রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্কয়ারের সেফোটিল এবং সেফট্রোল ইনজেকশন রুগীকে না দিতে দিনাজপুরে চিকিৎকদের পরামর্শ

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ স্কয়ারের সেফোটিল এবং সেফট্রোল নামক দুটি জীবানুনাশক ইনজেকশন দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রুগীদের না দেয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর আগে ইনজেকশনের কার্যকারিতো নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বাংলাদেশ কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতি দিনাজপুর শাখা অভিযোগ করে।

বাংলাদেশ কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতি দিনাজপুর শাখার সভাপতি কামাল হোসেন পিয়াল ও সাধারন সম্পাদক হাফিজুর রহমান হাফিজ অভিযোগ করেছেন, স্কয়ার ফার্মাসিটিক্যাল লিমিটেড’র সেফোটিল (ব্যাচ নং ৫০৬০০১) এবং সেফট্রোল (ব্যাচ নং ৫০৮০০২) জীবানুনাশক ইনজেকশন প্রস্তত করার সাথে সাথে সাদা পাউডার লাল হয়ে যাচ্ছে। ফলে এ’দুটি ইনজেকশনে রুগীর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার আশংকার কথা জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির পক্ষ থেকে তিন মাস আগে স্কয়ারের রিজিওনাল সেলস অফিসকে জানালেও কোন কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি। ফলে বাধ্য হয়ে ওষুধ বিক্রেতারা দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালককে বিষয়টি জানিয়েছেন।

স্কয়ারের রিজিওনাল সেলস অফিসার রফিকুল ইসলাম জানান, তিনি স্কয়ারের সংশ্লিষ্ট বিভাগকে অবহিত করেছেন কিন্তু সেখান থেকে পরবর্তী কোন আদেশ না পাওয়ায় তার করার কিছু নেই। তবে তিনি ওষুধ ব্যবসায়ীদের ওষুধ সংরক্ষনের ত্রুটির প্রতি ইঙ্গিতও দেন।

এবিষয়ে দিমেক হাসপাতালের পরিচালক জানিয়েছেন, ওই দুটি ইনজেকশন যেন রুগীদের প্রেসক্রিপশন না করা হয় সে বিষয়ে চিকিৎকদের পরামর্শ এবং স্কয়ারের রিজিওনাল সেলস অফিসকে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য জানানো হয়েছে।

এদিকে ওষুধ বিক্রেতারা বেকায়দায় রয়েছেন। কারণ তারা বলছেন, প্রেসক্রিপশন করার পর প্রতিদিন ওই ওষুধ দুটি ৩০ থেকে ৩৫টি বিক্রি হয়। বিক্রি করা ওষুধ দোকান থেকে নিয়ে যাওয়ার পর গ্রাহকরা কোন অসুবিধার সম্মুখিন হলে দোকানদাররাই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড স্থানীয় রিজিওনাল সেলস অফিসারকে মৌখিকভাবে ৩ মাস ধরে অভিযোগ করে আসার পরেও তিনি এব্যাপারে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন না।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email