শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সৌদি আরবের সঙ্গে সামরিক আলোচনার কথা স্বীকার করল পাকিস্তান

সৌদি আরব ও চীনের সঙ্গে প্রতিরক্ষা সহযোগিতার বিষয়ে চলমান আলোচনার কথা স্বীকার করেছে পাকিস্তান। পাক সরকার জানিয়েছে, তারা সৌদি আরবের সঙ্গে প্রতিরক্ষা সহযোগিতার ক্ষেত্রে নতুন যুগের সূচনা করতে চায়। একইভাবে চীনের সঙ্গে সামরিক সহযোগিতা বাড়ানোরও পরিকল্পনা করা হয়েছে। সৌদি আরবের সঙ্গে সামরিক সহযোগিতা বাড়ানো বিষয়ে পাক পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র তাসনিম আলম গত বৃহস্পতিবার সাপ্তাহিক সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানান, সম্ভাব্য সামরিক সহযোগিতার বিষয়ে সৌদি যুবরাজ সালমান বিন আব্দুল আজিজের পাকিস্তান সফরের সময় আলোচনা হয়েছে। গতমাসে তিনি এ সফর করেন। তাসনিম আলম জানান, এখনো কোনো কিছু চূড়ান্ত হয়নি; যৌথভাবে কিছু অস্ত্র উৎপাদনের বিষয়ে আলোচনা চলছে। তবে, যৌথভাবে জেএফ-১৭ জঙ্গিবিমান তৈরির সম্ভাবনা নাকচ করেছেন পাকিস্তানের এ কর্মকর্তা। তিনি বলেছেন, পাকিস্তান শুধু এ বিমান সৌদি আরবের কাছে বিক্রি করতে আগ্রহী। তিনি আরো বলেছেন, পাকিস্তানের কাছ থেকে অস্ত্র নেয়ার পর সৌদি আরব যাতে অন্য কোনো দেশে বিশেষ করে সিরিয়ার বিদ্রোহীদের কাছে রপ্তানি না করতে পারে তার জন্য সার্টিফিকেটের  ব্যবস্থা করা হবে। সৌদি যুবরাজের পাকিস্তান সফরের সময় থেকে গণমাধ্যমে নানা গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। সে সময় এ খবরও বের হয় যে, পাকিস্তান থেকে বিমান ও ট্যাংক বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র কিনে সৌদি আরব সেগুলোকে সিরিয়ার বিদেশি মদদপুষ্ট বিদ্রোহীদের কাছে সরবরাহ করার পরিকল্পনা নিয়েছে। চীনের সঙ্গে সামরিক সহযোগিতার বিষয়ে তাসনিম আলম বলেন, এটা আঞ্চলিক পর্যায় থেকে দেখতে হবে; পাকিস্তান কোনো অস্ত্র প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হতে চায় না।