সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২০১৬ সালে ব্যক্তিগত মহাকাশযান

05. Spaceshipযুক্তরাষ্ট্র থেকে ২০১৬ সালে ব্যক্তিগত উদ্যোগে সৌরশক্তি চালিত একটি ছোট মহাকাশযান চালু করা হবে। গত বুধবার দেশটির একটি শীর্ষস্থানীয় মহাকাশবিষয়ক উদ্যোক্তা এ কথা ঘোষণা করে।

গতকাল বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে জানানো হয়, দ্য পস্ন্যানেটারি সোসাইটির এই মহাকাশযানের নাম দেওয়া হয়েছে ‘লাইটসেল’।

সোসাইটির নেতা বিল নাই জানান, মানবহীন এই মহাকাশযানটি ২০১৬ সালে স্পেসএক্স ফ্যালকন হেভি রকেটের মাথায় বসানো হবে। স্যাটেলাইটের মতো দেখতে মহাকাশযানটি এক ফুট (৩০ সেন্টিমিটার) লম্বা। এর চারটি পাতলা পাখা রয়েছে। কেবলমাত্র সৌরশক্তির মাধ্যমে মহাকাশযানটি বিশ্বব্রহ্মান্ডে ভ্রমণ করবে।

বিল বলেন, ‘ভাবতেই চমক লাগে যে মহাকাশযানটি আমাদের এখান থেকে যাত্রা করবে।’

 

পস্ন্যানেটারি সোসাইটির সদস্য ও ব্যক্তিগত দাতা সংস্থাগুলো এই প্রকল্পে তহবিল বরাদ্দ করেছে। পস্ন্যানেটারি সোসাইটিকে বিশ্বের সর্ববৃহৎ মহাকাশ-বিষয়ক গোষ্ঠী হিসেবে পরিচিত। আমেরিকান জ্যোতির্বিজ্ঞানী কার্ল সাগান ১৯৮০ সালে ওএটি প্রতিষ্ঠা করেন।

সোসাইটির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা জেনিফার ভন বলেন, সৌরশক্তি চালিত মহাকাশযান দিয়ে পৃথিবী ও মহাকাশের বিভিন্ন কক্ষপথে পরিভ্রমণ করা যাবে।

কক্ষপথে পৌঁছানোর কয়েক সপ্তাহ পরে হালকা পাখাগুলো আরও বিস্থৃত হবে। এগুলোর আয়তন হবে ৩৪৪ স্কয়ার ফুট বা ৩২ স্কয়ার মিটার। এগুলোকে তখন পৃথিবী থেকে দেখা যাবে।

বিল নাই আরও বলেন, আগামী বছরে ছোট একটি রকেট ব্যবহার করে কক্ষপথে পরীক্ষামূলকভাবে আরেকটি মহাকাশযান যাত্রা করবে।

২০০৫ সালে কসমস-১ নামের একটি সৌরশক্তি চালিত মহাকাশযান পাঠানোর প্রস্থুতি নিয়েছিল পস্ন্যানেটারি সোসাইটি।