মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১ ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মতিউর রহমান : সাংবাদিকতায় ৫৩ বছর

বর্তমান সময়ে দিনাজপুর জেলায় যারা সাংবাদিকতা করছেন তাদের অন্যতম মতিউর রহমান। তিনি বাংলাদেশের প্রাচীন ও পাঠক নন্দিত সংবাদপত্র দৈনিক ইত্তেফাকের ষ্টাফ রিপোর্টার, সরকারি স্যাটেলাইট বিটিভি’র রিপোর্টার এবং দিনাজপুরের অন্যতম জনপ্রিয় সংবাদপত্র দৈনিক উত্তর বাংলা’র সম্পাদক ও প্রকাশক। রয়টার্স ইন্টারন্যাশনাল নিউজ এজেন্সি (লন্ডন)সহ আন্তর্জাতিক জনপ্রিয় বেশ কিছু গণমাধ্যমে কাজ করেছেন তিনি।
পিতার হাত ধরে সাংবাদিকতায় আসা মতিউর রহমানের। পিতা মরহুম নুরুল আমিন ছিলেন কবি ও সাংবাদিক। যখন-তখন ছন্দবদ্ধ কবিতা লিখতে পারতেন বলে স্বভাব-কবি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিলেন। কাব্য রচনার পাশাপাশি সাংবাদিকতাও করতেন তিনি। দৈনিক ইত্তেফাকের সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করেছেন ষাট ও সত্তরের দশকে। সাংবাদিক ও কবি, এই দুই পরিচিতিতেই দেশের বিভিন্ন স্থানে যেতে হতো তাঁকে। কবিতার আসরে স্বরচিত কবিতা পাঠ করতেন, আর সাংবাদিক সমাবেশে বক্তৃতা দিতেন। বাবা যেখানে যেতেন, সেখানে যেতেন তিনিও। বাবার সাথে ঘুরতে ঘুরতেই সাংবাদিকতায় হাতেখড়ি হয়েছে তার।
বাবার দেখা, বাবার কাছ থেকে শেখা এবং বাবার কাছ থেকে পাওয়া সাংবাদিকতার নেশায় সৃষ্ট আমাদের আজকের কিংবদন্তী মতিউর রহমান। আজকের পর্যায়ে আসতে তাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে। নিরবিচ্ছিন্ন অধ্যাবসায়, নিষ্ঠা আর বিচিত্র অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ হতে হয়েছে। এখন মননশীল এক বিশেষ ব্যক্তিত্ব সাংবাদিক মতিউর রহমান। তাঁর সাংবাদিকতার সূচনা হয়েছে স্থানীয় মাধ্যমে, কিন্তু কালোত্তীর্ণ হয়েছেন আন্তর্জাতিকতায়। পেয়েছেন যশ আর খ্যাতি। অসংখ্য সম্মাননা, অ্যাওয়ার্ড, পদক আর পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন স্থানীয় হতে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে।
অথচ এই মতিউর রহমানকে টোকাই ভেবে একটি সৃজনশীল অনুষ্ঠান থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা হয়েছিল তার ছোট বেলায়। তখন তিনি জিলা স্কুলের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র। দিনাজপুরের প্রখ্যাত হেমায়েত আলী (তখন নাজিমুদ্দীন) মুসলিম হল ও পাবলিক লাইব্রেরিতে শিশু পাঠাগার উদ্বোধনের একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। সেই অনুষ্ঠানে আসবেন প্রখ্যাত কবি সুফিয়া কামাল ও শিশু সাহিত্যিক জোবেদা খানম। অনুষ্ঠান শুরুর অনেক আগেই সেখানে এসে বসে ছিলেন জিলা স্কুলের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র মতিউর। কিন্তু তার গায়ের পোশাকগুলো কেমন যেন। বিশেষ করে আমের কষ লাগানো রিলিফের আমেরিকান গেঞ্জিটি বড়ই বেমানান লাগছিল। মতিউরসহ স্কুলের সকল ছাত্রকে এই রকম গেঞ্জি তৎকালিন ডিসি দিয়েছিলেন আমেরিকার পাঠানো রিলিফ হিসেবে। কিন্তু গেঞ্জিটি আমের কষ লেগে বিশ্রি রং ধারণ করায় তাকে টোকাইয়ের মত দেখাচ্ছিল। তাই লাইব্রেরিয়ান আবুল কালাম আজাদ টোকাই সদৃশ্য মতিউরকে অনুষ্ঠানস্থল হতে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন। তিনি মতিউরের হাত ধরে পার্শবর্তী বাসষ্ট্যান্ডে (বর্তমান লোকভবন চত্বর তখন বাসষ্ট্যান্ড ছিল) নিয়ে যান এবং দুই-তিনটি চকলেট হাতে ধরিয়ে দিয়ে “বাবারে, এখান থেকে বাড়ি চলে যাও” বলে লাইব্রেরিতে ফিরে আসেন। কিন্তু এর পরে পরেই মতিউর আবার অনুষ্ঠানস্থলে গিয়ে লোকজনের পায়ের ফাঁকে ফাঁকে দর্শকসাড়ির সামনের দিকে এসে পড়ে যান।
ততক্ষণে অনুষ্ঠান শুরু না হলেও প্রধান অতিথি কবি সুফিয়া কামাল ও বিশেষ অতিথি জোবেদা খানম এসে দর্শক সারির সামনের আসনে বসে পড়েছিলেন। মতিউর তাদের সামনেই পড়ে গেলে সুফিয়া কামাল তাকে টেনে তোলেন। তিনি জিজ্ঞাসা করেন তোমার নাম কি, তোমার বাবার নাম কি? ইত্যাদি। স্বভাব কবি নুরুল আমিনের ছেলে জানার পর তিনি তাকে পাশে বসিয়ে নেন। ততক্ষণে বাবা কবি নুরুল আমিনও সেখানে এসে হাজির হন আর বলেন, আমি ছেলেটাকে বার বার আসিস না আসিস না বলে নিষেধ করলাম, কিন্তু ছেলেটা শুনল না।
বাবা যেখানে যেতেন, বাবার ব্যাগ হাতে মতিউর চলতেন পিছু পিছু। তিনি গিয়েছেন সিরাজগঞ্জের সাংবাদিক সমাবেশে। তদানিন্তন তথ্য মন্ত্রী ফকির শাহাবউদ্দিন উপস্থিত ছিলেন সেই সমাবেশে। রাজশাহীতে সাংবাদিক সমাবেশ হয়েছিল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ভবনে। মতিউর বাবার সাথে ছুটে যান সেই সমাবেশে। সেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন তদানিন্তন পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি জাস্টিস কাইয়ানী। ফরিদপুরেও সাংবাদিক সমাবেশ হয়েছিল। মতিউর সেখানেও ছুটে গিয়েছিলেন। সেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী। আরেকটি সাংবাদিক সমাবেশ হয়েছিল ময়মনসিংহে। সেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন তখনকার প্রধান বিচারপতি মাহবুব মোরশেদ। শুধু তাই নয়, নারায়ণগঞ্জের একটি ক্লাবে ১৯৭৩ সালে অনুষ্ঠিত এক সাংবাদিক সমাবেশে পিতার হাত ধরে উপস্থিত হয়েছিলেন মতিউর। সেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন তদানিন্তন তথ্যমন্ত্রী ও পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী মিজানুর রহমান চৌধুরী। এ সকল সম্মেলনে দিনাজপুরের কয়েকজন প্রতিথযশা সাংবাদিক হেমায়েত আলী টিকে, ঐতিহাসিক মেহরাব আলী, গাজী সোলায়মান আলী, মাসুমা খাতুন ও আ হ ম আব্দুল বারী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
বাবার আদর্শ, সঙ্গ, দর্শন ভাল লাগত মতিউরের। বাবার সাথে সাথে তার মধ্যেও জেগে উঠত ছড়া-কবিতা লেখা ও সাংবাদিকতার নেশা। স্কুল বয়সে ছড়া লিখলেন ‘লেংটে মামার বিয়ে।’ ১৯৬৪ সালে রেডিও পাকিস্তান এই ছড়া প্রচার করে। প্রচুর সুনাম অর্জন করেন তিনি।
মতিউর রহমান ১৯৬৮ সালে চলচ্চিত্র বিষয়ক বিনোদন পত্রিকা সাপ্তাহিক পূর্বানীতে সাংস্কৃতিক খবরা-খবর লিখতেন। একই সময়ে তিনি দিনাজপুর হতে প্রকাশিত সাপ্তাহিক উত্তরার ষ্টাফ রিপোর্টার ছিলেন। ১৯৭২ সালের ২৩ জুন ইত্তেফাকের বৃহত্তর দিনাজপুর ও রংপুর জেলার “বিশেষ সাংবাদদাতার” দায়িত্ব লাভ করেন। পিতা নুরুল আমিন যেহেতু উত্তেফাকের জেলা প্রতিনিধি ছিলেন, সেই কারণে মতিউরকে ষ্টাফ রিপোর্টারের মর্যাদায় বিশেষ সংবাদদাতা করা হয়েছিল। এ প্রসঙ্গে তিনি ইত্তেফাকের প্রতিষ্ঠাতা তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন যে, মানিক মিয়া তাকে বলেছিলেন, “তোমার বাবার (নুরুল আমিন) বয়স হয়েছে, আগের মত যেখানে-সেখানে যেতে পারবেন না, কিন্তু তাকে বাদ দেয়াও হবে না। তিনি তার মত করে যা পারবেন খবরা-খবর পাঠালে পাঠাবেন। তবে মূল কাজ তোমাকেই করতে হবে।” এভাবেই ছোট পরিসর হতে বৃহৎ পরিসরের সাংবাদিকতায় আসেন মতিউর।
মতিউর রহমান বিভিন্ন সময়ে দৈনিক উত্তরার চীফ রিপোর্টার, সাপ্তাহিক কাঞ্চন ও সাপ্তাহিক পুনর্ভবার বার্তা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন আসছেন। তিনি বিপিআই ও বাসস এর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছেন। ২৩ জুন ১৯৭২ থেকে দৈনিক ইত্তেফাকে বৃহত্তর দিনাজপুর ও রংপুর জেলায় বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সাংবাদিকতা করাকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্র বিজ্ঞানে এমএ এবং পরবর্তীতে ঢাকা সেন্ট্রাল ল-কলেজে এলএলবি পড়েছেন।
মতিউর রহমান ১৯৮২ সাল হতে বিটিভির জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছেন। এছাড়া আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা ‘রয়টার্স ইন্টারন্যাশনাল নিউজ এজেন্সি’ (ইউ.কে লন্ডন) এর উত্তরবঙ্গ প্রতিনিধি, ইংরেজী দৈনিক দি নিউনেশন এর জন্মলগ্ন থেকে স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে কাজ করেছেন। নিজের সম্পাদনায় নারায়নগঞ্জ থেকে দৈনিক শীতলক্ষা এবং দিনাজপুর থেকে দৈনিক উত্তরবাংলা প্রকাশ করেন। দৈনিক উত্তর বাংলা প্রকাশ করেন ১৯৮৯ সালের ২৩ জুন। দৈনিক শীতলক্ষা প্রকাশ করেন ১৯৯৬ সালের ১৫ আগষ্ট। একই সাথে সমান তালেই প্রকাশ করে যাচ্ছেন দুইটি পত্রিকা। এভাবে গণমাধ্যমে নিজের অবস্থান পাকাপোক্ত করার পাশাপাশি অবদান রেখে যাচ্ছেন সমাজ সেবায়।

১৯৮৯ সালের ২৩ জুন দৈনিক উত্তর বাংলার প্রকাশনা অনুষ্ঠানে তৎকালিন সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী রেজওয়ানুল হক চৌধুরী, স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠক অধ্যাপক ইউসুফ আলী, জেলা পরিষদ চেয়াম্যান মখলেছুর রহমান, এডিসি (সার্বিবক) মশিউর রহমান ও দৈনিক উত্তর বাংলার প্রকাশক-সম্পাদক মতিউর রহমান।

তিনি রুরাল কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন-আরসিডিএ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ দিনাজপুর জেলা কমান্ডের সহকারী তথ্য ও গবেষণা কমান্ডার, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পুনর্বাসন সোসাইটি দিনাজপুর এর জেলা ডেপুটি কমান্ডার, পাহাড়পুর-চাউলিয়াপট্টি মিলনায়তন সমিতি এর সভাপতি, সাংস্কৃতিক সংগঠন দিগন্ত শিল্পী গোষ্ঠীর সভাপতি ছিলেন, জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমিতি-নাসিব দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের পরিচালক, বাংলাদেশ টেলিভিশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ছিলেন, ইত্তেফাক সংবাদদাতা সমিতির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি, বীরগঞ্জের কবি নুরুল আমীন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এবং কাশীপুর জামে মসজিদের সভাপতি তিনি। এছাড়াও হাফিজা বেগম হাফিজিয়া মাদ্রাসারও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং পাক-পাহাড়পুর জামে মসজিদের সহ-সভাপতি, এছাড়া তিনি বাংলাদেশ রেডক্রস ও রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির আজীবন সদস্য এবং বাংলাদেশ ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন, দিনাজপুর শাখার বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট। সাংবাদিক মতিউর রহমান ৫ম সার্ক সম্মেলনে বাংলাদেশ মিডিয়া টীমের প্রধান হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। সেই সময় তিনি সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নেওয়াজ শরিফ, নেপালের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী কৈরালা, ভূটানের রাজা জীগমে সিগমে, মালদ্বীপের এর প্রেসিডেন্ট মামুন আব্দুল গাইয়ুম, শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট শ্রীমাভো বন্দর নায়েকে ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী চন্দ্র শেখরসহ আরো অনেক বিখ্যাত ব্যক্তির। ভারতের ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক ভেংকট নারায়ন এর সঙ্গেঁ তার বন্ধুত্ব গড়ে উঠে ঐ সম্মেলনে। অসংখ্যবার ভারত ভ্রমণের সুবাদে নামী দামী অনেক সাংবাদিকের সাথে তার যোগাযোগ গড়ে উঠেছে। সেই সাথে সাংবাদিকতায় অসংখ্য পুরস্কার, অ্যাওয়ার্ডস, সম্মাননা লাভ করেছেন।
আধুনিক সাংবাদিকতায় অবদান রাখার জন্য ‘অল ইন্ডিয়া রাইটার্স এওয়ার্ড-৯৩, সম্প্রদায়িক সম্প্রীতির জন্য পদ্মা গংগা এওয়ার্ড-৯৩ সহ মাতূঙ্গিনি পুরুস্কার-৯৮, উত্তরন এওয়ার্ড-৯৪, ১৯শে ভাষা শহীদ স্মারক পদক-২০০৪, সুকান্ত পদক-৯৫, উত্তরবঙ্গ নাট্য জগৎ শ্রেষ্ঠ সংগঠক-৮৯ লাভ করেন। এইসব পদক, অ্যাওয়ার্ড কলকাতায়, শিলিগুঁড়ির দীনবন্ধু মঞ্চে আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে হস্তান্তর করা হয়। তিনি ১৯৯৫ সালে আমেরিকান বায়োগ্রাফিক্যাল রিসার্চ এসোসিয়েশন কর্তৃক শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব হিসেবে ‘ডেপুটি গভর্নর’ নিযুক্ত (আজীবন) হয়েছেন।
মতিউর রহমান বাংলাদেশ সরকারের গেজেটভুক্ত একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাও। তিনি জানান, মুক্তিযুদ্ধের একটি পর্যায়ে তিনি পাকিস্তানি হানাদার ও তাদের দোসরদের হাতে ধরা পড়েন এবং তাকে কারাগারে রাখা হয়। কারাগারে থাকা অবস্থায় তিনি প্রতিজ্ঞা করেছিলেন যে, দেশ স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত দাড়ি কাটবেন না এবং বিয়ে করলে ০৭/০৭/১৯৭৭ ইং তারিখে করবেন। মতিউর রহমানের ভাষ্যনুযায়ী তিনি তার প্রতিজ্ঞা মোতাবেক বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরেই দাড়ি সেভ করেন এবং ১৯৭৭ সালের ৭ জুন নারায়নগঞ্জের নুরল ইসলামের কন্যা জিনাত রহমানের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। স্ত্রী জিনাত রহমান একজন মানবাধিকার কর্মী ও লেখিকা এবং দৈনিক উত্তরবাংলার নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।
দুষ্টুমি ও মেধা দুটোই ছিল মতিউরের। তৈলচিত্র অংকনে সিদ্ধহস্ত ছিলেন। তৈলচিত্রে ১৯৬৮ সালে তৎকালীন বৃহত্তর দিনাজপুর জেলা পর্যায়ে ১ম স্থান লাভ করেছিলেন। স্কাউটিংয়েও সুনাম কুড়িয়েছিলেন। ১৯৬৪ সালে ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খান বিমান যোগে ঠাকুরগাঁওয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় আসেন। সেই সময় জিলা স্কুলের ২৪ জন ক্যাডেট ঠাকুরগাঁও বিমান বন্দরে গিয়ে আইয়ুব খানকে গার্ড অব অনার প্রদর্শন করেন। বর্তমান সময়ের ওয়ার্কার্স পার্টির প্রখ্যাত নেতা মাহমুদুল হাসান মানিক সেই ২৪ সদস্য বিশিষ্ট ক্যাডেট দলের ক্যাডেট ক্যাপ্টেন ছিলেন। আর মতিউর রহমান ছিলেন সেই দলের একজন সদস্য। সেই সময় আইয়ুব খান মতিউর রহমানসহ ক্যাডেট দলের সকলের সাথে হ্যান্ডশেক করেন। এত অল্প বয়সে একজন রাষ্ট্রপতি ও সামরিক প্রধানের সাথে হাত মেলাতে পারাটা তখন বেশ গৌরবজনক ছিল।
মতিউর রহমান গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহিদ সোহরাওয়ার্দী ও আওয়ামী লীগ নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে ১৯৬২ সালে হ্যান্ডশেক করার সুযোগ পেয়েছিলেন। ১৯৬২ সালের এই দুই নেতা দিনাজপুরে এসেছিলেন সেই সময় অনুষ্ঠেয় নির্বাচনী প্রচারনায়। সেই সময় অল্প বয়সে তাঁদের সাথে হ্যান্ডশেক করতে পারার ঘটনাকে তিনি তার জীবনের একটি গৌরবজনক বলে মনে করেন।
সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে ১৯৭৪ সালে দিনাজপুরের লিলি সিনেমা হলে সংঘটিত ট্র্যাজেডি’র ঘটনা সংক্রান্ত খবরগুলোকে তার জীবনের মাইলষ্টোন বলে মনে করেন মতিউর রহমান। তৎকালীন মেজর ফারুক খান (পরবর্তীতে কর্ণেল ও মন্ত্রী) এর নেতৃত্বাধীন সেনাবাহিনীর কিছু সদস্য সেই সময় লিলি সিনেমা হলের দর্শকদের উপর এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ১৫-১৬ জনকে হত্যা করেছিল। সেই ঘটনার ছবি এবং খবর পরিবেশন করে আলোচিত সাংবাদিক হয়ে উঠেন মতিউর। তার পরিবেশিত খবর জাতীয় মাধ্যম পার হয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসি ও ভয়েস অব আমেরিকায় স্থান পেয়েছিল। বিবিসি সেই সময় তার ভয়েস প্রচার করেছিল যা তখনকার সাংবাদিকতায় তার জন্য এক নতুন মাইলষ্টোন ছিল। তিনি ঢাকায় তার আপন ভগ্নীপতির অফিসে বসে টিভির মাধ্যমে বাংলাদেশ টেলিভিশনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখেছিলেন। বাংলাদেশ ব্যাংক ও কমলাপুর রেল ষ্টেশনের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপনের অনুষ্ঠানও নিজ চোখে দেখেছেন বলে জানান এবং এগুলোকে জীবনের গৌরবজনক অধ্যায় বলে মনে করেন।
সাংবাদিকতার ৫৩ বছরের দীর্ঘ কর্মময় জীবনে তিনি পাকিস্তান, মালদ্বীপ, শ্রীলংকা, ভূটান, নেপাল, সিংগাপুর, জাপান ও ভারত সফর করেছেন। তাদের দুই সন্তানের মধ্যে ছেলে মাহফুজুর রহমান সোহাগ বর্তমানে স্থাপত্য প্রকৌশলী এবং মেয়ে মাহফুজা রহমান সোহাগী বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল আরটিভি’র শীফট নিউজ এডিটর হিসেবে কর্মরত।
মতিউর রহমানের মায়ের নাম হাফিজা বেগম। তিনি ৮ পুত্র ও ৪ কন্যা সন্তাানের জননী ছিলেন। ১২ ভাই-বোনের মধ্যে মতিউর হলেন ৭ম। তিনি ১৯৬৯ সালে জেলা স্কুল হতে এসএসসি, ১৯৭২ সালে দিনাজপুর সরকারি কলেজ হতে এইচএসসি, ১৯৭৫ সালে ডিগ্রী এবং ১৯৭৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এমএ করেন। ঢাকা সেন্ট্রাল ল কলেজ হতে এলএলবি পাশ করলেও শেষ পর্যন্ত সাংবাদিকতাকেই পেশা হিসেবে বেছে নেন। দিনাজপুরের সাংবাদিকতার জগতে এখন এক জীবন্ত কিংবদন্তী মতিউর রহমান, যা সাংবাদিকতায় দীর্ঘ ৫৩ বছরের পথচলায় অর্জন করেছেন।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল
সাংবাদিক, কলামিস্ট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক লেখক-গবেষক

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email