শনিবার ১৩ অগাস্ট ২০২২ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুরে ৮২টি পুজামন্ডবে দুর্গোৎসবঃ ঝুঁকিপূর্ণ ২১টি

মোঃ জাকির হোসেন রংপুর ব্যুরো চীফ; প্রতিমা তৈরির পর এখন শেষ মুহূর্তে চলছে রং তুলির আঁচর ও সাজসজ্জার কাজ। নীলফামারীর সৈয়দপুরে এবছর ৮২টি পুজা মন্ডবে শারদীয় দুর্গোৎসব পালন করা হচ্ছে। যা গেল বছরের তুলনায় ৫টি কম। এসব দুর্গোৎসবের মধ্যে পৌর এলকায় ১৭টি এবং অবশিষ্টগুলো উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে অবস্থিত বলে জানা গেছে। এর মধ্যে ২১টি পুজামন্ডব অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহৃিত করেছে প্রশাসন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার অফিস সূত্রে জানা যায়, এবছর সৈয়দপুর পৌর এলাকায় ১৭টি এবং উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নে ৫টি, কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নে ১০টি, বাঙালিপুর ইউনিয়নে ১১টি, বোতলাগাড়ি ইউনিয়নে ২৬টি ও খাতামধুর ইউনিয়নে ১৩টি পূজা মন্ডবে দুর্গোৎসব পালন করা হচ্ছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) শফিকুল ইসলাম জানান, পৌরসভার মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে তালিকা সংগ্রহ করা হয়েছে। সরকারি বরাদ্দ পাওয়া গেলে এসব মন্ডবের অনুকুলে বরাদ্দ দেয়া হবে বলে জানান তিনি। ইতোমধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ পুজা মন্ডবের তালিকা করা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে পৌর এলাকার ওয়াপদা হিন্দুপাড়া, রংপুর রোডে সিটি ট্রেডার্স, তুলশিরাম রোডে হিন্দু কল্যাণ সমিতির মন্ডব ও গ্রাম এলাকার কামারপুকুর ইউনিয়নের নিজবাড়ি জেলেপাড়া, নিজবাড়ি হিন্দুপাড়া, কাশিরাম ইউনিয়নে হাজারীহাট, চওড়া নগরপাড়া, খড়খড়িয়া নদীর পাড়, বাঙ্গালিপুর ইউনিয়নে চৌমহনী বাজার, শিবের হাট দেবোত্তর, বোতলাগাড়ি ইইনয়নে চান্দিয়ার ডাংগা, বড়দহ মাঝাপাড়া, বোতলাগাড়ি কুয়া, উত্তর সোনাখুলি ডাক্তারপাড়া, উত্তর সোনাখুলি বিমলপাড়া, দক্ষিণ সোনাখুলিখোর্দ্দ হিন্দুপাড়া, খাতামধুপুর ইউনিয়নে হামুরহাট মন্দির, নয়ারহাট রাখাপাড়া, পানিশালা দর্গা মন্দির, মালিপাড়া গগণপাড়া পূজা মন্ডবকে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহৃিত করা হয়েছে।
বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদ সৈয়দপুর শাখার সভাপতি রাজকুমার পোদ্দার ও সাধারণ সম্পাদক জানান, শহর ও গ্রাম প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ করে রং ও সাজসজ্জার কাজ পুরোদমে চলছে। এই সময়টায় অভাবে কারণে এবং হাতে নগদ অর্থকড়ি না থাকায় ইচ্ছে থাকা সত্বেও পুজা মন্ডবের সংখ্যা কিছুটা কমেছে। এবারে মা দুর্গা ঘোড়ায় চড়ে আসবেন এবং যাবেন দোলায় চড়ে। পুজা, অর্চনার মাধ্যমে দেবী দুর্গাকে বসানো হবে এবং প্রতিদিনই পুজাপাঠ, দর্শন ও প্রাসাদ বিতরণ কর্মসূচি রয়েছে বলে জানান তারা।
সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) আব্দুল আউয়াল জানান, প্রতিটি পুজা মন্ডবে গ্রাম পুলিশ ও আনসারের পাশাপাশি পুলিশ পাহারায় থাকবেন। এছাড়া অধিক ঝুঁকিপূর্ণ পুজামন্ডবে অতিরিক্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email