বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে প্রচুর পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানি সত্বেও বাজারে দাম বৃদ্ধি

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি : আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম হিলি স্থলবন্দর দিয়ে প্রচুর পরিমাণে পেঁয়াজ আমদানি করেছেন ব্যবসায়ীরা। এ বন্দর দিয়ে গত এক সপ্তাহে ভারত থেকে ৫ হাজার ৪০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে।

ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে বাজারে পেঁয়াজের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এবং পূজা ও ঈদের ছুটিতে মঙ্গলবার থেকে হিলি বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ হওয়ার সংবাদ শুনে অনেক ব্যবসায়ী পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। গত এক সপ্তাহের ব্যাবধানে বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি সাত টাকা থেকে ১০ টাকা।

বাংলাহিলি কাস্টমস সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ সেপ্টেম্বর বন্দর দিয়ে ৩২ ট্রাক, ২৩ তারিখে ১১ ট্রাক, ২৪ তারিখে ৫২ ট্রাক, ২৫ তারিখে ৩৩ ট্রাক, ২৬ তারিখে ৩৩ ট্রাক, ২৭ তারিখে ৪৯ ট্রাক, ২৮ তারিখে ৪২ ট্রাক মোট ২৫২ ট্রাকে ৫ হাজার ৪০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়।

খুচরা পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা বলছেন, কুরবানির ঈদ এলেই পেঁয়াজের চাহিদা বেড়ে যায়। আর এই চাহিদার কথা মাথায় রেখে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে প্রচুর পরিমাণ পেঁয়াজ আমদনি করেছেন ব্যবসায়ীরা। আমদানিকারকদের এসব পেঁয়াজ কিনতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকারি ব্যবসায়ীদের সমাগম ঘটছে হিলি বন্দরে। সরবরাহ হচ্ছে রাজধানী ঢাকাসহ, বগুড়া, চট্টগ্রাম, ফেনী, রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে।

বাংলাহিলি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ভারত থেকে আমদানি করা প্রতি কেজি পেঁয়াজ প্রকার ভেদে বিক্রি হচ্ছে ৩২ টাকা থেকে ৩৫ টাকা কেজি দরে। আর দেশি জাতের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা কেজি দরে। অথচ গত সপ্তাহে হিলি বাজারে ভারত থেকে আমদানি করা প্রতিকেজি পেঁয়াজ ২৪ থেকে ২৮ টাকা করে বিক্রি হয়েছে। আর দেশি জাতের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৩৫ টাকা কেজি দরে।

বাজারে সাধারণ ক্রেতারা বলছেন, ঈদ বা রমজান আসলেই পরিকল্পিতভাবে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে বাজারে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দেওয়া হয়। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে কেজি প্রতি পেঁয়াজের দাম ৭ টাকা থেকে ১০ টাকা বাড়ানোর জন্য ব্যবসায়ীদের অতি মুনাফাকেই দুষছেন তারা।

হিলি স্থলবন্দরের পাইকার ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম জানান, গত রোববার হিলি বন্দর দিয়ে ভারত থেকে আমদানিকরা ব্যাঙ্গালুরের নতুন জাতের পেঁয়াজ প্রতিকেজি বিক্রি হয়েছে ৩৩ টাকা থেকে ৩৪ টাকা। ইন্দো ও কানপুর জাতের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৩০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহে প্রকারভেদে প্রতিকেজি পেঁযাজ বিক্রি হয়েছে ২৩ থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে। তিনি বলেন, বন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি বন্ধ হয়ে যাওয়ার খবরে অনেকে বেশি পরিমাণ পেঁয়াজ কিনছেন। এতে বাজারে চাহিদা বেড়ে গেছে। ফলে দামও বেড়েছে। তবে ঈদের পরে বনদর দিয়ে আমদানি-রফতানি পুনরায় শুরম্ন হলে পেঁয়াজের দাম কমবে বলে তিনি মনে করেন।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক হারম্নন উর রশিদ হারম্নন বলেন, দাম যা বাড়ার তা ইতিমধ্যে বেড়ে গেছে, নতুন করে আর বাড়ার সম্ভাবনা নেই। বন্দর এলাকায় আমদানিকারকদের গুদামে প্রচুর পরিমাণ পেঁয়াজ মজুদ রয়েছে।

হিলি স্থলবন্দর শুল্ক স্টেশনের সহকারী কমিশনার (এসি) মাহবুবুর রহমান ভুঞা বলেন, গত সপ্তাহে বন্দর দিয়ে ভারত থেকে প্রায় পাঁচ হাজার মেট্রিন টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে

 

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি, মোবাইলঃ ০১৭১৭৪০৯২৯২, তারিখঃ ০১-১০-২০১৪।

 

Spread the love