শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে বেড়েই চলেছে শিশু শ্রম দায়িত্বে থাকা কর্তারা নিশ্চুপ?

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলায় ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশুদের ব্যবহার উদ্বেগজনক ভাবে বেড়েই চলেছে৷ এই শহরে প্রায় ৫ শতাধিক ৮ থেকে ১৩ বছরের বয়সের শিশুরা শিক্ষা জীবন বাদ দিয়ে কঠোর পরিশ্রমের পথ বেছে নিয়েছে৷ প্রাথমিক শিক্ষা সবার জন্য বাধ্যতামূলক হলেও শিশুশ্রমের কারণে শিক্ষার মুখ দেখছেনা এসব শিশুরা৷

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায় শিশুরা ইঞ্জিনিয়ারিং, ওয়ার্কশপ, ওয়েল্ডিং, কারখানা, গ্যারেজ, হোটেল, বেকারী, বাসের হেলপারসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কাজ করছে৷ এতে করে একদিকে যেমন স্বাস্থ্য হানিতে পড়ছে অন্যদিকে ব্যবহৃত হচ্ছে তাদের স্বাভাবিক বিকাশ এছাড়াও কম ্‌টাকায় বেশী কাজ করে নেওয়া হচ্ছে বলেও শিশুরা জানায়৷ কখনও কখনও হত দরিদ্র বাবা মারাই সংসারের ঘানি টানতে হিমশিম খেয়ে তাদের শিশু সন্তানদের বিভিন্ন পেশায় নামিয়ে দিচ্ছে৷ সৈয়দপুর পৌর শহর ছাড়াও বোতলা গাড়ী, কাশিরামবেলপুকুর, বাঙ্গালীপুর, কামারপুকুর, খাতামধুপুর, বিভিন্ন বাজারে শিশুদর ঝুঁকিপূর্ণ কাজের ব্যবহারের চিত্র লক্ষ্য করা গেছে৷ গত ৩০ মার্চ শহরের শহীদ ডা. জিকরুল হক রোডে জি,আর, িপ ক্যান্টিন এর মেচিয়ার সাথে কথা হলে সে জানায়, প্রতিদিন হোটেলে ঘুম থেকে উঠে সকাল ৮ টার থেকে ১০ টা পর্যন্ত কাজ করতে হয়৷ তিনবেলা খাবার হোটেলে খাই৷ এ কাজের প্রতিদিন ৫০৬০ টাকা মুজুরী পাই৷ স্কুলে গিয়েছে কিনা ও বয়স কত জানতে চাইলে সে জানায় অভাবের তাড়নায় স্কুল যেতে পারি নাই৷ তবে ৯১০ বছর হবে৷ এই বয়সে ধনী ও মধ্য বিত্ত পরিবারের শিশুরা যেখানে লেখাপড়ায় ব্যস্ত৷ সেখানে হত দরিদ্র বাবামার সংসারের ঘানি টানতে নিয়জিত৷ আমার মত আর অনেক শত শত শিশুকে দিয়ে এভাবেই প্রতিদিন বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করিয়ে নেওয়া হয়৷ কাজ ঠিক মত না হলে নেমে আসে শারিরীক, মানসিক নির্যাতন৷ তারপরও তাদের শ্রমের নেয্য মূল্য দেওয়া হয় না৷ শ্রম অধিদপ্তরে কর্তারা তাদের দায়িত্ব কত টুকু পালন করছে৷ সেনিয়ে সন্ধেহ রয়েছে৷

উপজেলা সূত্রে জানা যায়, সৈয়দপুর শ্রম অধিদপ্তরের কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব হীনতার কারণে দিন দিন শিশুশ্রম বৃদ্ধি পাচ্ছে৷ এ বিষয়ে কথা হলে ফ্রিআমিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফাতেমা বলেন, এতে করে তাদের জীবন নেমে যাচ্ছে অন্ধকারে৷ আর দেশের নষ্ট হচ্ছে ভবিষ্যত্৷

Spread the love