বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে শরতেও শিউলি ফুলের আকাল

মো. জাকির হোসেন, রংপুর ব্যুরো চীফ : ঋতুর পরিক্রমায় ভাদ্র- আশ্বিণ শরৎকাল। শরতের সঙ্গে শিউলি ফুলের একটা নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। শিউলি ফুল ছাড়া শরৎকাল যেন কল্পনা করা যায় না। শরৎকাল যেমন বাঙালির জন্য গুরুত্বপূর্ণ তেমনি ফুল আর ওষুধি গুণে শিউলি গাছও গুরুত্বপূর্ণ। প্রকৃতির বিবর্তনে শরতের আগমন খুব একটা ঘটা করে জানান দেয়না। এদিকে নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর থেকে শিউলি ফুলের গাছও হারিয়ে যাচ্ছে দিন দিন। ছিপছিপে বৃষ্টির পরে আকাশে সাদা মেঘ ভাসবে: তার ফাঁকে জ্যোসণা ভরা চাঁদ উঁকি দিবে তবেই তো শরৎকাল মনে হবে।

শিউলি ফুলের গন্ধে পরিবেশ মাতিয়ে তুলবে। ডোবা- নালায় শাপল ফুটবে গাছে তাল পাকবে, মাঠে ও নদীর ধারে কাঁশফুলে ভরে যাবে: তবেই তো শরৎকাল বোঝা যাবে। আগের মত ডোবা- নালায় শাপলা ফোঁটে না। ডোবা- নালা পরিস্কার করে সেখানে মানুষ মাছ চাষ করছে। তালগাছকে লাভজনক মনে না করায় কেউ তালগাছের চারা রোপন করেন না। বরং তাল গাছ কেটে ফেলেন। এরপরও কিছু তাল গাছ থাকলে আগেভাগেই তালশাঁসের জন্য ফলকর হিসেবে গাছ বিক্রি করে দেয়া হয়।

এদিকে খড় কেটে আবাদি জমি করায় এখন আর খুব বেশি কাঁশফুল দেখা যায়না। অভাবী পরিবারে ছোট্ট ছোট্ট ছেলে-মেয়েরা অতিকষ্টে শিউলি ফুল সংগ্রহ করে মালা তৈরি করে বাজারে বিক্রি করে চলেছেন। তারা জানায়, আগের মত আর শিউলি ফুল মেলে না, তাছাড়া মালা কেনার মানুষও কমে গেছে। প্রবীন লোকেরা জানান, এক সময় প্রায় বাড়িতে শিউলি ফুলের গাছ ছিল। শিউলি ফুল ফুটলে চারিদিকে সুগন্ধে ভরে যেত। শরৎকালের কথা মনে করিয়ে দিত। তখনকার দিনে এত ডাক্তার ছিল না। সর্দি- কাশি হলে মায়েরা শিউলি ফুলের পাতা বেটে রস খাইয়ে দিত। এতেই সর্দি- কাশি সেরে যেত। এখন অনেক ডাক্তার- কবিরাজ হয়েছে। তাই আর শিউলি গাছ প্রয়োজন পড়ে না। কিমত্ম এ গাছের ওষুধি গুণ রয়েছে।

 

 

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email