সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ

দিনাজপুর প্রতিনিধি :

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ছাত্রলীগ হাবিপ্রবি শাখার সাধারণ সম্পাদক অরুন কান্তি রায় সিটনসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ ৮ রাউন্ড টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে।

বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা শহীদ তাজউদ্দীন হল, জিয়া হল, শেখ রাসেল হলসহ কয়েকটি হল ভাংচুর করেছে।

এসময় ক্যাম্পাসে ২টি মোটরসাইকেল জ্বালিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা। ক্যাম্পাসে বর্তমানে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

আহতদের মধ্যে ৫ জনকে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তিকৃতরা হলেন-ছাত্রলীগ হাবিপ্রবি শাখার সাধারণ সম্পাদক অরুন কান্তি রায় সিটন, হাবিব, সিফাত, অন্তু, জাকারিয়া। অন্যান্যদেরকে প্রাথমীক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

গতকাল রবিবার দুপুর ১২ টা থেকে বিকাল ৩ টা পর্যন্ত চলে এই সংর্ঘষ।HSTU1

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গুটি কয়েক সন্ত্রাসীর হাত থেকে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়কে বাঁচানোর দাবীতে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম উদ্যোগে রবিবার ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন দিনাজপুর-ঢাকা মহাসড়কে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। এসময় বক্তব্য রাখেন প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. বলরাম রায়, প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের কার্যকরী পরিষদের সদস্য প্রফেসর ড. এ টি এম সফিকুল ইসলাম প্রমূখ।

এর পরে রবিবার সকাল সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ইফতেখার আহমেদ রিয়েল এবং সাধারন সম্পাদক ও বহিস্কৃত ছাত্র অরুন কুমার রায়ের নেতৃত্বে একটি মানববন্ধন এবং বি্শ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্টু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে শিক্ষকদের পক্ষ নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা নাহিদ আহমেদ নয়নের নেতৃত্বে সাধারন ছাত্রছাত্রীরা পাল্টা একটি মানববন্ধন কর্মসূচী শুরু করে। এতে ছাত্রলীগের দু গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সশস্ত্র সংঘর্ষ বেধে যায়। উভয়পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১৫ জন আহত হয়। বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা শহীদ তাজউদ্দীন হল, জিয়া হল, শেখ রাসেল হলসহ কয়েকটি হল ভাংচুর করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ ৮ রাউন্ড টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এরপর ক্যম্পাসে ২টি মোটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা।

HSTU-2এ ব্যাপারে কোতয়ালী থানার ওসি একেএম খালেকুজ্জামান জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ৩ রাউন্ড টিয়ারসেল এবং ৫ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগে ছাত্রলীগের ৩ নেতাকর্মীকে বহিস্কারের পর বিশৃংখল পরিস্থিতি এড়াতে গত ৩০ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করে প্রশাসন। দীর্ঘ ১ মাস ১২ দিন পর গত ১১ জানুয়ারী খুলে দেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ টি আবাসিক হল। ওইদিন, কয়েকজন শিক্ষককে লাঞ্চনার অভিযোগ ওঠে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরদের বিরুদ্ধে। এঘটনার প্রতিবাদে একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হবার আগেই অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতীর ডাক দেয় হাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি। এরই মধ্যে ছাত্রলীগ দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়ে। এর একটি গ্রুপ শিক্ষকদের পক্ষে অবস্থান নেয়। এ কারণে গতকাল রবিবার ছাত্রলীগের দুটি গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়।

 

Spread the love