শনিবার ২ জুলাই ২০২২ ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২৯ ডিসেম্বর আবারও পরাজিত হবেন খালেদা জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

Hasinaবিরোধীদলীয় নেতা ২৯ ডিসেম্বর আবারও পরাজিত হবেন এমন মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যুদ্ধাপরাধীদের ছাড়া নির্বাচনে আসবে না বলেই বিএনপির এই আন্দোলন। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আনুষ্ঠানিক প্রচারের প্রথম দিনে আজ বৃহস্পতিবার ফরিদপুরের ভাঙ্গা চৌরাস্তা বালুর মাঠে এক নির্বাচনী জনসভায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতু নির্মাণে টাকা দিতে চেয়েছিল, কিন্তু দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ফিরে গেছে। যাদের জন্য পদ্মা সেতুর কাজ ব্যাহত হয়েছে, দুর্নীতিতে যাদের নাম এসেছে, যাদের ভূমিকা নিয়ে দুদকের তদন্ত হচ্ছে তাঁরা ‘আমার আত্মীয়’ হতে পারে না। তাঁরা কোথা থেকে এত টাকা পেয়েছেন সেই প্রশ্ন রাখেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় তিনি বলেন আগামীতে ক্ষমতায় আসলে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করবে তাঁর সরকার।

সকাল নয়টার পরে  প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ফরিদপুরের উদ্দেশে রওনা হন। দুপুর ১২টা ২ মিনিটে তিনি সেখানে বালুর মাঠে জনসভায় উপস্থিত হন। জনসভার শুরুতেই শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি আপনাদের কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চাইতে এসেছি।’

ডিসেম্বর মাসে বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার দেওয়া কর্মসূচি সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, ডিসেম্বর মাস খালেদা জিয়ার পছন্দ না। কারণ এই মাসে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী পরাজিত হয়েছে এবং বাংলাদেশ বিজয়ী হয়েছে। তাই ডিসেম্বর মাসে তিনি আবার আন্দোলন কর্মসূচি দিয়েছেন।

২৯ ডিসেম্বর দেশের মানুষকে ঢাকায় জড়ো হতে খালেদা জিয়ার আহ্বান প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত ৪ মে তিনি (খালেদা জিয়া) ঢাকায় শাপলা চত্বরে সবাইকে জড়ো হতে বলেছিলেন কিন্তু জনগণ সাড়া দেয়নি। এবারও জনগণ সাড়া দেবে না। উনি ২৯ ডিসেম্বর বেছে নিয়েছেন। কারণ ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম সংসদ নির্বাচনে তিনি পরাজিত হয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ জয়ী হয়েছিল। সেই পরাজয়কে স্মরণ করার জন্য ২৯ ডিসেম্বর আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন।

শেখ হাসিনা বলেছেন, আন্দোলনের নামে সাধারণ মানুষ, পুলিশ এমনকি গরুও হত্যা করা হয়েছে। গাছপালা ধ্বংস করে পরিবেশ বিনষ্ট করা হচ্ছে। আমরা আইনের শাসনে বিশ্বাসী। একাত্তরে যারা যুদ্ধাপরাধ করেছে তাদের আমরা বিচারের সম্মুখীন করেছি। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার করেছি। বিডিআর হত্যাকাণ্ডের বিচার করেছি। আগামীতে আন্দোলনের নামে এই মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করা, খুন করার দায়ে হুকুমের আসামি হিসেবে খালেদা জিয়ার বিচার করা হবে।

এই জনসভায় ফরিদপুর- ৪ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজী জাফর উল্লাহ, শ্রম ও প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নৌপরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান বক্তব্য রাখেন।

এ ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী আজ মুকসুদপুরে, সদরপুর স্টেডিয়ামে আওয়ামী লীগ আয়োজিত নির্বাচনী জনসভায় বক্তব্য দেবেন।

এরপর শেখ হাসিনা তাঁর নিজ নির্বাচনী এলাকা টুঙ্গিপাড়ার জিটি সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন। দিনের কর্মসূচি শেষে আজ টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু ভবনে রাত্রিযাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

পরদিন সকাল ১০টায় নির্বাচনী এলাকা কোটালীপাড়া শহীদ মিনার চত্বরে কর্মীসভায় ভাষণ দেবেন শেখ হাসিনা। ফেরার পথে মুন্সিগঞ্জের লৌহজং কলেজ মাঠ ও শ্রীনগর স্টেডিয়াম মাঠে আওয়ামী লীগ আয়োজিত দুটি আলাদা জনসভায় তাঁর ভাষণ দেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email