বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

১৫ ডিসেম্বর পার্বতীপুর মুক্ত দিবস

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ এককালের অবাঙ্গালী অধ্যুষিত রেলওয়ে জংশন খ্যাত উপজেলা পার্বতীপুর ১৯৭১ সালের ১৫ ডিসেম্বর শক্রমুক্ত হয়। একাত্তরের ৭ মার্চে সারাদেশের মত পার্বতীপুরেও শুরম্ন হয় অসহযোগ ও আইন অমান্য আন্দোলন। অনিশ্চিত হয়ে পড়ে ব্যবসা বাণিজ্য, অফিস আদালত,স্কুল কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম, বন্ধ হয়ে যায় রেল যোগাযোগ।

৭১- এর ২৩ মার্চ পার্বতীপুর শহরে বসবাসরত অবাঙালীদের বৈষম্য মূলক আচরণে ক্ষুদ্ধ হয়ে গ্রামগঞ্জের সাধারন মানুষ শহর ঘেরাও করে এবং সিদ্দিক মহল­vয় অগ্নি সংযোগ করে। এ সময় অবাঙালীরা নিরস্ত্র বাঙালীদের উপর ব্যাপক গুলি বর্ষন করলে অনেক বাঙালী প্রাণ হারায়। সে সময়ে অবাঙালীদের গুলিতে প্রাণ হারানো কালাইঘাটির রইচ উদ্দিন, আটরাই গ্রামের দুখু মিয়া, বেলাইচন্ডির মোজ্জামেল হকের নাম উলেস্নখ যোগ্য।

২৪ ও ২৬ মার্চ সেই সময়ের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মচারী ইমাম হোসেন মোল­v সহ ১১ জন, এস আহম্মেদের ৪জন কর্মচারী, অমর টকিজ সিনেমা হলের মুসলিম ম্যানেজারের সমসত্ম পরিবারের সদস্য, অহিত কোম্পানির ২জন কর্মচারী, কাশিয়া তেলীর পরিবারের ৪ জন, পার্বতীপুর থানার এ এস আই গোলাম পরিবারের সকল সদস্য, ক্যাপ্টেন ডাক্তারের পুত্র ডাক্তার শামসাদকে কয়লার ইঞ্জিনের বয়লারে নৃশংসভাবে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনা উলে­খ যোগ্য। এ গণহত্যার পর বাঙালীরা ক্রোধে ফেটে পড়ে। এর পর প্রায় আড়াই’শ তৎকালীন বেঙ্গল রেজিমেন্ট, পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা এসে তাবু ফেলে খোলাহাটির নুরম্নল হুদার আটরাই গ্রামে। তারা স্থানীয় তরম্ননদের নিয়ে সংগ্রামী দল গঠন করতে থাকে। তাদের হাতে ধরা পড়ে একজন অবাঙালী এস,পি এবং দু’জন ট্রাক চালক।

২৮ মার্চ পাক বাহিনীর একজন পাঞ্জাবী মেজরের অধিনে কয়েক জন বাঙালী সৈন্য হুগলীপাড়ার সিও’অফিস চত্তরে (বর্তমানে উপজেলা পরিষদ চত্বর) পাহারা দিচ্ছিল। দ্বিতলী ভবনে কামান পেতে মেজর বাঙালীদের তৎপরতা লক্ষ্য করে ওয়ারর্লেসে খবর দেয়ার চেষ্টা করলে এক বাঙালী সৈন্যের সাথে বাক-বিতান্ডের এক পর্যয়ে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনা জেনে ফেলায় হুগলীপাড়া গ্রামের  ছাত্র আঃ লতিফকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয় এবং জ্বলমত্ম কয়লার ইঞ্জিনের বয়লারে পোড়ানো হয়।

১ এপ্রিল সংগ্রামী যুবকদল বৃত্তিপাড়ার নিকট র্মটার বসিয়ে সন্ধ্যার পর এক যোগে ৪র্থ মুখে আক্রমন চালায় পার্বতীপুর শহরে। শেষ রাতে হঠাৎ কামান গর্জে ওঠে। ভোরে তুমূল গোলাগুলি শুরম্ন হয়। প্রচন্ড শব্দে সেল নিক্ষিপ্ত হয় শহরের সোয়েব বিল্ডিং এর উপর। ভেঙ্গে যায় ৪ তালা ভবনের চিলে কোঠা।২ এপ্রিল পাকসেনা ও অবাঙালীরা হিংস্রতায় উন্মুত্ত হয়ে পার্বতীপুরের ৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকার মধ্যে গ্রাম-গঞ্জে অগ্নি সংযোগ, হত্যা, ধর্ষন ও নির্যাতন চালায় বাঙালীদের উপর। এ দিনে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয় অনেক বাঙালীকে। এর মধ্যে চন্ডিপুর ইউনিয়নের জাহানাবাদ কালেখাপাড়া গ্রামের রহমতুল­vর পুত্র সৈয়দকে নির্মম ভাবে আগুনে পুড়ে হত্যা করা হয়। একই দিনে পার্শ্ববতী পুকুরপাড়া গ্রামের লালমিয়ার স্ত্রী অহেদা বেগম ও যুবতী মেয়ে এবং তাজর উদ্দিনকে একসংগে গুলি করে হত্যা করে। বাজারপাড়া গ্রামের মোসেত্মা হাজী ও মামুন পাড়ার চাঁন মামুন ওরফে গ্যাড়পা হাজী, মশেতুল­vহকে জীবিত অবস্থায় চোখ তুলে নিয়ে বহু নির্যাতনের পর গুলি করে হত্যা করে। শহর সংলগ্ন নয়াপাড়া গ্রামের ইব্রাহীম ওরফে সুরাইন, দক্ষিন পাড়ার রফিকউদ্দিন ওরফে রিয়াজকে রাসত্মায় ফেলে জবাই করে হত্যাকরে। আর একারনে শহরের দুটি মহল­vর নামকরন করা হয় রিয়াজ নগর ও ইব্রাহীম নগর। বাশুপাড়া গ্রামের জমির উদ্দিনের পুত্র আবু বকর সিদ্দিক, মেনহাজুল হক, আলাউদ্দিন, আজগর আলী, মেহেরাজ আলী (কবিরাজ), আজিজার ও শামসুল হককে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

রামপুরার একানউদ্দিন, ভেদলু ও সোবাহানকে নির্মম ভাবে হত্যা করা সহ যুবতীমেয়েদের উপর চরমভাবে নির্যাতন চালায়। ৮ এপ্রিল বিকালে সবচেয়ে বৃহৎ গণ হত্যার ঘটনা ঘটায় পাক সেনারা। রংপুর থেকে পাক সেনারা ট্রেনযোগে এসে পার্বতীপুর শহরের অবাঙ্গালীনেতা তৎকালীন এমপি কামরম্নজ্জামান ও শহরের নামকরা অবাঙ্গালী গুন্ডা বাচ্চু খান, নঈম খানের নেতৃত্বে নৃশংসভাবে প্রায় ৩/৪‘শ বাঙ্গালীকে গণহত্যা করে এবং ধর্ষিতা হয় অনেক মা বোন।

এ সময় ভারতে মুক্তিযোদ্ধারা ট্রেনিং শেষে পার্বতীপুরের কৃর্তী সমত্মান আলাউদ্দিন ই কোম্পানীর কমান্ডার হিসাবে ৪০ জনের একটি মুক্তিযোদ্ধা দল নিয়ে দেশে প্রবেশ করে। জুলাইয়ের প্রথমদিকে তারা প্রথমে ফুলবাড়ীর ভেড়ম নামকস্থানে বেস ক্যাম্প স্থাপন করে। ভেড়মের ৪ কিঃমিঃ পূর্বে এবং ৩ কিঃমিঃ উত্তরে পাকসেনাদের শক্ত ঘাটি ছিল। ক্যাম্প স্থাপনের ৫ দিনের মাথায় পাকসেনাদের সাথে চরম যুদ্ধ শুরম্ন হয়। এ যুদ্ধে ১৭ জন পাক সেনাকে হত্যা করে।

বহু রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের পর এলো ডিসেম্বর মাস। ১০ থেকে ১৪ ডিসেম্বরের মধ্যে বিশেষ প্রহরায় ট্রেন যোগে পার্বতীপুর থেকে প্রায় ৩৫ হাজার আবাঙ্গালী সৈয়দপুরে চলে যায়। ১২ ডিসেম্বর ভারতীয় বাহিনীর বোমা হামলায় পার্বতীপুরের তেলের ট্যাংকারে আগুন ধরে যায়। ১৪ ডিসেম্বর পার্বতীপুরের পাকসেনা ও রাজাকারদের ক্যাম্পগুলো আক্রামত্ম হয়। এ অবস্থায় তারা পিছু হটে এবং ১৫ ডিসেম্বর শক্রমুক্ত হয় পার্বতীপুর। মুক্তিযোদ্ধাসহ অনেক বিজয়োলিস্নসিত মানুষ পার্বতীপুর শহরে প্রবেশ করে। শহরের মূল মূল ভবনগুলোতে বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলিত হয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email