বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে রেলওয়ের জমিতে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণের হিড়িক

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি : দুদফা অগ্নিকান্ডের ঘটনা আশির্বাদ হয়ে দেখা দিয়েছে সৈয়দপুর রেলওয়ে বাজারের ব্যবসায়ীদের কাছে। ফলে দিনে-রাতে বাঁধাহীনভাবে রেলওয়ের জায়গায় নির্মাণের হিড়িক পড়েছে বহুতল ভবনের। আর এই সুযোগে অন্যান্য ব্যবসায়ীরাও যাদের দোকান পুড়ে যায়নি তারাও দোকানপাট ভেঙ্গে ফেলে স্থায়ীভাবে বহুতল পাকা ভবন স্থাপনা নির্মাণ করছেন। এনিয়ে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে সেই অগ্নিকান্ডকে ঘিরে। যে প্রশ্নের উত্তর আজও মিলে নি। হয়তো কোনদিনও মিলবে না ? এ ব্যাপারে স্থানীয় রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্বাবধায়কের বক্তব্য অসহায় দর্শকের মত এসব দৃশ্য দেখা ছাড়া আমার করার কিছু নেই।

এদিকে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণ বন্ধের জন্য রেলওয়ের আইনজীবি ৭২জনকে উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন। এদিকে এলাকার অনেকেই মত পোষন করেন যে, শহরে বহুতল ভবন নির্মাণের প্রয়োজন রয়েছে, কারণ এতে শহরের শোভা বৃদ্ধি পাবে। অপরদিকে আবার অনেকেই বলছেন যে, বহুতল ভবন নির্মাণ করা হোক কিন্তু, তা আইন মেনে করা হোক, আইন ভঙ্গ করে নয়।

গত ২৫ ও ২৬ জানুয়ারী রাতে দু দফায় একই সময়ে ২৪ঘন্টার সৈয়দপুর রেলওয়ে বাজারের কাপড় মার্কেটে মসল্লা ও মনিহারী পট্টিতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে প্রায় ১শ ৫০টি দোকান পুড়ে যায়। দুই মার্কেট মিলে য়তির পরিমাণ কয়েক কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায় বলে তিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা দাবি করেছেন। সৈয়দপুর, পার্বতীপুর, ডোমার ও নীলফামারীর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এবং সেনা সদস্যরাও আগুন নেভানোর কাজে অংশ নেন। এই অগ্নিকান্ডের ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট লিয়াকত আলীকে প্রধান করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

অগ্নিকান্ডের ঘটনার পরপরই তিগ্রস্তদের শান্তনা ও সাহায্য-সহযোগিতা করতে নীলফামারী-৪ আসনের এমপি আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী, সৈয়দপুর পৌরসভার মেয়র আমজাদ হোসেন সরকারসহ অনেকেই এগিয়ে আসেন। মেয়র আমজাদ হোসেন সরকার অগ্নিকান্ডে তিগ্রস্তদের পৌরসভার প থেকে আর্থিক সহযোগিতাও করেছেন। এদিকে সকল ব্যবসায়ীরা একজোট হয়ে গ্রুপফান্ড তৈরি করে রেলওয়ের জায়গায় বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ করছেন। আগে রেলওয়ের জায়গায় পাকা অবকাঠামো নির্মাণের সময় রেলওয়ে ও স্থানীয় প্রশাসনের বাঁধা ও চাঁদাবাজদের অত্যাচারে অনেকটা গোপনে কাজ করতে হতো।

কিন্তু অগ্নিকান্ডের পর বাঁধাহীনভাবে চলছে বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ। এই সুযোগে অন্যান্য দোকানদাররাও পুরনো দোকানপাট ভেঙ্গে ফেলে রেলওয়ের জায়গায় বিল্ডিং তৈরি করছেন। এছাড়া রেলওয়ের বিভিন্ন জায়গা দখল করে শহরের বিভিন্নœ এলাকায় ঘর-বাড়ী তৈরি অব্যাহত রয়েছে দীর্ঘদিন থেকে। অভিযোগ রয়েছে এর সাথে রেলের কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সিবিএ নেতারা সরাসরি জড়িত। তাছাড়া রেলওয়ের জমিতে বহুতল ভবন নির্মাণের কোন আইন নেই বলে রেলের আইনজীবি জানান।

রেলওয়ের আইনজীবি রাফিউল ইসলাম খাজা জানান, অন্য ১৭/৯নং মামলায় জজকোর্টের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে বিল্ডিং নির্মাণ করার বিষয়ে। উক্ত নিষেধাজ্ঞার আদেশ মহামান্য উচ্চতর আদালতও বহাল রেখেছেন। তাই, বহুতল ভবন নির্মাণ বন্ধ রাখার জন্য ৭২জনকে উকিল নোটিশ করা হয়েছে।

অপরদিকে সৈয়দপুরে রেলওয়ের ভুমিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকারী ৪ব্যক্তির বিরুদ্ধে গত ১৯মার্চ রেলওয়ের পার্বতীপুরের কানুনগো মনোয়ারুল ইসলাম সৈয়দপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করার পর অভিযোগের অনুলিপি সৈয়দপুর রেলওয়ে জি.আর.পি থানায় দিয়েছেন। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা হচ্ছেন-(১) মোঃ নেজাম বিন আজিম ৪৭, পিতাঃ আজিম উদ্দিন গোয়ালপাড়া, দিনাজপুর মোড়ের দেিণ ১২৭২ বর্গ ফিট জায়গায় ০৪ (চার) তলা ভবন নির্মাণ, (২) হাজী মোঃ মনছুর আলী, পিতাঃ মৃত. ভোলা মামুদ সরকার, নিয়ামতপুর মুন্সিপাড়া, ৮৭৫ বর্গ ফিট ০৩ (তিন) তলা আর.সি.সি ভবন নির্মাণ, মহিলা কলেজের পশ্চিমে রাস্তার উত্তর পার্শ্বে, (৩) আসলাম পারভেজ, পিতাঃ আমির আনছারী, পুরাতন বাবুপাড়া, ৬৪০ বর্গ ফিট ০২ (দুই) তলা আর.সি.সি ভবন।ও (৪) হরিলাল সাহা, পিতাঃ জগদীয়া সাহা, নিয়ামতপুর, ৮০ বর্গ ফিট ০২ (দুই) তলা আর.সি.সি ভবন।

সরেজমিনে জানা যায়, সৈয়দপুর শহরে বর্তমানে শত-শত অবৈধভাবে রেলওয়ের জায়গায় বিল্ডিং নির্মাণের কাজ চলছে। রেলওয়ের আইনজীবি রাফিউল ইসলাম খাজা জানান, এ ব্যাপারে স্থানীয় পৌরসভার বিরুদ্ধে মহামান্য আদালত হতে নকশা না দেওয়ার জন্যেও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তারপরেও যত্রতত্র রাস্তার উপরে পৌরসভার নিয়ম কোড ভঙ্গ করে বিপুল উৎসাহ-উদ্দিপনার মধ্যে মহা-ধুমধামের সাথে দখল বাণিজ্য চলছে। ফলে পৌরসভার রাস্তাগুলো চিকন হয়ে যাচ্ছে ও প্রথম শ্রেণীর পৌরসভাটি যানজটের নগরীতে পরিণত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় কিছু ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন যে, উক্ত কানুনগো কর্মকর্তা অভিযুক্ত ব্যক্তিদের কাছ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ পায়নি বলে তাদের বিরুদ্ধে এজাহার দায়ের করেছেন আর যারা (শত-শত ব্যক্তি) উৎকোচ দিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেননি।

এ ব্যাপারে মোবাইল ফোনে কানুনগো মনোয়ারুল ইসলামকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন যে, অভিযোগটি মিথ্যা ভিত্তিহীন, তিনি নতুন এসেছেন এবং সরেজমিনে তদন্ত করে সকলের বিরুদ্ধে আইন-সম্মত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

এনিয়ে স্থানীয় রেলওয়ে কারখানার তত্বাবধায়ক (ডি.এস) নূর আহমেদ হোসেনের সাথে এ প্রতিবেদককের মোবাইল ফোনে কথা হলে ডি.এস নূর আহমেদ দু:খ প্রকাশ করে জানান, রেলওয়ের জমি অবৈধভাবে দখল করে নকশা ছাড়াই বহুতল ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে-এ দৃশ্য অসহায়ের মত দেখা ছাড়া আমার করনীয় কিছু নেই। তিনি আফসোস ভরা কন্ঠে জানান, এখন এসব জমি দেখাশোনার ভার এস্টেট বিভাগ, পাকশীর। আমি মাননীয় রেলওয়ে মন্ত্রী ও উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি জানিয়েছি। আমার আর কি করার আছে ? এসময় তাঁকে উকিল নোটিশ ও মামলার বিষয় জানালে তিনি বলেন, নিজ স্বার্থ হাসিলের জন্য এরকম করা হলেও বাস্তবে রেলওয়ের জমি রা কিংবা উদ্ধারে কেউ বাস্তব পদপে নিচ্ছেন না।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email