শুক্রবার ১২ অগাস্ট ২০২২ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এরপরও দামের উর্দ্ধগতি চালের বাজারে

একরাম তালুকদার, দিনাজপুর : চালের মুল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে দিনাজপুরে খোলা বাজারে চাল ও আটা বিক্রি শুরু হলেও বেড়েই চলেছে চালের দাম। এক সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে প্রতিকেজিতে চালের দাম বেড়েছে ২ থেকে ৩ টাকা। আর বস্তাপ্রতি বেড়েছে ১’শ টাকা থেকে দেড়’শ টাকা। চালের বাজারে উর্দ্ধগতিতে বিপাকে পড়েছে সাধারন ক্রেতারা। বাজারে চালের দাম বৃদ্ধির জন্য ব্যবসায়ীরা দুষছেন মিল মালিকদের। আর মিল মালিকরা বলছেন, বাজারে ধানের সরবরাহ কমে যাওয়ায় বেড়েছে চালের দাম। পাশাপাশি মানুষের খাদ্যাভাস পরিবর্তন এবং চিকন চালের প্রতি আগ্রহ বেড়ে যাওয়ায় চিকন চালের দাম বেড়েছে বলে জানান মিল মালিকরা।
চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে দিনাজপুর জেলার ৯টি পৌর এলাকায় গত ২২ জানুয়ারী থেকে খোলা বাজারে চাল ও আটা বিক্রি শুরু করেছে খাদ্য বিভাগ। দিনাজপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক এস.এম. সাইফুল ইসলাম জানান, দিনাজপুর জেলার ৯টি পৌরসভায় প্রতিদিন মোট ৪০ টন চাল ও ৪০ টন আটা খোলাবাজারে বিক্রি শুরু হয়েছে গত ২২ জানুয়ারী থেকে। প্রতিকেজি চাল ৩০ টাকা এবং আট ১৮ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে। ৯টি পৌরসভার মোট ৪০ জন ডিলারের মাধ্যমে খোলাবাজারে এসব চাল ও আটা বিক্রি কার্যক্রম চলছে।
এদিকে চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে খোলা বাজারে এসব চাল ও আটা বিক্রি শুরু করা হলেও ধানের জেলা দিনাজপুরে আবারও অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে চালের বাজার। এক সপ্তাহের ব্যবধানে আবারও বেড়েছে চালের দাম। বাজারে চালের দামের উর্দ্ধগতিতে বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের ক্রেতারা।
দিনাজপুর শহরের প্রধান চালের বাজার বাহাদুরবাজারে গতকাল শুক্রবার গিয়ে দেখা যায়, এক সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা বাজারে প্রতিকেজি চালের দাম ২ টাকা থেকে ৩ টাকা বেড়েছে। এর মধ্যে বিআর-২৮ জাতের চাল ৫৩ টাকা থেকে বেড়ে ৫৫ টাকা, মিনিকেট চাল ৬০ টাকা থেকে বেড়ে ৬২ টাকা, নাজিরশাইল চাল ৬৮ টাকা থেকে বেড়ে ৭০ টাকা, স্বর্ণা চাল প্রকারভেদে ৪০ টাকা থেকে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৪৩ টাকায়।
এক সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা বাজারে প্রতিবস্তা (৫০ কেজি) চালের দাম বেড়েছে ১’শ টাকা থেকে ১৫০ টাকা, আর পাইকারী বাজারে বেড়েছে ৮০ টাকা থেকে ১’শ টাকা।
বাহাদুরবাজারের পাইকারী চাল বিক্রেতা এরশাদ ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী এরশাদ আলী জানান, এক সপ্তাহের ব্যবধানে পাইকারী বাজারে বস্তাপ্রতি চালের দাম বেড়ে বর্তমানে ৫০ কেজির প্রতিবস্তা গুটিস্বর্ণা ২ হাজার টাকায়, পাইজাম ২ হাজার ২৫০ টাকায়, বিআর-২৯ চাল ২ হাজার ৪’শ টাকায়, বিআর-২৮ চাল ২ হাজার ৭’শ টাকায়, প্রকারভেদে প্রতিবস্তা মিনিকেট ২ হাজার ৮৫০ টাকা থেকে ৩ হাজার ১’শ টাকায়, নাজির শাইল ৩ হাজার ৪’শ টাকায়, সিদ্ধ কাটারী ৫ হাজার ১’শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
তিনি বলেন, মিল মালিকদের কাছ থেকে চাল এনে প্রতিবস্তায় ২০ টাকা থেকে ৩০ টাকা লাভে তারা চাল বিক্রি করে থাকেন। মিল মালিকরা চালের দাম বাড়িয়ে দেয়ায় বাধ্য হয়েই তাদের বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।
তবে মিল মালিকরা বলছেন বাজারে ধানের সরবরাহ কমে যাওয়ায় এবং দাম বেড়ে যাওয়ায় বেড়েছে চালের দাম। দিনাজপুর চালকল মালিক সমিতির সভাপতি মোছাদ্দেক হুসেন জানান, বাজারে ধানের প্রাপ্যতা কমে যাওয়ার কারনেই চালের দাম বেড়েছে। আগামী ২ থেকে আড়াই মাসের মধ্যে ধানের সরবরাহ বেড়ে গেলে চালের দাম সহনীয় পর্যায়ে আসবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষ মোটা চাল খাচ্ছে না। ফলে চিকন চালের উপর চাপ বেড়েছে। এই চাপের কারনেও দাম বেড়েছে। এই চাপ থেকে বের হয়ে আসতে হলে আমাদের খাদ্যাভাস পরিবর্তন করতে হবে এবং চিকন চালের আবাদ বৃদ্ধি করতে হবে। তিনি বলেন, অনেকেই ফুডগ্রেন্ট লাইসেন্স নিয়ে বা লাইসেন্স না নিয়েই খাদ্যশস্য মজুদ করছেন এবং মুল্যবৃদ্ধি হলে তা বাজারে বিক্রি করছেন। এটা যদি আমরা রোধ করতে পারি এবং ব্যাংকগুলো যদি এ ধরনের ব্যবসায়ীকে অর্থ প্রদান না করে তাহলে যারা উৎপাদন ছাড়াই মজুদ করে থাকেন, তারা নিরুৎসাহিত হবেন এবং আমরা ধান-চালের মুল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে পারবো।
উল্লেখ্য, ধানের জেলা দিনাজপুরে প্রতিবছর চাল উৎপাদন হয় ১৪ লাখ মেট্রিক টন এবং এই অঞ্চলের চাহিদা মিটিয়ে প্রায় ৯ লাখ মেট্রিক টন চাল রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ হয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email