মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সারের ঊর্ধ্বমুখী বাজারে কৃষকের ভরসা বীরগঞ্জের কেঁচো মানিক

একরাম তালুকদার ॥ বসতবাড়ি সংলগ্ন ৪০ শতক জমিতে বিশাল বড় টিনশেড। শেডের নিচে কেঁচো সার (ভার্মি কম্পোস্ট) প্রস্তুত করা হচ্ছে। মেঝেতে ৫-৭ ইঞ্চি পুরু বিছানো গরুর গোবর। ৬ জন লোক গোবর উল্টেপাল্টে শুকানোর কাজ করছেন। পাশেই শুকনো গোবর নেটিং হচ্ছে। ঝুরঝুরে গোবর বস্তায় ভরে ওজন হচ্ছে। চেয়ারে বসে আছেন মানিক বর্মা (৩৭)। খাতা দেখে চাহিদা অনুযায়ী কৃষককে সরবরাহ করছেন কেঁচো সার (ভার্মি কম্পোস্ট)।
১৫ বছর ধরে কেঁচো সার তৈরী করে কৃষককে সরবরাহ করছেন মানিক বর্মা। জমিতে কেঁচো সার ব্যবহারে ফসলের উৎপাদন ও গুণাগুণ বৃদ্ধি পায়, চাষের খরচ কম হয়, ফসলের বর্ণ-স্বাদ-গন্ধ হয় আকর্ষণীয়। মাটির পানি ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে বায়ু চলাচল স্বাভাবিক রাখে। কেঁচোসারের এসব গুনাগুনে উদ্বুদ্ধ হয়েছেন কৃষক। জমি প্রস্তুত করে ছুটছেন মানিকের ফার্মে। ১০ কেজি থেকে ১ টন পর্যন্ত সার কিনছেন। কেঁচো সার সরবরাহ করে রীতিমত কৃষকের ভরসার প্রতীক হয়ে উঠেছেন মানিক।
মানিকের বাড়ি দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার শিয়ালখেদা গ্রামে। ছোটবেলা থেকেই বাবার কৃষি কাজের সাথে যুক্ত আছেন। ২০০৪ সালে বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানে কেঁচোসার তৈরীর প্রশিক্ষন নেন। পরে বাসায় কয়েকটি টবে কেঁচো আর গোবরের মিশ্রণে সার তৈরী শুরু করেন। এরপর টব থেকে চারি, চারি থেকে রিং সবশেষ বাড়ি সংলগ্ন ৪০ শতক জমিতে গড়ে তুলেছেন সবুজ স্বপ্ন এগ্রো ফার্ম। নিয়মিত ৭-৮ জন শ্রমিক কাজ করছেন। ফার্মে প্রতিমাসে উৎপাদন হচ্ছে ৫০টন কেঁচোসার। প্রতিকেজি সার বিক্রি করছেন ১২-১৫ টাকা দরে।
মানিকের ফার্ম ঘুরে দেখা যায়, ফার্মে শ্রমিকদের সাথে ব্যস্ত সময় পার করছেন মানিক। পিকআপ ভ্যানে আশেপাশের গ্রাম ও গো-খামার থেকে আসছে গোবর। ফার্মে আনলোড হচ্ছে। ২০০৫ সালে কৃষি অফিস থেকে দ্বিতীয়বার প্রশিক্ষন নেন। পরে আড়াইশ গ্রাম কেঁচো দিয়ে সার উৎপাদন শুরু করেন। নিজের চাহিদা মিটিয়ে গতমাস পর্যন্ত দুই হাজার কেজি কেঁচো বিক্রি করেছেন। মানিকের কেঁচো সারের প্রচারণা মুলত কৃষি বিভাগই করে দিয়েছেন।
মানিকের কেঁচো সারে আগ্রহ বেড়েছে স্থানীয় কৃষকদের। মানিকের মুখেও এনে দিয়েছে হাসি। কৃষি বিভাগের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা ও কৃষক প্রায় সকলই মানিকের খবর জানেন। এক্ষেত্রে তাঁর নামের সামনে যুক্ত করতে হয় কেঁচো শব্দটি। দীর্ঘ ১৫ বছরে মানিক বর্মা হয়ে উঠেছেন কেঁচো মানিক। কেঁচো মানিক শুনলে বিব্রত না হয়ে বরং আনন্দ পান মানিক। জানালেন, শুধু নিজ জেলা নয় দেশের বিভিন্ন জায়গায় কেঁচো সার প্রস্তুতকারী প্রায় সকলেই চেনেন তাকে। এএলআরডি নামের একটি প্রতিষ্ঠানের প্রশিক্ষক হয়ে বরিশাল, পটুয়াখালী, খুলনা, যশোরসহ প্রায় ৪০টিরও অধিক জেলায় কেঁচো সারের গুনাবলী ও প্রস্তুত করার বিষয়ে ২ সহস্রাধিক উদ্যোক্তাকে প্রশিক্ষন প্রদান করেছেন। মানিকের মত পেশা হিসেবেও নিয়েছেন কেউ কেউ। সার বিক্রির আয়ে মানিক সম্প্রতি নির্মান শুরু করেছেন পাকা বাড়ি ও গরুর খামারের শেড।
কলা গাছ ও কচুরীপানা কুচি কুচি করে কেটে তাতে মেশানো হয় গোবর। সেই মিশ্রনে পরিমানমত কেঁচো ছেড়ে দিয়ে উপরের অংশে সামান্য কচুরিপানা দিয়ে ঢেকে রাখা হয় ২০-২৫দিন। কেঁচো সেই মিশ্রণ খেয়ে নরম করে তোলে। পরবর্তীতে বাদামী রং ধারণ করলে নেটের মধ্যে দিয়ে ছেঁকে নেওয়া হয়। আর তাতেই বের হয়ে আসে কেঁচো সারের মিহি দানা।
কয়েকজন কৃষক জানান, জমিতে কেঁচো সার ব্যবহারে ফসল ভালো হয়। মাটি নরম থাকে। কেঁচোসারের ব্যবহারের ফলে জমিতে রাসায়নিক সারও কম ব্যবহার করছেন তারা। মানিকের কাছে নিয়মিত সার কেনেন মুসলিম পাটোয়ারি। জানালেন, এবার ৪০ বিঘা স্ট্রবেরি চাষ করছেন। ইতিমধ্যে ৩৫ টন সার কিনেছেন মানিকের কাছে। তিনি বলেন, কেঁচোসারে উপকারীতা বেশি। ফসলের রোগবালাই ও পোকামাকড় কম হয়।
জেলা কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী দিনাজপুরে দুই শতাধিক উদ্যোক্তা কেঁচো চাষের যুক্ত রয়েছেন। গত অর্থবছরে জেলায় কেঁচো সারের উৎপাদন ছিলো ২ হাজার ১৬৫ মেট্রিক টন। এই সারের উৎপাদন ও ব্যবহার বাড়াতে বিভিন্ন পদক্ষেপও গ্রহণ করেছে কৃষি বিভাগ।
সম্প্রতি কৃষকের চাহিদা অনুযায়ী সার দিতে পারছেননা মানিক। জানালেন, পরিমানমত গোবর না পাওয়ায় উৎপাদন কমেছে। তাছাড়া দামও বেড়েছে গোবরের। কিছুদিন আগে একশ ভাড় (এক ভাড় সমান দুই ঢাকী) গোবর পঁচিশ’শ টাকা দাম ছিলো সেই গোবর এখন ৩হাজার টাকা। বেড়েছে পরিবহন খরচ। খুব শীঘ্রই সারের দাম ১৫টাকার পরিবর্তে ২০ টাকা করার কথাও জানান।
কেঁচোসার তৈরী ও এর উপকারীতা বিষয়ে মানিক যেন বিশেষজ্ঞ। জানালেন, প্রতি এক টন সার প্রস্তুত করতে ১০ কেজি কেঁচো দরকার। ৩০ দিন পরে তার থেকে পাওয়া যায় ৭৫০ কেজি সার। সাধারনত কেঁচোর আয়ুষ্কাল ৯৫দিন। এই সময়ে দুইবার ডিম দেয়। একটি কেঁচো গড়ে ৪টি ডিম দেয়। ফলদ গাছ বা উঁচু জমির ফসলে পরপর তিনবার এই সার ব্যবহার করলে ডিম থেকে উৎপন্ন কেঁচো ওই স্থানে নিজে থেকেই সার উৎপাদন করতে থাকে। ফলে পরবর্তী দু-তিনটি ফসলে সার ব্যবহার না করলেও চলে।
কেঁচো সার বিষয়ে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রপ ফিজিওলজি বিভাগের প্রফেসর মুক্তাদুল বারী বলেন, জমিতে দীর্ঘসময় মাত্রাতিরিক্ত রাসায়নিক সার ব্যবহার করায় মাটির মাইক্রো অর্গানিজমগুলো (ছোট ছোট অনুজীব) মারা যায়। সেখানে কেঁচো সার অনুজীবগুলোকে সক্রিয় রাখে। ফলন বাড়াতে রাসায়নিক সার প্রয়োজন আছে। তবে পাশাপাশি কেঁচোসারও প্রয়োজন। কেননা মাটির শরীর ভালো রাখতে দরকার জৈব পদার্থ। যার অন্যতম সোর্স হচ্ছে গোবর।
বাংলাদেশ এগ্রিকালচার ডেভেলাপমেন্ট কর্পোরেশন (বীজ) দিনাজপুরের উপ-পরিচালক মোজাফফর হোসেন বলেন, অসতর্ক ও অনিয়ন্ত্রিতভাবে জমিতে রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহারের কারণে কেঁচোসহ বিভিন্ন ছোটছোট অনুজীবগুলো বংশ বৃদ্ধি ও বসবাসের পরিবেশ হারাচ্ছে। ফলে জমি উর্বরতা হারাচ্ছে। কমে যাচ্ছে ফসলের উৎপাদন। সেই ফসল খেয়ে মানুষের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাচ্ছে। রাসায়নিক সারের ব্যবহার কমিয়ে কেঁচো সার তথা জৈব সারের দিকে নজর দেওয়াটা খুবই জরুরী হয়ে পড়েছে।
বীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু রেজা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, জমিতে কেঁচো সার ব্যবহারে বিঘা প্রতি অন্তত ৩০০ টাকা সাশ্রয় হয়। এক বিঘা জমিতে ৩টন কেঁচো সার দিলে রাসায়নিক সারের খরচ কমবে ৫ কেজি। এ সারে গাছের অত্যাবশ্যকীয় ১৬টি খাদ্য উপাদানের ১০টিই বিদ্যমান। মানিকের কেঁচো সার বিষয়ে তিনি বলেন, উপজেলায় ১১০টি কৃষক সংগঠন (সিআইজি) আছে। সকল কৃষক এবং বড় বড় প্রতিষ্ঠানগুলোকে মানিকের কেঁচো সার সম্পর্কে অবহিত করা হয়েছে। বর্তমানে এই সার ব্যবহারে কৃষকরাও উপকৃত হচ্ছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email