বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

হাতীবান্ধায় স্ত্রীর শরীরে মরিচের গুড়ো ঢেলে দিলেন পাষন্ড স্বামী

আল হাসান সোহাগ,হাতীবান্ধা,লালমনিরহাট প্রতিনিধি : লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় গৃহবধুর শরীরে মরিচের গুড়ো ছিটিয়ে দিলেন পাষন্ড স্বামী। এ ঘটনায় পাষন্ড স্বামী গা ঢাকা দিয়েন।

 

বুধবার হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের বেডে শুয়ে জ্বালায় কাতরাচ্ছে অন্তসত্বা তাসলিমা বেগম (২৫)। বারবার চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়ছে পানি। জানতে চাইলে তিনি বলেন অনিচ্ছায় কিছু মরিচ পুড়ে গিয়েছিল। মরিচের গুড়ো শরীরে ছিটিয়ে দেওয়ার আগে অনেকবার হাতেপায়ে ধরেছি। কিন্তু সে কথা শোনেনি। এ কাজ করার পর থেকেই জ্বালায়-ব্যাথায় আমি নিজেকে আর সামলে রাখতে পারছি না’।

 

জানাগেছে, ২০০৫ সালে বিয়ে হয় পাটগ্রাম উপজেলার বাউরা ইউনিয়নের নবীনগর গ্রামের বাসিন্দা মৃত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদেরের ও মরিয়ম বেওয়ার মেয়ে মোছঃ তসলিমা বেগমের (২৫) বিয়ে হয় পাশের উপজেলা হাতীবান্ধার মধ্য গড্ডিমারী গ্রামের বাসিন্দা নুর ইসলামের পুত্র এরশাদুলের সাথে । তাদের সংসার ভালই চলছিল । তাদের কোল জুড়ে আসে একটি ফুটফুটে ছেলে সন্তান তসলিম (৫) । এরপর আবারও অন্তসত্বা হয়ে পড়েন ওই গৃহবধু। কিন্তু হঠাৎ করে এরশাদুলের আচার আচরন অস্বাভাবিক হয়ে ওঠে সামান্য কিছুতে মারধর করে তাসলিমাকে।

 

এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার সকালে শুকনা মরিচ ভেজে গুড়া করছিল সে। ভাজার সময় কিছু মরিচ পুড়ে যায়। এতে স্বামী এরশাদুলের সাথে শুরু হয় কথাকাটাকাটি। এক পর্যায়ে ক্ষীপ্ত স্বামী মরিচ গুড়ো পুরো শরীরে ছিটিয়ে দিয়ে স্ত্রীর গায়ে ঢেলে দেয় পানি। এতে জ্বালাপোড়া শুরু হয় এক সন্তানের জননী অন্তসত্বা ওই নারীর। অবস্থা বেগতিক দেখে তাকে ঘরে আটকে রাখে স্বামী। পরে আতœচিৎকারে এলাকার লোকজন এগিয়ে এসে তাসলিমাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায় স্থানীয় হাসপতালে।

এ ব্যাপারে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স্রের চিকিৎসক ডা. আসাদুজ্জামান জানান, এই নারী অন্তসত্বা হওয়ায় তাকে ২৪ ঘন্টা পর্যবেক্ষনে রাখতে হবে। বর্তমানে তিনি আট মাসের অন্তসত্বা বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক’।

এ ঘটনায় ওই পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে। তবে বিষয়টি মিমাংসা করতে ক্ষমতাসীন আ.লীগের স্থানীয় কতিপয় নেতাকে দৌড়ঝাপ করতে দেখা গেছে।

Spread the love