শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে নোট ও গাইড কিনতে বাধ্য করায় অভিভাবকরা বিপাকে

মোঃ জাকির হোসেন সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি;

সৈয়দপুর উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধানদের বিভিন্ন কোম্পানীর নোট ও গাইড বইয়ের প্রতিনিধিরা ম্যানেজ করে তাদের কোম্পানীর বইগুলো শিক্ষার্থীদের কিনতে বাধ্য করায় অভিভাবকরা অতিরিক্ত মূল্যের এসব বই কিনতে হিমশিম খাচ্ছেন।

এমনিতেই বর্তমানে গোটা দেশ জুড়ে ২০দলীয় জোটের টানা অবরোধ আর হরতালে মানুষজন অভাব-অনটনের মধ্যে খুবই কষ্টে জীবন যাপন করছেন তার ওপর আবার মরার উপর খাঁড়ার গা’ হয়ে দাঁড়িয়েছে সন্তানদের লেখা-পড়ার অজুহাতে বিভিন্ন কোম্পানীর গাইড ও নোট বই কিনার জন্য। স্বয়ং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকেই নির্দেশ দেয়া হচ্ছে শিক্ষার্থীদের এসব বই কিনতে। আর এ অবস্থায় সন্তানদের জন্য এসব নোট ও গাইড বই কিনতে আরো চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন অভিভাবকরা।

 

বর্তমান সরকার প্রাইমারী ও মাধ্যমিক পর্যায়ে পাঠ্যবই বিনামূল্যে সরকারীভাবে শিক্ষার্থীদের দেওয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে স্বস্তি ফিরে আসলেও এসব নোট ও গাইড বইয়ের কারবারীদের কারণে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জিম্মি হয়ে পড়েছে। বিগত বছরগুলোতেও দেখা গেছে, বিভিন্ন কোম্পানীর প্রতিনিধিদের দৌরাত্ন। তারা শুধু সৈয়দপুর নয় পুরো জেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নোট ও গাইড বইয়ে ছেয়ে ফেলেছিল। এবারও তার ব্যতিক্রম নেই। আর এসব নোট ও গাইড বইয়ের ব্যবসা দীর্ঘদিন থেকেই সৈয়দপুরের একটি লাইব্রেরী মালিক করে আসছেন। এই লাইব্রেরীতেই এসব নোট ও গাইড বইয়ের প্রতিনিধিরা আড্ডা মারার পাশাপাশি ওই লাইব্রেরীর গুদামে এসব নোট ও গাইড বই গুদামজাত করে সৈয়দপুরসহ পুরো নীলফামারী জেলায় বাজারজাত করে চলেছে।

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে- লেকচার, জুপিটার, পাঞ্জেরি, এ্যাডভ্যান্স, প্রফেসরস, নবদূত, অনুপমসহ বিভিন্ন প্রকাশনার প্রতিনিধিরা পুরো জেলায় তাঁদের প্রকাশনার এসব গাইড ও নোট বই শিক্ষার্থীদের কিনতে বাধ্য করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। লাইব্রেরী মালিকদের একটি সূত্র জানায়, এসব প্রতিনিধিদের সহায়তা করে আসছেন সৈয়দপুরেরই শহীদ ডাঃ জিকরুল হক সড়কের হাসান লাইব্রেরীর মালিক। এ লাইব্রেরী মালিকের সহায়তা নিয়ে এসব প্রকাশনার প্রতিনিধিরা লাইব্রেরী মালিককে ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষকদের মোটা অংকের পার্সেন্টেস দিয়ে তাঁদের এ কারবার দীর্ঘ কয়েক বছর থেকে চালিয়ে আসছে। যার জন্য এ লাইব্রেরী মালিকের সাথে প্রকাশনা কোম্পানীগুলোর প্রতিনিধি ও শিক্ষকদের প্রায়ই আড্ডাও দিতে দেখা যায়। স্থানীয় ক’জন লাইব্রেরী মালিক জানান, আমরা কিছু এসব বই বিক্রি করলেও সহায়তা দানকারী লাইব্রেরী মালিক আঙ্গুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হচ্ছেন। এসব গাইড ও নোট বই প্রকাশনার প্রতিনিধিরা নীলফামারী জেলাসহ উত্তরাঞ্চলের অনেক জেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে খোলামেলাভাবে এসব গাইড ও নোট বই সরবরাহ করে চলেছে। এদিকে মজুদকারী লাইব্রেরী মালিক দম্ভ করে বলে বেড়াচ্ছেন যে, সরকারীভাবে এসব নোট ও গাইড বই বিক্রির নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তাই, বিদ্যালয়গুলোতে গাইড ও নোট বইয়ের ছড়াছড়ি চলছে। আর এসব গাইড ও নোট বই চড়াদামে কিনে অভিভাবকরা স্বর্বশান্ত হয়ে পড়েছেন। ইতিমধ্যে সিংহভাগ অভিভাবক এসব বই চড়াদামে কিনতে গিয়ে বর্তমানে সংসারে অভাবের কবলে পড়েছেন। জানুয়ারী মাস শুরুর প্রথম দিকেই গাইড ও নোট বইয়ের পরিবেশকরা তাঁদের নিযুক্ত প্রতিনিধিদের দ্বারা সৈয়দপুরে সকল প্রাইমারী, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিষয়ের গাইড ও নোট বই চালাতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক/শিক্ষিকাদের বখশিস ও মোটা উপঢৌকনের মাধ্যমে তাঁদের প্রকাশনার বইগুলো কেনার জন্য শিক্ষার্থীদের কিনতে বাধ্য করছেন।

 

অনেক অভিভাবক অভিযোগ করে জানিয়েছেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রতিটি ক্লাসের শিক্ষার্থীদের শিক্ষকরা বারবার তাগিদ দিয়ে এসব বই কিনতে বাধ্য করায় এসব বই চড়া দামে স্থানীয় লাইব্রেরীগুলোতে কিনে প্রায় স্বর্বশান্ত হয়ে পড়েছেন।

এদিকে সরকার গাইড ও নোট বই নিষিদ্ধ করলেও কোন শক্তির জোরে এসব বইয়ের ব্যবসা খোলামেলাভাবে চলছে তা’নিয়ে অভিভাবকমহলে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

 

এ ব্যাপারে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সাকেরিনা বেগমের সাথে মোবাইল ফোনে আলাপ হলে তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন, কোন লাইব্রেরী থেকে এসব বই বিক্রি হচ্ছে এবং কোথায় এসব বই মজুদ করা যাচ্ছে, তা’ জানালেই তিনি অভিযান চালাবেন। এবং এসব কারবারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন বলেও জানান তিনি। তিনি এসময় আরো জানান, গ্রামার বই পর্যন্ত সরকারীভাবে বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের দেয়া হচ্ছে।

এনিয়ে সৈয়দপুর টেকনিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ড. শাহ আমির আলী আজাদের সাথে কথা হলে তিনি জানান, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পাঠ্যক্রম অনুযায়ী পড়াশোনা করা দরকার। যারা বা যেসব প্রতিষ্ঠান এসব নোট ও গাইড বই শিক্ষার্থীদের কিনতে বাধ্য করাচ্ছেন তাদের নিন্দা জানাই।

Spread the love