বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রিতে নানা অনিয়ম

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ সরকারের ১০টাকা কেজি দরে চাল বিক্রয় কর্মসুচীর হতদরিদ্র পরিবারের তালিকা প্রনয়ন ও চাল বিতরণে দিনাজপুরের পার্বতীপুরে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।

 

সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী হতদরিদ্র পরিবার প্রধানরা মাসে প্রতি কেজি ১০ টাকা দরে চাল পাবেন। কিন্তু এ নিয়ম অনুসরণ না করায় অনেক সচ্ছল পরিবার এ চাল পাচ্ছেন। এছাড়াও পার্বতীপুরের ১০ ইউনিয়নে ৩২ ডিলারের বেশিরভাগ সরকারী দলের নেতাকর্মী বলে স্থানীয়রা জানায়।

 

জানা যায়, কর্মাভাব থাকা বছরের সেপ্টেম্বর, অক্টোবর, নভেম্বর ও মার্চ, এপ্রিল এ ৫ মাস সারাদেশের ন্যায় পার্বতীপুরের ১০ ইউনিয়নের (পৌরসভা ছাড়া) ১৬ হাজার ১৪৭ হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ১০ টাকা কেজি দরে মাসে ৩০ কেজি চাল বিতরনের সিদ্ধান্ত নেয় খাদ্য অধিদপ্তর।

এ লক্ষ্যে প্রতি ইউনিয়নে দারিদ্রের প্রকোপ ও দুঃস্থতার মাত্রা বিবেচনায় উপকারভোগি পরিবারের তালিকা প্রনয়ণের জন্য ৬ সদস্যের ইউনিয়ন কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়া ইউনিয়ন কমিটির দেয়া তালিকা যাচাই করে তা অনুমোদনের জন্য ১০ সদসের উপজেলা কমিটি গঠন করা হয়। প্রত্যেক ইউনিয়ন কমিটিতে একজন করে সরকারী কর্মকর্তা সংযুক্ত করা হয়।

 

স্থানীয়রা বলছেন, পার্বতীপুর উপজেলার মোমিনপুর ইউনিয়নের ২নং গোবিন্দপুর ওয়ার্ডের দক্ষিণপাড়ার আঃ মান্নান (কার্ড নং ১৫৩) ও তার ছেলে আবু তাহের (কার্ড নং ১৫৪) প্রায় ৫-৬ একর জমির মালিক। তার পরও বাবা ছেলে দু’জনেই কার্ড পেয়েছেন, চালও তুলেছেন। একই ইউনিয়নের হয়বৎপুর ওয়ার্ডের পরিস্থিতি।

 

২নং গোবিন্দপুর ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার ফাইজুল ইসলাম অভিযোগ করেন, তার ওয়ার্ডে ৫টি মৌজায় ১৮টি পাড়া, কার্ডের বরাদ্দ ১৩১। কিন্তু ১৮ পাড়ার মধ্যে শুধুমাত্র শুড়িপাড়া ও ডাঙ্গাপাড়ায় এসব কার্ড বিতরন করা হয়েছে। এছাড়া পরিবার প্রধানের নামে কার্ড দেয়ার নিয়ম থাকলেও এ দুই পাড়ায় অনেক পরিবারে স্বামী-স্ত্রী ও ছেলে-মেয়েদের নামেও কার্ড বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

 

ইউপি মেম্বার ফাইজুল ইসলাম আরও অভিযোগ করেন, সরকারী নীতিমালায় হতদরিদ্রের তালিকা তৈরীতে ইউপি সদস্যকে অন্তর্ভূক্ত করার নিয়ম থাকলেও তাকে নেয়া হয়নি। তার ওয়ার্ডে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নুর আলম একাই হতদরিদ্র পরিবারের তালিকা তৈরী করেছেন।

 

মোমিনপুর ইউনিয়নে হতদরিদ্রদের তালিকা তৈরী ও চাল বিতরনে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি প্রসঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল ওহাব মন্ডল বলেন, কিছু কিছু এলাকায় ভুলক্রুটি ছিল, সেগুলো সংশোধন করে বর্তমানে সুন্দরভাবে চাল বিতরনের কাজ চলছে।

 

এদিকে, গত ৭ সেপ্টেম্বর পার্বতীপুর উপজেলায় ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি শুরু হয়। গত ৯ ও ১০ সেপ্টেম্বর পার্বতীপুর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে চাল বিতরন পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন কালে (১০ সেপ্টেম্বর) তিনি দেখতে পান মন্মথপুর ইউনিয়নের ডিলার (৪ ও ৫ নং ওর্য়াড) সামসুর রহমান কনু, রাজাবাসর ল্যাম্ব হাসপাতাল এলাকায় খোলা আকাশের নিচে চাল বিক্রি করছেন। সেখানে তার না আছে নিজস্ব বা ভাড়ার দোকান কিংবা গুদাম ঘর। ঘটনাস্থলে ডিলার সামসুর রহমান কনু খাদ্য বিভাগের সরবরাহ করা মানসম্মত চালের বদলে নিন্মমানের খাওয়ার অনুপযোগি চাল বিক্রি করছেন।

 

এ ব্যাপারে পার্বতীপুর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আব্দুল জলিল ব্যাপারী বলেন, এঘটনায় ডিলার সামসুর রহমান কনুকে কেন তার ডিলারশীপ বাতিল বা তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবেনা ? ৩ দিনের মধ্যে এর সন্তোষজনক জবাব প্রদানের জন্য তাকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হয়েছে।

 

অভিযোগ অস্বীকার করে ডিলার সামসুর রহমান কনু বলেন, সরকারী নীতিমালা অনুসরন করে আমি চাল বিতরন করছি। যে মানের চাল সরবরাহ করা হয়েছে, তাই বিতরন করেছি।

 

চাল বিতরনের তালিকা তৈরী, চাল বিতরন, ওজনে কারচুপিসহ নানা অনিয়ম, দূর্নীতির অভিযোগের ব্যাপারে উপজেলার হতদরিদ্রদের তালিকা অনুমোদন কমিটির প্রধান ও পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরফদার মাহমুদুর রহমান বলেন- বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে এ সংক্রান্ত নানা অনিয়মের অভিযোগ পেয়েছি এবং এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নিয়েছি। কেউ অভিযোগ করলেই অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে। আগামীতে ক্রুটিমুক্ত তালিকা প্রনয়ণ ও অন্যান্য ভূলক্রুটি এড়িয়ে কি ভাবে নীতিমালা অনুসরন করে চাল বিতরন কর্মসুচী বাস্তবায়ন করা যায়, সে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

Spread the love