রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১৩ ডিসেম্বার ঘোড়াঘাট মুক্তদিবস

মোঃ ফরিদুল ইসলাম ,ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : ১৯৭১ সালের ১৩ ডিসেম্বর ঘোড়াঘাট বাসির জীবনে এক অবিস্মরনীয় দিন। প্রায় ৮ মাস হানাদার পাকিস্তানী সেনা কর্তৃক নিমর্ম অত্যাচার ,নির্যাতন ,গণহত্যা, লুটতারাজ,অগ্নিসংযোগ এবং অবরূদ্ব্ থাকার পর ঘোড়াঘাট শত্রুর কবল থেকে মুক্ত হয়েছিল। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ চট্টগ্রামে কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে জিয়াউর রহমান কর্তৃক বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষনার পর ও দখলদার পাক হানাদার বাহিনির নির্মম অত্যাচার,নির্যাতন গণহত্যায় ছিন্ন-বিন্নহয়ে পড়ে ঘোড়াঘাট জনপদ। হানাদার বাহিনির অবিরাম গুলি বর্ষন,লুটতারাজ ও অগ্নিসংযোগের ফলে ঘোড়াঘাট ধ্বংসস্তুপে পরিনত হয়। দিনের বেলায় খানসেনারা এবং তাদের দেশীয় দোসররা বহু বাড়িঘড় জ্বালিয়ে দেয়।হত্যা করে অনেক নিরীহ জনগনকে। তখন ঘোড়াঘাট বন্দরে ৬৬ ব্যাটালিয়ন কোম্পানীর মুজাহিদ কমান্ডার মেজর বদর উদ্দিনে নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্বা সংগ্রাম পরিষদ গড়ে ওঠে। ঘোড়াঘাট বন্দরের পূর্ব পার্শ্বে পলাশবাড়ী থানার করতোয়া নদীর তীরে হোসেন পুর আম বাগানে ৩ও৪ বেঙ্গল রেজিমেন্ট ক্যাম্প করে কিছু সেনাবাহিনী অবস্থান করছিল।হযরত আলী, আনছারী,আবু বক্কর,মজিবুর,হান্নান,মকবুল,শহীদ ইসমাইল,দেলোয়ার,মজিবর রহমান (মুঞ্জ)সহ আরও প্রায় ১২০ জন মুজাহিদ নিয়ে শহীদ মেজর বদর উদ্দিনসহ অনেকেই বেঙ্গল রেজিমেন্টের ক্যাপ্টেন রফিক সুবেদার আলতাব হেসেন নাঃসুবেদার মুনসুর আলীসহ ২৬মার্চ/৭১ মেজর বদও উদ্দিন মিলিটারী জীপ যোগে পলাশবাড়ীতে টহল দিতে গেলে বর্তমান রংপুরুবগুড়া মহাসড়কে পাক সেনাদের সাথে সম্মুখ যুদ্ব হলে রেজিমেন্টের নাঃ খমির উদ্দিন ও আঃ মালেক শহীদ হন। যতটুকু পরিচয় জানা যায় তাদের বাড়ি নওগাঁ জেলায়। ক্যাপ্টেন রফিককে তারা ধরে নিয়ে যায় এর পর থেকেই স্বাধীনতা যুদ্ধে বিষাদের রক্তে ঢেউ খেলে উঠানো ৬৬ ব্যাটালিয়ান মুজাহিদের শহীদ মেজর বদর উদ্দিন ঘোড়াঘাট থানার অ গোলা বারম্নদ মুক্তিযোদ্ধের মধ্যে বিতরন করে দিয়ে এলাকার মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে শত্রম্নমুক্ত করবেন বলে শপথ পাঠ করান।মেজর বদর উদ্দিনের নেতৃত্বে বেঙ্গল রেজিমেন্টসহ রংপুর গাইবান্ধা জেলার চৌধুরানী মাদার গঞ্জ,পীরগঞ্জ,পলাশবাড়ী এলাকায় ৩৫০ জন মুক্তিযোদ্ধা নিয়ে রংপুর অভিমুখে আক্রমন করতে এগিয়ে যান । মাদার গঞ্জ নামক সস্থানে পাক সেনাদের সাথে তুমুল সংর্ঘের ঘোড়াঘাটের ইসমাইল শহীদ হন । দুঃখের বিষয় তার লাশ উদ্ধার করা যায়নি বলে জানা যায় । এ অবস্থায় মক্তিযোদ্ধারা ৬ ঘন্টা যুদ্ধ করে ছএভঙ্গ হয়ে ঘোড়াঘাটে পৌছে। তখন ঘোড়াঘাটে খান সেনাদের অবস্থান ছিল সুদঢ়। এদের মোকাবেলা করার জন্য মেজর রদর উদ্দিন মুজাহিদ সদস্যদেও প্রস্ত্তত হওয়ার নির্দেশ দেন। কিন্তু স্থানীয় মানুষের নিরাপত্তা না থাকায় ক্ষাত্ম হয়ে যান । অবশেষে মেজর বদর উদ্দিন বলেছিলেন যুদ্ধ করে দেশ শত্রুমুক্ত করবো । তিনি আত্নগোপন করে থাকাকালে ১৩ মে মেজর বদর পাক বাহিনির হাতে আটক হন। মেজর বদর উদ্দিনের শরীর ব্লেড দিয়ে কেটে রক্তাক্ত স্থানে লবন ছিটিয়ে দেওয়া হলে তিনি শুধু মুখে বলেছেন ইনশাল্লাহ আমি মুক্তিযুদ্ধ করেছি । শেষে মেজর বদর পাক সেনাদের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে প্রাণ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধেও স্বাক্ষর রেখে গেলেন ঘোড়াঘাট তথা বাংলার মাটিতে। পরবর্তীতে মুক্তিযোদ্ধারা ভারত গিয়ে গেরিলা যুদ্ধে প্রশিক্ষন নিয়ে পাক সেনাদের সাথে দীর্ঘ ৯ মাস মোকাবেলা করার পর ১৩ ডিসেম্বর সকাল থেকেই মিএ বাহিনীর বিমান ওপর দিয়ে টহল দেয়।সতর্কতামুলক ব্যবস্থা হিসাবে পরিত্যাক্ত শত্রু শিবির গুলোর ওপর বোমা বর্ষন করা হয়। ভুস্মীভুত গৃহে গৃহে উত্তোলিত হয় স্বাধীন বাংলাদেশের সোনালী মানচিএ লাল সবুজের পতাকা

Spread the love