বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে প্রতিদিন বিক্রি হয় সাড়ে সাত লাখ টাকার মাদক

মো. জাকির হোসেন, রংপুর ব্যুরো চীফ : যোগাযোগ ব্যবস্থায় ট্রানজিট পয়েন্ট নীলফামারীর সৈয়দপুর। রেল কিংবা সড়কপথে এ উপজেলায় প্রতিদিন লাখ-লাখ টাকার মাদক ঢুকছে। এভাবে সহজে মাদক মেলায় দিন-দিন আসক্তির সংখ্যাও বাড়ছে। উঠতি যুবক থেকে মাঝ বয়সি পুরুষ সকলে নির্বিঘ্নে এখন মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে। এতে থমকে গেছে এ জনপদের যুবকদের উজ্জল ভবিষ্যত। এর অভিশাপে এখন অনেক পরিবার নিঃস্ব হতে চলেছে। নাকের ডগায় সরকারের মাদক নিয়ন্ত্রন আফিস থাকলেও তারপরেও দেখার কেহ নেই। তাই বিপত্তি না থাকায় সহজেই এখন মাদক মিলছে এ জনপদে। পাড়া-মহল­ার অলিতে-গলিতে মাদকের বুদ-বুদ গন্ধে ক্রেতা-বিক্রেতার মিলন মেলায় প্রায় সাড়ে সাত লাখ টাকার মাদক প্রতিদিন বেচাকেনা হচ্ছে উত্তরের এ বানিজ্যিক শহরে। আর এভাবে এটি আজ মাদকের নগরীতে পরিণত হয়েছে।

একটি সুত্র জানায়, ভারতের হিলি সীমান্ত ছাড়াও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত হতে প্রতিদিন লাখ-লাখ টাকার ফেন্সিডিল, হিরোইন, ইয়াবা ও গাঁজা আসছে বাংলাদেশে। আর এ সকল মাদক প্রকাশ্যে ব্যাবসায়ীা এ শহরের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করছে। শহরের রেল লাইনের ধার, হাতিখানা, নতুন বাবুপাড়া, বাঁশবাড়ি, রসুলপুর, বাস টারমিনাল এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যাবসায়ীরা এগুলো বিক্রি করছে। এক্ষেত্রে তারা স্থনীয় প্রশাসনসহ মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন সৈয়দপুর সার্কেল অফিস কে দিন কিংবা মাসোহারা চুক্তিতে ম্যানেজ করে দদীর্ঘদিন ধরে এ ব্যবসা চালিয়ে আসছে। এতে এ জনপদটি আজ মাদকে পরিপুর্ন হয়ে গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গাঁজা ব্যাবসায়ী জানায়, এ শহরের চার ভাগের তিন ভাগ যুবক থেকে মাঝ বয়সি পুরুষরা মাদক নিচ্ছে। একটু সচ্ছল পরিবারের সন্তানেরা ফেন্সিডিল, হিরোইন ও ইয়াবা সেবন করে। আর যে কোন বয়সীরা সস্তা মাদক গাঁজা সেবন করছে। আর সেবিদের মাধ্যমে যে কোন মাদক শহরের বাইরে যাচ্ছে। তবে রেল লাইনের ধারে গাঁজার বড় চালান সরবরাহকারী জাহাঙ্গির, ইসমাইল, ইয়াবা ও ফেন্সিডিল সৈয়দপুর রেল ষ্টেশন এলাকার বেবিয়া ও বাস টারমিনাল এলাকার মোতালেব, আর আঙ্গুল কাটা আমিনল, আইযুল, ইসলাম বাগ পাওয়ার হাউসের পিছনে হিরোইন স্পট খ্যত এলাকায় নাসিম, আকরাম. সেলিম, হাতিখানায় জাবেদ, মিলন মাছুয়া এবং বাংলা মদ লাইনের ধারে ফল ভান্ডারের পাশে জাবেদ নামে ব্যাবসায়ী বিক্রি করছেন।

একটি সুত্র জানায়, এ শহরের বিভিন্ন স্পটে প্রতিদিন গাঁজা ১০ কেজি, ৫ শ’ পিস ফেন্সিডিল, হিরোইন আধাপোয়া বিক্রি হয়। আর এসবের আনুমানিক মুল্য প্রায় সাড়ে সাত লাখ টাকা। সুত্রটি আরো জানায়, সৈয়দপুর শহরের নতুন বাবু পাড়া এলাকায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন এর সার্কেল অফিস রয়েছে। তারপরেও মাদক বন্ধ তো দুরের কথা উল্টো দিন-দিন এর ব্যবসা বাড়ছে। মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করলেও তাদের পরিবারের সদস্যরা গোপনে এ ব্যাবসা ধরে রাখে। পরে জামিনে এসে তারা কোমড় বেধে সকল প্রশাসনিক সেক্টরকে চুক্তি করে আবারো সক্রিয় হয়ে ওঠে।

তবে এ কথা মানতে নারাজ মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের সৈয়দপুর সার্কেল অফিসটি, তারা জানায় খবর পাওয়া মাত্রই তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। আর এ সকল ব্যাবসায়িরা বছরের অর্ধেক সময় জেল খানায় কাটায়। তবে তারা গোপনে ব্যাবসা করলে আমাদের করার কিছুই থাকেনা।

প্রকাশ্যে মাদক বিক্রি হলেও প্রশাসনের নজরে কেন মাদক ব্যাবসায়ীরা পড়ে না । তা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন শহরের সচেতন মহল। বিশিষ্ট আইনজীবি রাফিউল ইসলাম খাজা জানান, রাতে রেল লাইনের ধার, পাড়া মহর অলিতে-গলিতে দিয়ে পথ চলা কষ্ট হয় মাদকের গন্ধে। এর কারনে অনেক পরিবার নিঃস্ব হয়েছে। আর চিকিৎসায় সব কিছু বিক্রি করে চালাতে হচ্ছে চিকিৎসা। কেউবা নিরাময় কেন্দ্রে। তবে সহসাই যন্ত্রনা থেকে মুক্তি মিলছেনা পরিবারগুলোর। এ নিয়ে সৈয়দপুর থানার নবাগত অফিসার্স ইনচার্য সৈয়দ আমিরুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, শুধু মাদক নয়। অতিত অভিজ্ঞতা দিয়ে সকলের সহযোগিতায় এ শহরের সকল অনৈতিক কর্মকান্ড নির্মুল করা হবে।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email