বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সৈয়দপুর শহরে পাল্লায় মেপে কাপড় বিক্রি খুচরা ক্রেতারাও কিনতে পেরে খুশি

মো. জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি : মিটার বা গজে নয় রীতিমত ডিজিটাল পাল্লা ও দাঁড়িপাল্লায় বাটখারা দিয়ে ওজনে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের কাপড়৷ সব ধরনের ক্রেতারা কাছে এসব দোকান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে৷ নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরে এরকম কাপড়ের মোকাম ও দোকান মিলে শতাধিক প্রতি স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে৷ ক্রেতারা সাশ্রয়ী মূল্যে এসব দোকান থেকে কাপড় কিনতে পেরে বেজায় খুশি৷ ফলে সকালসন্ধ্যা দোকানগুলোতে ভিড় লেগেই থাকে৷ দূরদূরান্তের পাইকাররাও এসব মোকাম থেকে কাপড় কিনে নিয়ে গিয়ে লাভবান হচ্ছেন৷ ঢাকার বিভিন্ন গার্মেন্টসের পোশাক তৈরির পর উদ্বৃত্ত বা বাতিলকৃত এসব কাপড় সৈয়দপুরের ব্যবসায়ীরা লট বা টন হিসেবে কিনে আনেন৷ তারপর কাপড় বাছাই করা হয়৷ এসব কাপড়ের পাশাপাশি নতুন সব ধরনের কাপড় নিয়ে গড়ে তুলেছেন পাইকারি মোকাম৷ খুচরা ক্রেতাসহ বিভিন্ন অঞ্চলের ব্যবসায়ীরা ওজনে এসব কিনে থাকেন৷ সৈয়দপুর থেকে পাইকারী দরে কিনে নিয়ে তাদের দোকানে বিক্রি করে৷

প্রথমদিকে ওজনে কাপড় কিনতে আগ্রহী না হলেও বর্তমানে ক্রেতারা ওজনে কাপড় কিনতে বেশ আগ্রহী হয়ে উঠেছে৷ ৮/১০ বছর আগে ওজনে কাপড় বিক্রি শুরু হলে প্রথম প্রথম মানুষের মাঝে কৌতুহল সৃষ্টি হয়৷ গজের কাপড় ওজনে বিক্রি দেখে অনেক নারীপুরুষ অবাক হন৷ আস্তে আস্তে ওজনে কাপড় বিক্রিটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে৷ বর্তমান বিষয়টি বুঝতে পেরে ছোট বড় সব বয়সের মানুষের পোশাক তৈরিসহ বাড়িঘরের নানা কাজে ব্যবহারের জিনিস তৈরির জন্য কাপড় কিনতে অনেকেই ভিড় করছেন এসব দোকানে৷ এখানে নানা ডিজাইন ও রঙের প্রিন্ট, স্টাইপ, চেক এক রঙ্গা ভয়েল, টেট্রন, সুতি, জর্জেট, লিনেনসহ সব ধরনের কাপড় পাওয়া যায়৷ এসব কাপড়ের বেশির ভাগই বিদেশী ও উন্নতমানের৷ এসব কাপড় দিয়ে বিছানার চাদর, শাট, থ্রীপিস, পাঞ্জাবী, পায়জামা, বালিশ ও কুশনের কভার দরজাজানালার পর্দা, টেবিল ক্লত তৈরিসহ বিভিন্ন কাজে ব্যবহার হচ্ছে৷ এর মধ্যে একরঙ্গা ও সাদা কাপড়গুলো কিনে তাতে ব্লক, বাটিসহ হাতের কাজ করে তা দিয়ে নানা ধরনের পোশাক তৈরি করা হচ্ছে৷ ক্রেতারা ডিজিটাল স্কেলে বেশি স্বচ্ছন্দবোধ করছেন৷ কারণ এতে দামে ঠকলে ওজনে ঠকবার ভয় নেই৷ প্রতিকেজিই কাপড় রকমভেদে ৩০ টাকা থেকে ৬শ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে৷ টুকরো বা ১ গজ মাপের অথবা থান কাপড় নিয়ে ওজন করে টাকা দিতে হয় দোকানদারকে৷ উপজেলার বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের গৃহবধূ খাদিজা খাতুন পৌর এলাকার তরুণী বিলকিস জানান, ওজনে কাপড় কিনলে সস্তায় পাওয়া যায়৷ পাতলা কাপড় ওজনে কিনলে অনেকটা সাশ্রয়ী মূল্য পাওয়া যায়৷ দোকান থেকে এসব কিনে বাড়িতেই ছেলেমেয়েদের পোশাক বালিশের কভার, বিছানার চাদরসহ নানা জিনিস তৈরি করি৷ এসব দোকানে নারী ক্রেতাদের সংখ্যাই বেশি৷ কারণ তারা বিভিন্ন মাপের কাপড় কিনে নানা বয়সের মানুষের পোশাক তৈরি ও বিভিন্ন কাজে লাগাতে পারে৷ পুরুষ ক্রেতারাও পছন্দমতো কাপড় কিনে টেইলার্সের দোকান থেকে শার্ট, ফতুয়া, পাঞ্জাবীপায়জামা ইত্যাদি তৈরি করিয়ে নিচ্ছেন৷ অনেক দর্জি বা অল্প পুঁজির লোকেরা বিভিন্ন মাপ ও রঙের এসব কাপড় কিনে নানা রকম ডিজাইন করে ছোট বড় নানা সাইজের পোশাক তৈরি করে খুচরা ও পাইকারী দরে বাজারে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছেন৷ রেলওয়ে বাজার সহ পাড়া মহল্লায় গড়ে উঠেছে এসব তৈরির ও প্রতিষ্ঠান রেলওয়ে বাজার ওজনে বিক্রি করা গুলজার ক্লথ স্টোরের মালিক আলআমিন মালিকসহ অনেক কাপড় ব্যবসায়ী জানান, এই ব্যবসা করে আমরা মোটামুটি ভাল আচি৷ ঢাকা থেকে টনে কিনে কেজিতে বিক্রি করছি৷ প্রতিনিয়ত ক্রেতাদের সংখ্যা বাড়ছে৷ বিশেষ করে নারী ক্রেতার সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে৷ গরীব থেকে উচ্চবিত্ত সবশ্রেণির মানুষের এসব কাপড়ের ক্রেতা বলে জানান তারা৷

 

Spread the love