সোমবার ১৪ জুন ২০২১ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হার না মানা বীরের শেষ জীবনের প্রাপ্তি

২০০০ সাল, স্বাধীনতার প্রায় ৩০ বছর পেরিয়ে সমৃদ্ধির পথে এগিয়েই যাচ্ছে দেশ, সারাদেশে পরিবর্তনের শুরু হলেও অনেক পিছিয়ে দিনাজপুর শহরের নিকটবর্তী উপজেলা চিরিরবন্দর। শিক্ষা ও বানিজ্য কোনটাতে ছিল না তেমন উল্লেখ করার মতো।যৌবনে দেখেছেন পাক বাহিনীর বর্বরতা আর বঞ্চনা, অতপর বঙ্গবন্ধুর ডাকে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন। বিভিন্ন মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পে আহত যোদ্ধাদের চিকিৎসা প্রদান, এভাবেই একদিন সম্মুখ যুদ্ধে দুই পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে এখনো ক্ষত বয়ে বেড়াচ্ছেন।মাঝখানে ৩০ বছর,এর মধ্যে এমবিবিএস কোর্স শেষে দেশের বিভিন্ন জায়গায় চাকুরী করে ঢাকা মেডিকেল কলেজে অধ্যাপনা শেষে অবসর জীবনে যান।ক্লানিহীন জীবনের ফাঁকে নিজ উপজেলায় শুরু করেন বাবা মায়ের নামে বিদ্যালয়, স্বপ্ন দেখেন এলাকার মানুষদের নিয়ে এই প্রতিষ্ঠান একদিন দেশ সেরাদের কাতারে যাবে।কিন্তু স্রোতের সাথে গা ভাসিয়ে চলা এলাকার অনেক মানুষেই তখন ছিল নিন্দুকের ভূমিকায়।মাত্র কয়েকজন শিক্ষার্থী নিয়ে এগিয়ে চলার এই প্রতিষ্ঠান আপন গতিতে এগিয়ে চলছে। এভাবেই ডাঃ স্যারের রোপিত স্বপ্ন এখন বিশালাকার বটবৃক্ষে রুপ নিয়েছে। এখন ২০২১ সাল,,২০ বছর পেরিয়ে সেই চিরিরবন্দর এখন আলোচনার কেন্দ্র। আমেনা বাকী স্কুলের অনুকরণে ১.৫ কিলোমিটার এর মধ্যে এখন ১০ টি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান। সব মিলিয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৭ হাজারের বেশি। শিক্ষক ও কর্মচারীদের সংখ্যা ১ হাজারের বেশি। উপজেলার অবাসন শিল্পে যোগ হয়েছে নুতন ইতিহাস, নয়নাভিরাম চোখ জুড়ানো ভবন গুলো যেন এক নুতন ঢাকা।আজকের এই পরিবর্তনের প্রান পুরুষ ডাঃ আমজাদ হোসেন স্যার। জীবন যুদ্ধে অজেয় এই মানুষটিকে শেষ বয়সে চিনতে পেরেছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী।বিনামূল্যে মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা প্রদান,স্বল্প মূল্যে প্রায় ৪ হাজার হিপ জয়েন্ট প্রতিস্থাপনে অভাবনীয় সাফল্য উনাকে সমাজসেবা ও জনসেবায় স্বাধীনতা পদক প্রাপ্তিতে সহায়তা করলেও উপজেলা পর্যায়ে শিক্ষার বিস্তারে উনার ভূমিকা ভবিষ্যৎ এ এ প্রজন্মের কাছে প্রেরণা যোগাবে।গ্রামীন জনজীবনে বেড়ে ওঠা এই মানুষটি চিকিৎসা বিজ্ঞানে অসামান্য অবদান রাখায় বহুবার বিদেশে যাওয়ার সুযোগ পেলেও বারবার প্রত্যাখ্যান করেছেন।আজকের আধুনিক চিরিরবন্দরে শিক্ষার প্রসার আমাদের নুতন পরিচিতি এনে দিয়েছে। সেই অগ্রযাত্রায় যোগ হলো আজ নুতন ইতিহাস। দিনাজপুরে দ্বিতীয় এবং চিরিরবন্দরে এই প্রথম বিরল সম্মানে ভূষিত হলেন কেউ।২০১৮ সালে হুইপ ইকবালুর রহিম এর পিতা আব্দুর রহিম কে মুক্তিযুদ্ধ গবেষণায় মরনত্তর স্বাধীনতা পদক প্রদান করা হয়েছিল।যোগ্যতার মানদণ্ডে বিচারকদের বিচারে আর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ডাঃ আমজাদ স্যারের জীবনে এই শ্রেষ্ঠ অর্জনে চিরিরবন্দরবাসী হিসেবে আমরা গর্বিত। দলমত নির্বিশেষে চিরিরবন্দর বাসী আপনার পাসেই আছে।আপনার লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নে কঠিন দূর্দিনে পাশেই থাকবো প্রিয় স্যার।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email