সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হেলেনা জাহাঙ্গীর তিন দিনের রিমান্ডে

রাজধানীর গুলশান থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় আলোচিত ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।  

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর হাকিম রাজেশ চৌধুরীর আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। 

সংশ্লিষ্ট আদালতের সাধারণ নিবন্ধন (জিআর) শাখা সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে শুলশান থাকা থেকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও বিশেষ ক্ষমতা আইনের দুই মামলায় হেলেনা জাহাঙ্গীরকে মোট ২০ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করে পুলিশ। এর মধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় রিমান্ড শুনানি হয়। 

আসামিপক্ষের আইনজীবী রিমান্ড আবেদনের বিরোধিতা করেন। এ সময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হেলেনাকে রিমান্ডে নিতে যুক্তি উপস্থাপন করেন। উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে হেলেনা জাহাঙ্গীরের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

উল্লেখ্য, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ৮টার পর হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশান-২ এর ৩৬ নম্বর রোডের বাসভবনে অভিযান শুরু করে র‍্যাব। এরপর দীর্ঘ চার ঘন্টা ধরে অভিযান চালানো হয়। এ সময় তার বাসা থেকে বিদেশি মদ, অবৈধ ওয়াকিটকি সেট, চাকু, বৈদেশিক মুদ্রা, ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও হরিণের চামড়া উদ্ধার করা হয়। 

আটকের পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব সদর দফতরে নিয়ে যাওয়া হয়। শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গুলশান থানায় হস্তান্তর করে র‌্যাব। 

এরপর গুলশান থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এবং বিশেষ ক্ষমতা আইন, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনে র‍্যাব বাদী হয়ে মামলা করেন। 

জানা গেছে, হেলেনা জাহাঙ্গীর অপকৌশলের মাধ্যমে নিজেকে ‘মাদার তেরেসা’, ‘পল্লী মাতা’ ও ‘প্রবাসী মাতা’ হিসেবে পরিচিতি পেতে জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেন। তার পৃষ্ঠপোষকতায় সংঘবদ্ধ চক্রটি এসব ভুয়া খেতাবের অপপ্রচার চালাতো। বিভিন্ন দেশি সংস্থা ও ব্যক্তি থেকে জয়যাত্রা ফাউন্ডেশনের নামে অর্থ সংগ্রহ করতেন। যা মানবিক সহায়তায় ব্যবহারের চেয়ে গ্রেফতারকৃতের খেতাব প্রচার প্রচারণায় বেশি ব্যবহার করা হতো।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email