শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সোমবার লন্ডন যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

pm-bpআগামী ২১ জুলাই সোমবার ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন এবং ইউনিসেফের উদ্যেগে লন্ডনে আয়োজিত আন্তর্জাতিক সামিট সম্মেলনে যোগ দিতে ৩ দিনের সফরে লন্ডন যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২২ জুলাই মঙ্গলবার লন্ডনে অনুষ্ঠেয় মেয়েদের বিরুদ্ধে প্রথাগত সামাজিক অপরাধের প্রধান দুটি দিক ফিমেইল জেনিটাল মিউটিলেশন (এফজিএম) বা মেয়েদের খতনা এবং বাল্য ও জোরপূর্বক বিয়ে বা চাইল্ড আর্লি ফোর্সড ম্যারেজ (সিইএফএম) বিরোধী সামিটে যোগ দিবেন তিনি।
২১ জুলাই সোমবার সকাল ১০টায় বিমানের বিজি-০০৬ ফ্লাইটে ঢাকা ছাড়বেন প্রধানমন্ত্রী ও তার নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দল। স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় লন্ডন হিথরো বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে তার। প্রতিনিধি দলে থাকছেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচএম মাহমুদ আলী, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকিসহ অন্যান্য সরকারী কর্মকর্তা। সাংবাদিকদের একটি গ্রুপও আন্তর্জাতিক এই গুরুত্বপূর্ণ সামিটে প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হচ্ছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়নে বর্তমান সরকারের প্রচেষ্টা ব্রিটেনসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে সুস্পষ্ট বলেই এ সামিটে শেখ হাসিনার যোগদানকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা ও নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ যে অগ্রগতি অর্জন করেছে সামিটের লক্ষ্য বাস্তবায়নে তা অনুপ্রেরণা হতে পারে বলেই আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন।
৩ দিনের এ সফরের ২য় দিন মঙ্গলবার যেকোনো সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সাথে একান্ত বৈঠক করবেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে। দুই প্রধানমন্ত্রীর আলোচনায় ব্রিটেন-বাংলাদেশ পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় প্রাধান্য পাবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্ট পক্ষ। সামিট শেষে মঙ্গলবার বিকেলেই যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এক ইফতার মাহফিলেও যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফারুক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
প্রসঙ্গত এফজিএম ও সিইএফএম প্রতিরোধে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টা আরও জোরদার করার লক্ষ্য সামনে রেখে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এ সম্মেলন। প্রাক-সম্মেলন ঘোষণায় বলা হয়েছে, বৈষম্য ও সহিংসতামুক্ত পরিবেশে বসবাস করে নিজেদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশের অধিকার মেয়েদের রয়েছে। কিন্তু লাখ লাখ নারী ও অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়ে প্রতিদিন শিকার হচ্ছে এফজিএম ও সিইএফএম এর মত ক্ষতিকর প্রথার, যা ব্রিটেনে অবৈধ। ঘোষণায় আশাবাদ ব্যক্ত করে বলা হয়, পরিস্থিতি দ্রুতই বদলাচ্ছে, এটি অবশ্যই বিশ্ব সম্প্রদায়ের জন্যে একটি সুসংবাদ।
ব্রিটেন, আফ্রিকা, দক্ষিণ এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য এবং ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষের মধ্যে এখন এ ধরনের ক্ষতিকারক প্রথার বিরোদ্ধে সচেতনতা সৃষ্টি হচ্ছে। এই সচেতনতাকে সমর্থন ও সহযোগিতা দিতে এখন প্রয়োজন বিশ্ব সম্প্রদায়ের সম্মিলিত প্রয়াস। বর্তমান প্রজন্মের মধ্যে এফজিএম ও সিইএফএম এর মত ক্ষতিকর প্রথা অবসানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নারী, বালিকা, কমিউনিটি ও ধর্মীয় নেতাসহ সরকার, সিভিল সোসাইটি, আন্তর্জাতিক সংস্থা ও বেসরকারি খাতের অঙ্গিকার আদায়ে গার্ল সামিট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এফজিএম ও সিইএফএম প্রথা মোকাবেলায় যারা সফলতা দেখিয়েছেন, তাদের গল্পও গার্ল সামিটে উপস্থাপন করা হবে। সামিটে সেইসব নারী ও মেয়েদের কথা শোনা হবে, যারা এফজিএম ও সিইএফএম প্রথার মধ্যে বসবাস করেও সাহসের সাথে তা মোকাবেলা করেছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email