বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘‘হাবিপ্রবিতে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

HSTUদিনাজপুর  প্রতিনিধি : দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্বীর্যের মধ্যে দিয়ে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ’১৪ পালিত হয়েছে।

কর্মসূচীর অংশ হিসেবে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে একাডেমিক ভবনের সম্মুখে জাতীয় পতাকা অর্ধ-নমিত ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল সাড়ে ৮টায় মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর মো. রুহুল আমিন-এর নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, ছাত্র-ছাত্রী ও কর্মচারীরা কালো ব্যাচ ধারণ করে প্রভাত ফেরীতে অংশ নেয়। প্রভাত ফেরী শেষে ভাইস-চ্যান্সেলর মহোদয় শহীদদের বিদেহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হাবিপ্রবির কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। ক্রমান্বয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন শিক্ষক সমিতি, প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম, সাদা দল, হল/ডরমিটরিসমূহ, কর্মকর্তা সমিতি, প্রগতিশীল কর্মকর্তা পরিষদ, অফিসার্স ফোরাম, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (হাবিপ্রবি শাখা), প্রগতিশীল কর্মচারী পরিষদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

ভাইস-চ্যান্সেলর মহোদয়ের ২১’র বাণী পাঠ ও বিতরণ শেষে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের তাৎপর্যের উপর শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মো. শাহাদাৎ হোসেন খান-এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, হাবিপ্রবি’র ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর মো. রুহুল আমিন, পোষ্ট গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মো. আনিস খান, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. এ.টি.এম শফিকুল ইসলাম, কীটতত্ব বিভাগের প্রফেসর ড. মো. আব্দুল আহাদ, মেডিসিন, সার্জারি অ্যান্ড অবস্টেট্রিক্র্ বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডাঃ মো. ফজলুল হক, প্রগতিশীল কর্মকর্তা পরিষদের পক্ষে সাধারন সম্পাদক আ. ন. ম. ইমতিয়াজ হোসেন। প্রগতিশীল কর্মচারী পরিষদের সমিতির পক্ষে আব্দুর রহিম প্রমূখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর মো. রুহুল আমিন বলেন, একুশে ফেব্রুয়ারি একদিকে যেমন শোক ও বেদনার, অন্যদিকে তেমনি শক্তি ও প্রেরণার। ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি মায়ের ভাষা ‘বাংলা’ ও স্বতন্ত্র সংস্কৃতি। ২১’র আন্দোলনের পথ বেয়েই এগিয়ে গেছে আমাদের স্বাধিকার আদায়ের আন্দোলন। এর চূড়ান্ত ফসল হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা পেয়েছি স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, ১৯৫২ ও ১৯৭১ আমাদের মহাপ্রেরণার উৎস। তাই আসুন এই প্রেরণা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে দেশের তথা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে আমাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব আন্তরিক ও নিষ্ঠার সাথে পালন করি।

আলোচনা সভার পরই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা এবং এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর  মো. রুহুল আমিন।

এছাড়াও জোহরের নামাজের পর ভাষা শহীদদের উদ্দেশ্যে কেন্দ্রীয় মসজিদে মিলাদ মাহফিল ও বিশেষ দোয়ার আয়োজন করা হয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email