বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১ ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিক্ষার্থীদের উন্নত জীবনের স্বপ্ন গঠনে উদ্বুদ্ধ করছে খানসামা উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি)

এস.এম.রকি,খানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দক্ষ করার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের উন্নত, যুগোপযোগী ও সৎ জীবনের স্বপ্ন গঠনে উদ্বুদ্ধ করছে দিনাজপুরের খানসামা উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি)।

জানা যায়, উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রাথমিক শিক্ষা  অধিদপ্তরের অধীন পরিচালিত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ধারাবাহিক প্রশিক্ষণ ও একাডেমিক সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে শিক্ষকদের চাকুরিকালীন পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নে উপজেলা ভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান। প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাপনায় ইউআরসি এক নতুন অবকাঠামোগত সংযোজন যা প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নের জন্য কারিগরি ও পেশাগত প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে সমধিক পরিচিত। এর সাথে ইউআরসি শিক্ষার্থীদের শিখনের গুণগতমান উন্নয়ন, শিখন কার্যে গঠনমূলক মূল্যায়ন প্রচলন করা, বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করণের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, ২০০০ সালে খানসামা মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে স্থাপিত হওয়া ইউআরসি এখন প্রশংসনীয় ও কার্যকর একটি প্রতিষ্ঠান। গত ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে এই ইউআরসিতে ইন্সট্রাক্টর হিসেবে মোঃ সাইফুল ইসলাম যোগদানের পর থেকেই বদলে গেছে এটির চিত্র। তিনি আসার পরেই শিক্ষকদেরকে বিষয় ভিত্তিক নিয়মিত প্রশিক্ষণ ও সম্মানী প্রদানের ফলে শিক্ষকদের অভিজ্ঞতা যেমন বেড়েছে তেমনি এই শিক্ষা কাজে লাগিয়ে অনেক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সার্বিক পরিস্থিতি এখন সুনাম ছড়াচ্ছে। ইন্সট্রাক্টর সাইফুল ইসলাম নিয়মিত স্কুল পরিদর্শনের মাধ্যমে যেমন শিক্ষকদেরকে বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দেন সেভাবেই শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদেরকে পড়াশুনা ও উন্নত জীবনের স্বপ্ন গঠন গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দেন।

সরেজমিনে উপজেলা রিসোর্স সেন্টার গিয়ে দেখা যায়, প্রবেশ পথেই ও পশ্চিম দিকে রয়েছে ফুল ও ফলের বাগান। এসব বাগানে অনেক প্রজাতির গাছ রয়েছে। যা এই এলাকার মধ্যে প্রথম রোপণ করা হয়েছে। এর পাশেই রয়েছে আধুনিক পতাকা স্ট্যান্ড আর সাজানো-গোছানো এ ভবনে রয়েছে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যুক্ত হয়েছে সাউন্ড সিস্টেম ও লেকচার টেক্সট।

খানসামা উপজেলা রিসোর্স সেন্টার সূত্রে জানা যায়, এখানে মূল পদ ৪টি থাকলেও বর্তমানে সহকারী ইন্সট্রাক্টর ও ডাটা এন্ট্রি অপারেটর পদটি শূন্য রয়েছে। জনবল সংকটের মধ্যেও ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর সাইফুল ইসলামের কর্ম দক্ষতায় এটি এখন মডেল ইউআরসি হিসেবে গড়ে উঠেছে।

কয়েকজন অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সরকারী দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি ইতিপূর্বে ব্যক্তি উদ্যোগে ইন্সট্রাক্টর সাইফুল ইসলাম শীতবস্ত্র, শিক্ষা উপকরণ ও শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা করেন। তাঁর এসব কাজের মাধ্যমে ইউআরসি এখন অনেকটাই প্রশংসনীয় ভাবে পরিচিত। 

ভাবকী কালিতলা সরকারী বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পলাশ চন্দ্র রায় বলেন, ইউআরসির প্রশিক্ষণ ও ইন্সট্রাক্টর মহোদয়ের পরামর্শে আমরা অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য চেষ্টা করছি। এই চেষ্টায় উদ্বুদ্ধ করেন ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর। ওনার কম স্পৃহা ও আগ্রহের ফলে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অনেক বিষয়েই পরামর্শ পাই। যা ইতিবাচক।

উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টর মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, শিক্ষকদের অভিজ্ঞ ও দক্ষ করে গড়ে তুলতে এবং শিক্ষার্থীদের উন্নত জীবনের স্বপ্ন গঠনে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এই কাজে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ইতিবাচক সাড়া পেয়েছি। আমার এই প্রচেষ্টায় সহযোগিতার জন্য উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও শিক্ষকদেরকে ধন্যবাদ। সকলের পরামর্শ ও সহায়তার ফলে খানসামা ইউআরসি হোক দেশসেরা ইউআরসি সেজন্য সবার স্বদিচ্ছা প্রয়োজন। 

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email