শনিবার ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

১৪বছরে পা দিল জোড়া লাগানো জমজ দুই বোন মনি মুক্তা

আবু মোহাম্মদ তাসমিন আল বারি, ষ্টাফ রিপোর্টার॥ অভিশপ্ত শৈশবকে বিদায় জানিয়ে কৈশোরের উচ্ছলতায় মেতেছে জোড়া শিশু হিসেবে জন্ম হওয়া মনি মুক্তা। নানা চড়াই উত্তরাই পেরিয়ে বাবা মায়ের কোলে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামে বেড়ে উঠা মনি মুক্তা এখন ১৪বছরে পা দিয়েছে। আজ সোমবার তাদের জন্মদিন। জন্মদিনে দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়ে মনি-মুক্তা বলেন, আমরা চিকিৎসক হয়ে মানুষের সেবা করতে চাই। দেশবাসীর দোয়া এবং সহযোগিতা পেলে আমরা অবশ্যই আমাদের স্বপ্ন পুরন করতে পারবো।
মনি মুক্তার জোড়া লাগানো অবস্থায় জন্মগ্রহণকে মানুষ সৃষ্টিকর্তার অভিশাপ হিসেবে অপবাদ দিলেও বর্তমানে পড়াশুনার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে মনি-মুক্তার প্রতিভা পাল্টে দিয়েছে সকল মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি। নৃত্য এবং সংগীতে উপজেলার বিভিন্ন প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করে বেশ কিছু পুরুস্কার পেয়েছে। পাশাপাশি লেখাপড়ায় তারা বেশ সাফল্য অর্জন করেছে। দুজনে স্থানীয় ঝাড়বাড়ী দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণিতে পড়াশুনা করছে। দুই বোনকে বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করেছে বিদ্যালয়ে সকল শিক্ষার্থীরা। অথচ জোড়া লাগা অবস্থায় তাদের জন্ম নেওয়াকে সৃষ্টিকর্তার অভিশাপ হিসেবে মন্তব্য করেছিল অনেকে। মানুষের মন্তব্যে কষ্ট পেলেও নিজেদের চিকিৎসক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য লেখা পড়া নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করেছে তারা। তবে এখন প্রতিবেশিসহ সকলেই তাদের বেশ আপন করে নিয়েছে বলে জানান মনি মুক্তা।
তাদের খোঁজে রবিবার ঝাড়বাড়ী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে গেলে দেখা যায় মনোযোগের সাথে ক্লাশে তারা। বান্ধবী নুপুরের সাথে কথা বলে জানা যায় মনিমুক্তা ক্লাশে সবাই কে আন্তরিক ভাবে আপন করে নিয়েছে। হঠাৎ কখনোও স্কুল না আসলে তাদের অনুপস্থিতে সহপাঠীদের মনে খারাপ হয়ে যায়।
তাদের সাফল্য কামনা করে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ গোলাম মোস্তফা জানান, তারা লেখাপড়ায় ভাল এবং বেশ মনোযোগ দিয়ে ক্লাশে অংশ গ্রহণ করে। ভবিষ্যতে ভাল মানুষ হয়ে দেশ সেবা করবে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
মণি-মুক্তার বড় বোন দিশা রানী পাল বলেন, সারা দিন ধরে মণি-মুক্তা পুরো বাড়ি মাতিয়ে রাখে। প্রতিবেশিরাও এখন তাদের খুব আদর করেন। একই কথা জানিয়ে বড় ভাই সজল পাল বলেন, ‘ওরা বেশ চঞ্চল ও মিশুক। সবাইকে দ্রুত আপন করে নেয়। তারা আমাদের পরিবারের মধ্যমণি।
দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার শতগ্রাম ইউনিয়নের পালপাড়া গ্রামের শরৎ চন্দ্র পালের পুত্র জয় প্রকাশ পাল। জয় প্রকাশ পালের স্ত্রী কৃষ্ণা রাণী পালের গর্ভে ২০০৯ সালের ২২ শে আগস্ট পার্বতীপুর ল্যাম্ব হাসপাতালে সিজারিয়ান সেকশনে অস্ত্র পাচারের মাধ্যমে মনি এবং মুক্তা জোড়া লাগা অবস্থায় জন্ম নেয়।
পরে রংপুরের চিকিৎসকগণ ঢাকা শিশু হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে যমজ বোনকে অস্ত্র পাচারের মাধ্যমে পৃথক করার পরামর্শ দেন। তাদের পরামর্শ ক্রমে ২০১০ সালের ৩০ জানুয়ারী ঢাকা শিশু হাসপাতালে মনি-মুক্তাকে ভর্তি করা হয়।
অতঃপর ২০১০ সালের ০৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা শিশু হাসপাতালে শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. এ আর খানের সফল অপারেশনের মাধ্যমে মনি-মুক্তা ভিন্ন সত্ত্বা লাভ করে। বাংলাদেশের চিকিৎসা বিজ্ঞানে সৃষ্টি হয় এক নতুন ইতিহাস।
মনি-মুক্তার বাবা জয় প্রকাশ পাল জানান, সে সময় গ্রামের মানুষ এটাকে অভিশপ্ত জীবনের ফসল বলে প্রচার করতে থাকে। সমাজের নানা কুসংস্কারে প্রায় এক ঘরে হয়ে পড়ি। সমাজের নানা অপবাদে গ্রামে আসিনি। হতাশার মাঝে স্বপ্ন দেখি মনি-মুক্তাকে নিয়ে। বিভিন্ন চিকিৎসকের দ্বারে দ্বারে ঘুরতে থাকি তাদের স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাওয়ার জন্য। আমাদের স্বপ্ন বাস্তব হয় ডা. এ আর খানের কারণে। সেই মানুষটির কারণে আমাদের এই দুই সন্তানের নতুন করে বেঁচে থাকা।
মনি-মুক্তার মা কৃষ্ণা রাণী পাল জানান, ২০০৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে প্রথমে ২১ ফ্রেরুয়ারি পার্বতীপুরে বাবার বাড়িতে আসি। কিছুদিন সেখানে থাকার পর নিজগ্রাম বীরগঞ্জ উপজেলার পালপাড়ায় মনি-মুক্তাকে নিয়ে আসি। সৃষ্টি কর্তার আর্শিবাদে এবং ডা. এ আর খানের সাফল্যে আমরা মনি মুক্তাকে স্বাভাবিক ভাবে ফিরে পেয়েছি। আমরা সব কষ্ট ভূলে তাদেরকে চিকিৎসক হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। মনি-মুক্তা এবং পরিবারের জন্য সকলের দোয়া কামনা করেছেন তিনি।