রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুর পৌর নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রচারণায় মাঠে

মো. জাকির হোসেন, রংপুর ব্যুরো চীফ : চলতি বছরের ডিসেম্বরে পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভার সম্ভাব্য মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রচারণায় মাঠে নেমেছেন। এলাকাবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ডিজিটাল ব্যানার টাঙ্গানো হয়েছে, পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রচারণায় নেমেছেন । বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছেন তারা এবং এলাকায় ভালো সম্পর্ক বজায় রাখছেন। দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হবে এমন ঘোষণার পর দলীয় মনোনয়ন পেতে আটঘাট বেঁধে মাঠে নেমেছেন প্রার্থীরা।

জানা যায়, ২০১১ সালের ১২ জানুয়ারি সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পৌরসভার প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয় ওই বছরের ২য় সপ্তাহে। সে হিসেবে এই অক্টোবরে মেয়াদ শেষ হচ্ছে পৌর পরিষদের। স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিরপেক্ষ হলেও এবারে দলীয় ব্যানারে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তাই দলীয় সমর্থন পেতে নিজ দলের নেতা-কর্মীদের কাছে দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। প্রার্থী মনোনয়ন নিয়েও চলছে পক্ষে-বিপক্ষে নানা আলোচনা।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান মেয়র অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন সরকার পুনরায় মেয়র পদে নির্বাচন করবেন। তবে মামলার কারণে কোন সমস্যা হলে সেক্ষেত্রে মেয়র পদে আব্দুল গফুর সরকার বা অন্য কেউ বিএনপির সমর্থনে প্রার্থী হতে পারেন।

এছাড়া আওয়ামী লীগের ব্যানারে সাবেক পৌর মেয়র আখতার হোসেন বাদল নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে জানা গেছে। নির্বাচন করতে পারেন সাবেক প্যানেল মেয়র হিটলার চৌধুরী ভলু, দিলনেওয়াজ খান, অধ্যাপক সাখাওয়াৎ হোসেন খোকন, পিকে ছাইদুল। আর জাতীয় পার্টি থেকে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সিদ্দিকুল আলম ও বিশিষ্ট ঠিকাদার জয়নাল আবেদীন মেয়র পদে প্রার্থী হতে পারেন বলে আভাষ পাওয়া গেছে। জামায়াত নির্বাচনে অংশ নিতে না পারলে এই দলের প্রার্থী হাফেজ আব্দুল মুনতাকিম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এক্ষেত্রে বিএনপি- জামায়াতের ভোট ভাগাভাগির কারণে সুবিধাজনক অবস্থানে যাবে আওয়ামী লীগের প্রার্থী। পৌরসভার ১৫টি ওয়ার্ডে এবার কাউন্সিলর ও নারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের ছড়াছড়ি। এলাকায় শোভা পাচ্ছে তাদের ডিজিটাল ব্যানার আর দোয়া চেয়ে লাগানো পোষ্টার।

ভোটার তালিকার হালনাগাদ অনুযায়ী সৈয়দপুর পৌর এলাকায় মোট ভোটার সংখ্যা ৮০ হাজার ৩৪৩ জন। এরমধ্যে ৪০ হাজার ৮৬৭ জন পুরম্নষ ও ৩৯ হাজার ৪৭৬ জন নারী ভোটার রয়েছে। ভোটারদের মধ্যে উর্দুভাষী ভোটারের সংখ্যা প্রায় ৩৮ হাজার। স্বাধীনতার পর যতগুলো নির্বাচন হয়েছে সবকটি নির্বাচনই উর্দুভাষী ভোটাররা প্রার্থীর জয়-পরাজয়ে বড় ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করেছে। ভোট ব্যাংক হিসেবে পরিচিত এসব মানুষকে পক্ষে নেয়ার জন্য কাজ করেন সবাই

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email