সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোনালী ব্যাংক আটোয়ারী শাখার বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ!

মো. এনামুল হক,পঞ্চগড় প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ের আটোয়ারী সোনালী ব্যাংকটির ভবিষ্যত নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে।এ ব্যাংকটিতে বিভিন্ন সময়ে নানা খাতে লোন , ডিডিপে-অর্ডার প্রদানে বিসত্মর অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। এর ফলশ্রতিতে ইতিপূর্বে ২/৩ ম্যানেজারের শাসিত্মমূলক বদলী সহ সাময়িক বরখাসত্ম ও করা হয় বলে জানা যায়। অতি সম্প্রতি ওই শাখায় নিয়ম পরিপন্থি ভাবে সার্ভিস লোন প্রদানে অনিয়মের অভিযোগে মাধব চন্দ্র রায়কে সোনালী ঠাকুরগাঁও (ডিজিএম ) অফিসে বদলী করা হয়। অভিযোগে জানা যায়, মাধব চন্দ্র রায় গত ১৫/৫/১৪ ইং তারিখে সোনালী ব্যাংক আটোয়ারী শাখায় যোগদান করেন। এরপর ওই ম্যানেজার নিজের খেয়াল খুশিমত একের পর এক লোন প্রদান করেন।অভিযোগ রয়েছে, একজন শাখা ম্যানেজার সর্বোচ্চ ৪৯ হাজার টাকা পর্যমত্ম লোন দিতে পারবেন। কিমত্মু তিনি সেই নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে এক থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যমত্ম লোন প্রদান করেছেন। যার পরিমান প্রায় এক কোটি টাকা। বিষয়টি ফাসঁ হয়ে পড়লে কর্তৃপক্ষ তড়িৎগতিতে তাকে গত ০৩/১১/১৪ ইং ঠাকুরগাঁও প্যানসিপাল (ডিজিএিম) অফিসে বদলী করেন। জানা যায়, মাধব চন্দ্র রায় ২৬/০২/০২ ইং সোনালী ব্যাংকে কর্মরত ছিলেন ।সোনালী একটি ব্যাংকের একটি সূত্র জানায়, ম্যানেজার হিসেবে একজন ব্যক্তি একই ব্যাংকে দু’বার (ম্যানেজারের ) দায়িত্ব পালন করতে পারেন না। এব্যাপারেসোনালী ব্যাংক আটোয়ারী শাখার বর্তমান ম্যানেজার মো. আব্দুল মালেক এর সাথে কথা বললে তিনি পূর্বের ম্যানেজারের বিষয়ে কথা ও তথ্য দিতে অরপাগতা প্রকাশ করে বলেন, আপনারা ওসব তথ্য নিজেরা সংগ্রহ করেন ভাই। উলেস্নখ্য, ইতিপূর্বে সোনালী ব্যাংক আটোয়ারী শাখায় চাকুরী করাকালীন (ম্যানোজর পদে)মো. ওবায়দুর রহমান এবং মাধব চন্দ্র রায়ের আগে মো. ওয়াহেদ আলী অনুরুপ অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত হন।তবে ওবায়দুর রহমান এর বিরুদ্ধে বরখাস্ত প্রত্যাহার হলে তিনি বর্তমানে ঢাকায় কর্মরত রয়েছেন বলে জানা গেছে।

Spread the love