বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্বাধীনতার ৪৩ বছরেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পায়নি কৃষক শাহাদত

sadot-photoদিনাজপুর প্রতিনিধি: স্বাধীনতার ৪৩ বছরেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পায়নি শাহাদত হোসেন। এর কারনও তিনি জানেন না। দেশের জন্য যুদ্ধ করে জীবনের ক্লান্তি লগনে একটি স্বীকৃতির স্বাদ নিতে চান তিনি। বর্তমানে তিনি একজন কৃষক।

দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার পূর্ব রসুলপুর গ্রামের মধ্যপাড়ার মৃত আঃ গনির পুত্র মোঃ শাহাদত হোসেন।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ৭নং সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য কেন্দ্রীয় ভারত সরকারের পরিচালিত পতিরাম মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পের প্রশাসক ক্যাপ্টেন নরেন্দ্র সিং শিরোহীর দায়িত্বে গেরিলা ট্রেনিং নেয় মোঃ শাহাদত হোসেন। টি.ও মোঃ আব্দুল বারী (তৎকালীন জেলা আনসার এ্যাডজুটেন্ড), সুবেদার মেজর (অবঃ) মোঃ দবীরউদ্দিন আহম্মেদ, সিএইচএম (এইচ কিউ) তৎকালীন বিমান বাহিনীর মি. বেলাল এবং সিএইচএম(ব্রেভো) তৎকালীন সামরিক বাহিনীর মি. আবু তাহের ও বিভিন্ন সৈনিকের সহযোগিতায় যুদ্ধ যাত্রায় যায় এসএম সিরাজুল ইসলাম এইচ কিউ এবং ব্রেভো কোম্পানীর অধিনায়ক এর নেতৃত্বে। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন শেষ মূহুর্তে ১৯৭১ সালের ৬ডিসেম্বর ক্যাম্প অধিনায়ক এসএম সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে মোঃ শাহাদত হোসেনসহ ৪০জন মুক্তিযোদ্ধা ফুলবাড়ী থানা চত্তরে স্বাধীন বাংলার বিজয়ের পতাকা উত্তোলন করে।

ভারতের পতিরামে গেরিলা ট্রেনিং নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহনকারী মোঃ শাহাদত হোসেনকে ওই এলাকার স্থানীয় এমপি ও মন্ত্রী এড. মোসত্মাফিজুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা মোঃ খান বাহাদুর, মোঃ ওসমান গনি, মোঃ আঃ ছাত্তার, মোঃ লুৎফর রহমানসহ পার্বতীপুর উপজেলা ডেপুটি কমান্ডার মোঃ ছিদ্দিক হোসেন তার ব্যাপারে প্রত্যায়ন পত্র দিয়েছেন। মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় তার নাম অমত্মর্ভুক্তির অনুরোধও জানিয়েছেন তারা।

মোঃ শাহাদত হোসেন জানান, গত ২০০৯ সালে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল ঢাকার বরাবরে দরখাসত্ম করলে খসরা তালিকায় ৩৪নম্বর  এ আমার নামটি আসে গত ১৯/৪/১৩ইং পার্বতীপুর থানা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমিটির মাধ্যমে যাচাই-বাছাই কওে মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি দিয়ে কগজপত্রাদি ঢাকা মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েচে যার ফরম নং- (৩৪), তারিখ-৯/৭/২০১৩ইং। কিন্তু আজ অবদি এর কোন সুফল পায়নি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email