বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হিলি ট্রেন ট্র্যাজেডি দিবস পালিত

দিনাজপুর প্রতিনিধি : গতকাল ১৩ জানুয়ারি দিনাজপুরের হিলি ট্রেন ট্র্যাজেডির দিবস পালিত হয়েছে। কিন্তু ১৯ বছর পার হলেও আজও আহত ও নিহতদের অনেক পরিবার পায়নি ক্ষতিপুরণের টাকা। সেই দুর্ঘটনায় আহতদের অনেকে এখনো পঙ্গত্ববরণ করে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। দিনটি স্বরন করে প্রতিবছরেই পালিত হয় ‘‘হিলি ট্রেন ট্র্যাজেডির দিবস’’। হিলি রেলওয়ে একতা ক্লাবের উদ্যোগে গতকাল সোমবার নিহতদের স্মরণে রেলস্টেশনে মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে।

১৯৯৫ সালের ১৩ জানুয়ারি শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টায় দিকে দিনাজপুর জেলাধীন হাকিমপুর উপজেলার হিলি রেলওয়ে স্টেশনের গোয়ালন্দ ঘাট থেকে আসা পার্বতীপুরগামী যাত্রীবাহী ৫১১ নং লোকাল ট্রেনটি ১নং লাইনে দাঁড়িয়েছিল। কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার ও পয়েস্টস ম্যানের দায়িত্বহীনতার কারণে ১ নং লাইনে ঢুকে পড়ে সৈয়দপুর থেকে ছেড়ে আসা খুলনা গামী যাত্রীবাহী আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস। মুহূর্তেই দুটি ট্রেনের মুখোমুখি সংর্ঘষে বিকট শব্দ ও শত শত যাত্রীদের চিৎকারে ভারী হয়ে উঠে হিলির আকাশ-বাতাস। দুমড়ে মুচড়ে যায় লোকাল ট্রেন দু’টির ইঞ্জিনসহ ৩টি বগী। বিডিআর, বিএসএফসহ অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোকজন ও একতা ক্লাবের সদস্যসহ স্থানীয়রা নিহত ও আহতদের উদ্ধার করে। বেসরকারি ভাবে নিহতের সংখ্যা শতাধিক হলেও সরকারি ভাবে ঘোষণা করা হয় মাত্র ২৭ জন ট্রেনযাত্রী নিহতের কথা। পরদিন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ছুটে আসেন হিলি রেলষ্টেশনে। ঘোষণা দেন আহত ও নিহত পরিবারকে ক্ষতিপুরণের। কিন্তু ১৯ বছর পার হলেও আজও আহত ও নিহতদের অনেক পরিবার পায়নি ক্ষতিপুরণের টাকা। সেই দুর্ঘটনায় আহতদের অনেকে এখনো পঙ্গত্ববরণ করে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। দিনটি স্বরন করে প্রতিবছরেই পালিত হয় ‘‘হিলি ট্রেন ট্র্যাজেডির দিবস’’। হিলি রেলওয়ে একতা ক্লাবের উদ্যোগে নিহতদের স্মরণে রেলস্টেশনে মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email