯০ টন চাল বানোয়াট প্রকল্প ও ভুয়া মাস্টাররোল দাখিলের মাধ্যমে হরিলুট হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

নীলফামারী-৪ আসনের এমপি ও বিরোধী দলীয় হুইপ আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী, তার চাচাতো ভাই এনামূল চেয়ারম্যান, শ্যালক জুয়েল চেয়ারম্যান, পার্টির স্থানীয় নেতা রাকিব, ইলেক্ট্রনিক ব্যবসায়ী শামস্ এমপি’র কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি ও প্রকল্পভুক্ত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের একটি চক্র নামমাত্র সংস্কার কাজ দেখিয়ে এবং কিছু কিছু প্রকল্পে স্বল্পমূল্যের সোলার প্যানেল ধরিয়ে দিয়ে বরাদ্দের পুরো চাল আত্মসাৎ করার চেষ্টা করছেন বলে তালিকাভুক্ত প্রকল্পের একাধিক চেয়ারম্যান অভিযোগ করেছেন।

 

সংশি­ষ্ট উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার দপ্তর থেকে জানা গেছে, ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার (কাবিখা) ও গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) প্রকল্পে নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বিরোধী দলীয় হুইপ আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী সৈয়দপুর উপজেলায় ২৪০ টন ও কিশোরগঞ্জ উপজেলায় ৩৫০ টন চাল বরাদ্দ দেন। এর মধ্যে কিশোরগঞ্জে কাবিখার ৮টি প্রকল্পে ১৫০ টন ও টিআর ৩০টি প্রকল্পে ২০০ টন এবং সৈয়দপুরে কাবিখার ১৫টি প্রকল্পে ১৫০ টন ও টিআর ৪১টি প্রকল্পে ৯০ টন চাল বরাদ্দ রয়েছে বলে জানা গেছে।

 

সরেজমিনে প্রকল্পগুলো ঘুরে দেখা গেছে, কিশোরগঞ্জের নিতাই এতিমখানা মাঠে মাটি ভরাট, সংস্কার ও সোলার প্যানেল স্থাপনে ১৫ মেট্টিক চাল বরাদ্দ থাকলেও ওই নামে আদৌ কোন এতিমখানা নিতাই ইউনিয়ন এলাকায় নেই বলে দাবি করেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিনুর আলম শাহিন।

 

একইভাবে ওই উপজেলার ফরুয়াপাড়া জামে মসজিদ কমিটির লোকজন জানেন না তাদের মসজিদের নামে এমপি’র ৪ টন চাল বরাদ্দ হয়েছে। অথচ বরাদ্দের চাল উত্তোলন শেষ। মন্দির কমিটির সভাপতি সুবোধ চন্দ্র বিশ্বাস জানেন না ফরুয়াপাড়া কালী মন্দিরে সোলার প্যানেল স্থাপন ও সংস্কার কাজে ৪ টন চাল বরাদ্দ হয়েছে।

 

সোলার প্যানেল স্থাপন ও সংস্কার কাজে ৭ টন চাল বরাদ্দ দেখানো হয়েছে কাছারী মহিলা মাদরাসা প্রকল্পে। কিন্তু ওই এলাকায় একমাত্র মহিলা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ফাতেমাতুজ্জোহরা মহিলা মাদরাসার প্রধান রশিদুল ইসলাম জানান, তিনি আবেদন করেছিলেন কিন্তু বরাদ্দ হয়েছে কিনা তা তিনি জানেন না। একই কথা জানান পার্শ্ববর্তী বাঁশবাড়ী মাদরাসা ও ইয়াতিমখানার পরিচালক মাওলানা আব্দুর রশিদ।

 

কিশোরগঞ্জ পিআইও অফিসে যোগাযোগ করে তারা জানতে পারেন কে বা কারা তার প্রতিষ্ঠানের নামে ভুয়া মাস্টাররোল তৈরি করে কাজ না করেই বরাদ্দকৃত চাল উত্তোলন করেছেন। চাঁদখানা মডেল কলেজের সংস্কার ও সোলার প্যানেল স্থাপনে কাবিখা প্রকল্পে ২০ মেট্টিক টন বরাদ্দ দেয়া হলেও টিআর প্রকল্পেও ৭ টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে একই প্রতিষ্ঠানের নামে। মোট ২৭ টন চাল বরাদ্দ মিললেও ওই প্রতিষ্ঠানে কোন কাজ হয়নি, ভুয়া মাস্টাররোল তৈরি করে বরাদ্দের চাল উত্তোলন করা হয়েছে। ওই উপজেলার একাধিক প্রকল্প ঘুরে দেখা গেছে, এমপি’র বিশেষ বরাদ্দের চাল নিয়ে হরিলুটের রাম-রাজত্ব চলছে। তবে প্রকল্পের কতিপয় চেয়ারম্যান বরাদ্দ পাওয়ার কথা স্বীকার করলেও তাদের অভিযোগ, ইলেক্ট্রনিক ব্যবসায়ী, এমপি’র বিশেষ প্রতিনিধি এস এম সামস্ চুন বাণিজ্যিক ফায়দা হাসিলের লক্ষ্যে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা থাকার পরও মোট বরাদ্দের অর্ধেক কেটে নিয়ে সোলার প্যানেল (সৌর বিদ্যুৎ) নিতে বাধ্য করছেন।

 

এদিকে, কিশোরগঞ্জের তুলনায় সৈয়দপুরে মসজিদ-মাদরাসা, ঈদগাহ মাঠ ও বধ্যভূমির নামমাত্র কাজ হলেও হরিলুট করা হয়েছে অন্যান্য প্রকল্পে। শহরের কয়াগোলাহাট স্কুল এন্ড কলেজের টিনশেড ঘর মেরামতের জন্য ২ টন চাল উত্তোলন করা হলেও অধ্যক্ষ জানেন না বরাদ্দের কথা। উপজেলার উত্তর সোনাখুলী নিরাশা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে মাটি ভরাট ও সোলার প্যানেল স্থাপনে ৮ টন চাল বরাদ্দ দেয়া হলেও বাস্তবতার কোন মিল নেই। তবে প্রধান শিক্ষক আশরাফুল ইসলাম জানান, কয়েক মাস আগে স্থানীয় মহিলা মেম্বার জরিফা’র স্বামী খলিল ও ইউপি চেয়ারম্যান ছাইদুর রহমান সরকার স্কুল মাঠের দক্ষিণ কোণায় পুকুর থেকে সামান্য বালু তুলে দিয়ে মাস্টাররোলে তার স্বাক্ষর নেন। তবে তিনি জানতেন না এমপি’র বিশেষ বরাদ্দ থেকে ওই প্রতিষ্ঠানের নামে ৮ মেট্টিক টন চাল বরাদ্দ হয়েছে। সোলার প্যানেল এখনও পাননি, আর মাটি ভরাট কাজে ২-৩ হাজার টাকার বেশি খরচ হবে না বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান।

 

প্রকল্পের একাধিক চেয়ারম্যান সাংবাদিকদের জানান, নামে মাত্র প্রকল্প চেয়ারম্যান করা হয়েছে তাদের। এমপি, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, এমপি’র বিশেষ প্রতিনিধি ও নিকটাত্মীয়র চক্রটি এসব প্রকল্প তৈরি করায় অনেক প্রকল্প চেয়ারম্যান এখনও জানেন না তাদের নামে প্রকল্প হয়েছে এবং কি পরিমাণ চাল বরাদ্দ হয়েছে তাদের নামে তাও তারা জানেন না।

 

প্রকল্প চেয়ারম্যানেরা আরও অভিযোগ করেন, বরাদ্দের প্রতি টন চালের বিপরীতে এমপিকে ৮ হাজার, অফিস খরচ বাবদ পিআইওকে ২ হাজার এবং এমপি প্রতিনিধি ও স্থানীয় নেতা-কর্মীদের অগ্রিম টাকা দিয়ে ডিও গ্রহণ করতে হয়। এসব ডিও বিক্রির পর হতভম্ব হয়ে যান তারা। এমপি’র বিশেষ বরাদ্দের এসব ডিও কেনার জন্য উভয় উপজেলার খাদ্য গুদামে প্রায় ১০ জনের একটি দালাল সিন্ডিকেট রয়েছে বলেও অভিযোগ মিলেছে।

 

এদিকে, এমপি’র বিশেষ বরাদ্দে হরিলূটের খবর যাতে মিডিয়ায় না আসে, কৌশল হিসেবে প্রকল্প প্রস্তুতকারী চক্রটি স্থানীয় একটি সাংবাদিক সংগঠনকে ৬ টন চাল বরাদ্দ দিয়ে তাদের লেখনী বন্ধ রেখেছেন বলে জানা গেছে।

 

সৈয়দপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, তিনি এমপি’র তালিকা অনুযায়ী ছবি দেখে প্রকল্প চেয়ারম্যানকে বরাদ্দ প্রদান করেছেন। তিনি দাবী করেন, অন্যান্য উপজেলার চেয়ে সৈয়দপুরে কাজ হচ্ছে।

 

কিশোরগঞ্জ উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইফুর রহমানের কার্যালয়ে একাধিকবার গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি এমনকি তার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও এ সংক্রান্ত বিষয়ে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

 

এসব বিষয়ে নীলফামারী-৪ আসনের সাংসদ ও বিরোধী দলীয় হুইপ আলহাজ্ব শওকত চৌধুরীর সাথে শুক্রবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় তার মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, পরিপত্র অনুযায়ী প্রকল্পে অনিয়ম হচ্ছে কিনা তা দেখার দায়িত্ব সংশি­ষ্ট উপজেলার ইউএনও এবং পিআইও’র, তার নয়। তবে প্রকল্পের দুর্নীতির বিষয়ে তার জানা নেই এবং তার নামে টাকা নেওয়ার বিষয়টি বানোয়াট বলেও তিনি দাবী করেন।

Spread the love