রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

৬ দফা চুক্তি বাস্তবায়নে ফুলবাড়ীতে হরতালের ডাক

মোঃ মেহেদী হাসান, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ছয় দফা চুক্তি বাস্তবায়নের দাবীতে হরতালসহ নতুন কর্মসূচি ঘোষলা করা হয়েছে।

২৬শে আগস্ট ফুলবাড়ী ্ট্রাজেডী দিবস পালনে তেল, গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি ফুলবাড়ী শাখা ও কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দরা সম্মিলিত ও পৃথক পৃথক ভাবে দিবসটি পালন করেন। সকাল ৮টা ১মিনিটে জাতীয় শোক পতাকা উত্তোলন, সকাল ৮ টা ৩০মিনিটে কালো ব্যাচ ধারণ, সকাল ১০টা শোক র‌্যালী ও ফুলবাড়ী শহর প্রদক্ষিণ, সকাল ১০টা ৩০মিনিটে শহীদ বেদীতে পুষ্প মাল্য অর্পণ, সকাল ১১টা ০১ মিনিটে নিমতলা মোড়ে স্মরণ সভা ও সমাবেশ, বিকেলে মসজিদ, মন্দির ও গীর্জায় দোয়া ও প্রার্থনা পৃথক পৃথক ভাবে অনুষ্ঠিত হয়।

দিনটি পালনে তেল-গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি ও ফুলবাড়ী বাসীর পক্ষ থেকে ফুলবাড়ী সম্মিলিত পেশাজীবী সংগঠনের ব্যানারে পৃথক কর্মসূচী পালন করা হয়েছে।

কর্মসূচি অনুয়ায়ী সেপ্টেম্বরের ৩০ তারিখের মধ্যে ৬ দফা চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন না হলে, অক্টোবরের প্রথম থেকে ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত ৪টি উপজেলা, ইউনিয়নগুলোতে প্রতিবাদী সমাবেশ, বিক্ষোভ মিছিল, পথসভা ও গ্রাম কমিটি গঠন করা হবে। ২৫ অক্টোবর উপজেলা ঘেরাও ও উপজেলা পরিষদে অবস্থান ধর্মঘট, এরমধ্যেও দাবি আদায় না হলে ২১ নভেম্বর ফুলবাড়ীর লোকজনকে নিয়ে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান ও অবস্থান ধর্মঘট। ২১ ডিসেম্বর ফুলবাড়ীতে অর্ধদিবস হরতাল এবং ওইদিন আগামী দিনে নতুন কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে।

ফুলবাড়ী ট্রাজেডী দিবসে তেল-গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সমাবেশে কমিটির পক্ষ থেকে ফুলবাড়ী শাখার আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাFulbari -07ম জুয়েল এই কর্মসূচী ঘোষণা করেন।

এদিকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে এবং কালোব্যাচ ধারন, শোক র‌্যালী, শহীদ স্মৃতি সৌধে পুষ্পার্ঘ অর্পনের মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে ফুলবাড়ী ট্রাজেডির ১০ম বার্ষিকী।

সকাল ১০ টায় নিমতলা মোড় থেকে একটি শোকর‌্যালী বের করে তেল-গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির নেতাকর্মীরা। র‌্যালীটি শহরের ঢাকা মোড় দিয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শহীদ বেদীতে পুস্পমাল্য অর্পন করেন। পরে সকাল ১১ টা থেকে নিমতলা মোড়ে একটি প্রতিবাদ সভা করেন।

র‌্যালী ও সমাবেশে অংশগ্রহন করেন কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ, জ্বালানী কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান বিডি রহমতউল্লাহ, সিপিবি’র কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য শাহাদৎ হোসেন, গণফ্রন্টের কেন্দ্রীয় নেতা টিপু বিশ্বাস, কমিউনিষ্ট লীগের মোশাররফ হোসেন নান্নু, বাসদের কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক বজলুর রশিদ ফিরোজ, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি সাইফুল হক, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী ফ্রন্ট সভাপতি মোসরেকা মিশু,Fulbari -06 গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েত সাকি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক তানজিম উদ্দিন, সিপিবি’র কেন্দ্রীয় নেতা নুর আহমেদ বকুল প্রমুখ।

শোকর‌্যালী বের করার আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন কমিটির কেন্দ্রীয় সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ। এ সময় তিনি বলেন, ১০ বছর আগে যে গণঅভ্যুত্থান হয়েছিল সেই সময়ে বিএনপি-জামায়াতের চুক্তি হয়েছিল তা এখনও বাস্তবায়ন করা হয়নি। বরং এখন চুক্তি ভঙ্গ করে বিভিন্ন অপকর্মকান্ড চালানো হচ্ছে। মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, এশিয়া এনার্জিকে দেশ থেকে বহিস্কার, উন্মুক্ত পদ্ধতিকে কয়লা খনি নিষিদ্ধ করাসহ বিভিন্ন দাবি দাওয়ার প্রেক্ষিতে তারা এক দশক পূর্তি পালন করছেন। দাবি বাস্তবায়নের জন্য দালালদের অপতৎপরতা, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, এশিয়া এনার্জিকে বহিস্কারের ঘোষণা না হলে নতুন করে আন্দোলন কর্মসূচীতে যাওয়া ছাড়া কোন উপায় নাই। পাশাপাশি অবিলম্বে ফুলবাড়ী চুক্তি Fulbari 3বাস্তবায়নের জন্য সরকারের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

এদিকে সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে ফুলবাড়ী বাজার থেকে সম্মিলিত পেশাজীবী সংগঠনের ব্যানারে শোকর‌্যালী বের করে ফুলবাড়ীবাসী। র‌্যালীটি শহরের ঢাকা মোড় হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ২০০৬ সালের নিহতদের শহীদ স্মৃতিস্তমে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শহীদ বেদীতে পুস্পমাল্য অর্পন করেন তারা। এ সময় ফুলবাড়ী রক্ষার জন্য শপথবাক্য পাঠ করানো হয়। পরে পার্বতীপুরের বর্ণমালা স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক ও করতোয়ার সাংবাদিক শেখ সাব্বির আলীর সভাপতিতে উর্বশী সিনেমা হলের সামনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ফুলবাড়ী পেশাজীবি সংগঠনের আহব্বায়ক পৌর মেয়র মোঃ মানিক সরকার। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পৌর কাউন্সিলার মোঃ ময়েজ উদ্দিন,ফুলবাড়ী ইলেক্ট্রিক সমিতির সভাপতি মোঃ ফারুখ আহম্মেদ প্রমুখ।

এছাড়াও দিনাজপুর জেলার হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন ২৭১২ রেজিঃ সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান এর নেতৃত্বে  শোক র‌্যালী বের হয় র‌্যালীতে অংশনেন সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মোঃ বকুল হোসেন,সাংগঠনিক সম্পাদক শ্রী রতি রায় প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালের এই Fulbari  2দিনে উন্মুক্ত পদ্ধতিতে কয়লা খনি প্রকল্প বাতিল, জাতীয় সম্পদ রক্ষা এবং বিদেশী কোম্পানী এশিয়া এনার্জীকে ফুলবাড়ী থেকে প্রত্যাহারের দাবীতে সকাল থেকেই ফুলবাড়ীর ঢাকা মোড়ে ফুলবাড়ী, বিরামপুর, নবাবগঞ্জ ও পার্বতীপুর উপজেলার হাজার হাজার মানুষ জমায়েত হতে থাকে। দুপুর ২টার দিকে তেল, গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয়  কমিটি ও ফুলবাড়ী রক্ষা কমিটির নেতৃত্বে বিশাল প্রতিবাদ মিছিল নিমতলা মোড়ের দিকে এগুতে থাকলে প্রথমে পুলিশ বাধা প্রদান করে। পুলিশের বাধা পেয়ে বিশাল মিছিলটি জঙ্গী রূপ নেয়। পুলিশ-বিডিআর-এর বেড়িকেট ভেঙ্গে মিছিলটি এগুতে থাকলে আন্দোলনকারীদের উপর টিয়ার Fulbari 4সেল, রাবার বুলেট ও নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করা হয়। বিডিআরের গুলিতে এসময় নিহত হয় আল আমিন, সালেকীন ও তরিকুল। আহত হয় ৩ শতাধিক আন্দোলনকারী জনতা। আহতদের মধ্যে অনেকেই পঙ্গুত্ব বরন করেছে। ঘটনার ওই দিনই ফুলবাড়ীতে অবস্থিত এশিয়া এনার্জির অফিস ভাংচুর করে বিক্ষুব্ধ জনতা। পাশাপাশি শুরু করে লাগাতার হরতাল। এতে করে বন্ধ হয়ে যায় ফুলবাড়ীর সাথে জেলা উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা। অবশেষে ৩০ আগষ্ট তৎকালীন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ফুলবাড়ীবাসীর সাথে ৬ দফা চুক্তি করলে ধীরে ধীরে অবস্থা স্বাভাবিক হয়। ৬ দফা চুক্তির মধ্যে ছিল- এশিয়া এনার্জিকে দেশ থেকে বহিস্কার, দেশের কোথাও উন্মুক্ত পদ্ধতিতে কয়লা উত্তোলন করা যাবে না, নিহত ও আহতদের ক্ষতিপুরন প্রদান, নিহতের স্মৃতিসৌদ্ধ নির্মাণ, গুলি বর্ষণে দায়ীদের বিচারের মাধ্যমে শাস্তি ও আন্দোলনকারী জনগনের বিরুদ্ধে দায়ের করা সব ধরনের মামলা প্রত্যাহার।

Spread the love