বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

হু হু করে বাড়ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ

অবরোধের জের ধরে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম হু হু করে বাড়ছে। এক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা বলছেন- টানা অবরোধে পরিবহন খরচ ৫০ থেকে ১শ ভাগ বেড়েছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে তারই প্রভাব পড়ছে। বর্তমান পরিস্থিতির জের ধরেই চাল, সব ধরনের ডাল, আটা, ভোজ্যতেল ও শাকসবজির দাম বেড়েছে। দাম বেড়েছে দেশি মুরগি ও গরুর মাংসেরও। তবে বাজারে পেঁয়াজ, আলু, ব্রয়লার মুরগির দাম কিছুটা কমেছে। বাজার সংশি­ষ্ট একাধিক সূত্র এসব তথ্য জানায়।

সংশি­ষ্ট সূত্র মতে, বাজারগুলোতে এখন চালের দাম ঊর্ধ্বমুখী। ইতিমধ্যে সব ধরনের চালেই কেজিতে ১ থেকে ২ টাকা বেড়েছে। আর কিছু জাতের চালের মৌসুম শেষদিকে থাকায় সেগুলোর দাম আরো বেশি বেড়েছে। অবরোধের আগে যেখানে ভালো মানের প্রতি কেজি মিনিকেট চালের দাম ছিল ৪৬ টাকা, এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৪৮ টাকায়। পাশাপাশি গত বোরো মৌসুমের বিআর-২৮ জাতের চালের দামও কেজিতে ২ টাকা বেড়েছে। আর আমন মৌসুমের নাজিরশাইল ও পাইজাম চালর দাম কেজিতে বেড়েছে ১ টাকা বেড়েছে। নাজিরশাইল ৪৪ টাকা থেকে শুরু করে ৫৬ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর মাঝারি মানের বিভিন্ন চাল বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৩৮ থেকে ৪৪ টাকায়। মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ৩৩ থেকে ৩৫ টাকা কেজি দরে। তবে বড় বাজারগুলোর তুলনায় ছোট বাজারগুলোতে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম কিছুটা বেশি। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে চালের সরবরাহ কমে গেছে। একই সাথে ট্রাক ভাড়া প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। আগে ১৫ হাজার টাকায় যে ট্রাক আসতো, এখন সেখানে লাগছে প্রায় ৩০ হাজার টাকা। আর এ বাড়তি খরচ ব্যবসায়ীরা পণ্যের দামের সাথেই যোগ করছে। তারপরও পণ্য পরিবহনের জন্য ট্রাক পাওয়া যাচ্ছে না।

সূত্র জানায়, ইতিমধ্যে সব ধরনের ডাল ও ভোজ্যতেলের দামও বেড়েছে। এজন্যও ব্যবসায়ীরা পরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধিকে দায়ি করছেন। যদিও শীত মৌসুমে পাম ও সুপার পাম তেল জমে যাওয়ার কারণে এসময়ে সয়াবিন তেলের বাড়তি চাহিদার কারণে দাম কিছুটা বাড়ে। তবে ভোজ্যতেল কোম্পানিগুলো এ সুযোগে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম প্রতি লিটারে ৪ টাকা বাড়িয়ে দিয়েছে। ফলে প্রতি ৫ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ৫২৫ টাকায়। তাছাড়া বাজারে কিছুদিন পরেই নতুন মৌসুমের ডাল আসবে। এখন দেশীয় ডালের মুজদ প্রায় শেষপ্রান্তে। বছরের এসময়ে একারণে ডালের দাম সাধারণত কিছুটা বাড়তির দিকেই থাকে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। বর্তমানে বাজারে দেশি মসুর ডালের কেজি ১০৫ টাকা থেকে বেড়ে ১১৫ টাকায়, বুটের ডাল ৬০ টাকা থেকে বেড়ে ৬৫ টাকা কেজি দরে এবং মুগডাল ১১০ টাকা থেকে বেড়ে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া আটার দামও প্রতি কেজিতে ১ টাকা বেড়েছে। ময়দার দাম প্রতি দুই কেজির প্যাকেট ৮৫ টাকা থেকে বেড়ে ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সূত্র আরো জানায়, বাজারগুলোতে বর্তমানে গরুর মাংস ও দেশির মুরগির দামও বাড়তির দিকে। সরবরাহ কম থাকায় দেশি গরুর মাংস এখন কেজিপ্রতি ৩২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অবরোধের আগে তা ছিল ২৫০শ টাকা। পাকিস্তানি মুরগি হিসাবে পরিচিত ফামের্র মুরগির দাম প্রতিটি আড়াইশ টাকা চাওয়া হচ্ছে। যা অবরোধের আগে বিক্রি হয়েছে ২২০-২৩০ টাকায়। তাছাড়া প্রতিটি দেশি মুরগি এখন সাড়ে ৩শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অবরোধের আগে যা বিক্রি হয়েছে ৩শ থেকে ৩২০ টাকায়। তবে দাম কমেছে ব্রয়লার মুরগির। প্রতি কেজিতে ১৫ টাকা কমে এখন ১৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। মূলত শীতে বিভিন্ন অনুষ্ঠান বেড়ে যাওয়ায় দেশি ও পাকিস্তানি মুরগির চাহিদা বেড়ে যায়। এর পাশাপাশি অবরোধের কারণে এখন মুরগির সরবরাহ অনেক কম। এ কারণে মুরগির দাম বেড়েছে। তাছাড়া এখন পেঁয়াজ ও আলুর ভরা মৌসুম। এ কারণে পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৫ টাকা কমে দেশি পেঁয়াজ ৩০ টাকা কেজি এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৩৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। ১৮-২০ টাকা থেকে কমে আলু বিক্রি হচ্ছে এখন কেজি প্রতি ১৫ টাকায়। আর অন্যান্য শীতের শাকসবজির কেজিপ্রতি দর হচ্ছে ২০ টাকা থেকে ৪০ টাকা। অবরোধ না থাকলে শীতের সবজির দাম আরো কম হতো বলেই ব্যবসায়ীরা জানান।

Spread the love