বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চা পাতার ন্যায্যমূল্যের দাবিতে পঞ্চগড়ে চাষিদের বিক্ষোভ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি : দেশের তৃতীয় বৃহৎ চা অঞ্চল হিসেবে পরিচিত পেয়েছে পঞ্চগড়ের সমতলের চা। কিন্তু যে আশা নিয়ে এখানকার প্রান্তিক ক্ষুদ্র চাষিরা চা আবাদ করেছেন তাদের সেই আশা ধুলোয় মিশে যাচ্ছে। চা পাতা তুলে বিক্রি করতে গিয়ে তারা পড়ছেন নানান বিড়ম্বনায়। তেঁতুলিয়াসহ পঞ্চগড়ের চা প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানাগুলো সিন্ডিকেট করে কাঁচা চা পাতার মূল্য নির্ধারণ করছে। সেই সাথে কারখানায় বিক্রি করতে আনা কাঁচা চা পাতার ওজন থেকে শতকরা ২০-২৫ ভাগ কর্তন করে রাখছে। এতে করে লোকসানের মুখে পড়েছেন ক্ষুদ্র চা চাষিরা।

চলতি বছর চা পাতা তোলার মৌসুম শুরুর পর থেকে চা কারখানাগুলো প্রতিকেজি কাঁচা চা পাতা ২০-২২ টাকা দরে ক্রয় করলেও এখন তারা ১২-১৩ টাকা দরেও কিনছে না। এতে করে বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে ক্ষুদ্র চা চাষিরা।

বুধবার (১১ মে) বিকেলে তেঁতুলিয়া উপজেলার চৌরাস্তা বাজারের তেঁতুলতলায় পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়কে কাঁচা চা পাতা ন্যায্যমূল্যের দাবিতে বিক্ষোভ করেন চা চাষিরা।

বিক্ষোভ সমাবেশে তেঁতুলিয়া উপজেলার চা চাষি আহসান হাবিবের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ তারিন, পঞ্চগড় জেলা কৃষকলীগ সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক অ্যাডভোকেট আজিজার রহমান আজু, পঞ্চগড় জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য মাসুদ করিম, স্থানীয় ক্ষুদ্র চা চাষি সাদ্দাম হোসেন, আবু হানিফ, কবির হোসেন, আব্দুল মতিন, আব্দুল হাকিম প্রমুখ।

কর্মসূচিতে তেঁতুলিয়া উপজেলার কয়েকশ ক্ষুদ্র চা চাষি অংশ নেন। বক্তারা বলেন, অকশন মার্কেটে চায়ের ভাল দাম থাকলেও চা কারখানা মালিকরা সিন্ডিকেট করে কাঁচা চা পাতা কিনছে। মৌসুমের শুরুতে কারখানা মালিকরা প্রতিযোগিতা করে প্রতিকেজি চা পাতা ২০-২২ টাকা দরে কিনতে শুরু করে। কিন্তু কিছুদিন না যেতেই তারা সিন্ডিকেট করে পাতার দাম কমাতে থাকে। বর্তমানে তারা ১২-১৩ টাকা কেজি দরেও চা পাতা কিনছে না। উপরন্তু কারখানায় বিক্রয়ের জন্য আনা কাঁচা চা পাতার ওজন থেকে তারা শতকরা ২০-২২ ভাগ কর্তন করছে। এতে করে চা চাষিদের কাঁচা চা পাতার দাম পড়ছে ১০-১১ টাকায়। অথচ প্রতিকেজি কাঁচা চা পাতার উৎপাদন খরচ পড়ে ১৫-১৬ টাকা।

বক্তারা আরও বলেন, পঞ্চগড়ের একমাত্র ভারী শিল্প কারখানা পঞ্চগড় চিনিকল বন্ধ হয়ে গেছে। একইভাবে এই সিন্ডিকেট পঞ্চগড়ের চা শিল্পকে ধ্বংসের পাঁয়তারা করছে। তারা অবিলম্বে চা চাষিদের উৎপাদিত কাঁচা চা পাতার ন্যায্যমূল্য দেওয়ার দাবি জানান। তা না হলে বৃহত্তর আন্দোলনের মাধ্যমে চা চাষিদের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করা বলে হুঁশিয়ারি দেন।

বাংলাদেশ চা বোর্ড পঞ্চগড় আঞ্চলিক অফিসের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও নর্দান বাংলাদেশ প্রকল্পের পরিচালক ড. মোহাম্মদ শামীম আল মামুন বলেন, চলতি বছরের জন্য নতুন করে কাঁচা চা পাতার মূল্য নির্ধারণ করা হয়নি। গত বছরের সর্বশেষ সভার সিদ্ধান্তে প্রতিকেজি কাঁচা চা পাতার মূল্য ছিল ১৫.৫০ টাকা। নতুন করে মূল্য নির্ধারণ না হওয়ায় আগের মূল্যই বিদ্যমান রয়েছে। চলতি বছরের শুরুতে চা কারখানা মালিকরা প্রতিকেজি কাঁচা চা পাতা ২০-২২ টাকা দরে ক্রয় শুরু করে। নতুন করে চা পাতার মূল্য নির্ধারণ করলে চা চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এ কারণে নতুন করে মূল্য নির্ধারণ করা হয়নি।

কারখানায় আনা কাঁচা চা পাতার ওজনের ২০-২৫ ভাগ কর্তন করা হচ্ছে’ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ বিষয়ে কেউ আমাদের অভিযোগ করেনি। প্রমাণ দিয়ে কেউ অভিযোগ করলে আমরা বটলিফ কমিটির সাথে আলোচনা করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email