সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুর রেলওয়ের অবৈধ স্থাপনার উচ্ছেদ অভিযান নিয়ে নানা গুঞ্জন

মো. জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি

দুই দিন ব্যাপি সৈয়দপুর রেলওয়ের জায়গায় অবৈধ স্থাপনার উচ্ছেদ অভিযান গত ১৮ মার্চ বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত এ উচ্ছেদ অভিযান চলে।

 

ডিভিশনাল ষ্টেট অফিসার (ভূমি পাকশি) মোস্তাক আহমেদ এর নেতৃত্বে দ্বিতীয় দিনে সৈয়দপুর রেল ষ্টেশন ও রেল-লাইনের উভয় প্রান্তের ক্যান্টনমেন্ট রোডের উভয় পাশের প্রায় ৫০টি দোকান-পাট ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে।

 

এসময় নীলফামারী জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট নূরে আলম, এ.এস.পি সার্কেল সাজেদুর রহমান, সৈয়দপুর থানার ওসি ইসমাঈল হোসেন এবং রেলওয়ের সহঃ প্রকৌশলী আনিছুর রহমান, সৈয়দপুর জেলা জিআরপি’র এ.এস.পি আহসান হাবিব, জিআরপি থানার ওসি সাজু উপস্থিত ছিলেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেলওয়ের পুলিশ, আনছার, নিরাপত্তা সদস্য ছাড়াও সৈয়দপুর থানার পুলিশ প্রশাসন উপস্থিত ছিলেন।

 

এদিকে প্রশ্ন উঠেছে যে, সম্প্রতি শহরের রেলবাজারে কাপড়পট্টী ও মনিহারী পট্টীতে ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে রহস্যজনক অগ্নিকান্ডের ঘটনার পর পুরো শহর জুড়ে শুরু হয়েছে মাসব্যাপী রেলওয়ের জমিতে অবৈধভাবে নকশা ছাড়া বহুতল ভবন নির্মাণের উৎসব। এসব বহুতল ভবন নির্মাণের খবর স্থানীয় ও জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশ হওয়ায় ও স্থানীয় রেলওয়ে কারখানার ডি.এস (বিভাগীয় তত্বাবধায়ক) নূর আহমেদ হোসেন রেলওয়ের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানালে গত শুক্রবার ও মঙ্গলবার এসব অবৈধ স্থাপনা ১৮ ও ১৯মার্চ উচ্ছেদ করা হবে বলে মাইকিং করা হয়। অপরদিকে মঙ্গলবার সৈয়দপুর পৌরসভা কর্তৃপক্ষ শহরে মাইকিং করে যে, এসব সম্পত্তি পৌরসভার কাজেই কেউ উচ্ছেদ করতে পারবে না। আর পৌর কর্তৃপক্ষ আপনাদের পাশে থাকবে।

 

এর আগে রিপোর্ট করার সময় সাংবাদিকরা রেলওয়ের স্থানীয় আইনজীবি এ্যাড. রাফিউল ইসলাম খাজা’র সাথে আলাপ করলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, রেলওয়ে ও পৌরসভার জমি নিয়ে মামলায় মাননীয় আদালত রেলওয়ের পক্ষ রায় দিয়েছেন। উচ্চতর আদালতেও সেই রায় বহাল রয়েছে। তাই, পৌরসভা নকশা দিতে পারবে না। দখলকারীরা বহুতল ভবন নির্মাণ করতে পারবেন না। এজন্যে অগ্নিকান্ডের ঘটনার পর যারা বহুতল ভবন নির্মাণ করছেন তাদেরকে উকিল নোটিশ দেয়া হয়েছে এবং মামলা করা হবে।

 

রেলওয়ে সুত্র জানায়, সৈয়দপুর শহরটিতে ২৫.৭৫ একর বাণিজ্যিক এলাকা রয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ের। যা’ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে সৈয়দপুর রেলওয়ে এবং পৌরসভার মধ্যে মালিকানার দ্বন্দ্ব নিয়ে উচ্চ আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। এর মধ্যে সুযোগ-সন্ধানিরা শহর ছাড়াও ষ্টেশন এলাকা, রেললাইনের দুইধার, শহরের বিভিন্ন এলাকার রেলওয়ের জমি বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় দখলের মাধ্যমে বাড়ি-ঘর, দোকান-পাট গড়ে তুলেছেন। এতে দিন-দিন রেলের এ শহরটির অবৈধ দখল দারিত্বের কারণে অবস্থান ছোট হয়ে আসছিল। আর অস্তিত্ব পড়েছিল হুমকিতে।

 

তাই এটি রক্ষায় গত ১৮ এবং আজ ১৯ মার্চ এসকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের কর্মসুচি হাতে নেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত বুধবার (১৮ মার্চ) থেকে বৃহস্পতিবার রেল কর্মকর্তারা উপস্থিত থেকে সৈয়দপুর রেল ষ্টেশন এব্ং রেল লাইনের উভয় পার্শ্বের টিন শেড, ক্যান্টনম্যান্ট রোডের উভয় পাশের প্রায় বড়-ছোট প্রায় আড়াই শতাধিক দোকান-পাট স্কেবেটর দিয়ে ভেঙ্গে ফেলেন।

 

ডিভিশনাল ষ্টেট অফিসার (পাকশি) মোস্তাক আহমেদ বলেন সৈয়দপুর নয় দেশের অনেক স্থানে রেলওয়ের জায়গা অবৈধভাবে বেদখল হয়েছে। এগুলো দখল মুক্ত করতে সব রেলওয়ের এলাকায় ধারাবাহিক ভাবে অভিযান চালিয়ে উচ্ছেদের কাজ চলছে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, রেলওয়ে এখনও কাউকে এ্যালোট দেয়না তাই বৈধ-অবৈধ সব স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলা হবে।

 

এদিকে সৈয়দপুর শহরে কোন অনুমোদন ছাড়া তিনশত দোকান নির্মাণের মাধ্যমে বহুতল মার্কিট নির্মাণ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, রেলওয়ে কাউকে কোন মার্কেট নির্মাণের অনুমতি দেয়া হয়নি তাই নির্মাণাধীন এবং নির্মাণ হয়েছে এমন এসব বহুতল মার্কেটও ভেঙ্গে ফেলা হবে। মধ্য ও নিম্ন শ্রেণীর ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, শহরের বড় বড় ব্যবসায়ীরা বহুতল ভবন নির্মান করেছে। সেগুলো গুড়িয়ে না দিয়ে আমাদের ছোট ছোট দোকান গুলো গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। বর্তমানে আমরা অনাহারে অর্ধারে জীবন যাপন করছি। তারা আরও অভিযোগ করেন রেল কর্তৃপক্ষ ওইসব ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাদেরকে ছাড় দিয়েছে। এ ব্যাপারে রেল কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসা করলে তারা সাংবাদিকদের জানান, বড় বড় ব্যবসায়ীরা মাননীয় সংসদ সদস্যের সাথে কথা হয়েছে। ওই সব ব্যবসায়ীদের ব্যাপারটি তিনি দেখভাল করছেন। তাই তাদের বহুতল ভবনগুলো ভেঙ্গে ফেলা হয়নি।

তাই, এলাকার সচেতন মহলের মধ্যে প্রশ্ন জেগেছে ? যে, রেলষ্টেশন ও রেললাইনের ধারের স্থাপনা (যেগুলোতো গরীব মানুষজন পান-সিগারেট, চায়ের দোকান, সেলুন, পুরাতন কাপড়ের দোকান করতেন) উচ্ছেদ করা হলো কিন্তু, শহরের রেলবাজারের এসব বহুতল ভবন উচ্ছেদ করা হবে তো ? না, আই-ওয়াশ। (ছবি আছে)

Spread the love