রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ সাকিব

Sakibঅবশেষে শনির দশা প্রকাশ পেয়েছে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের। ফলে এক ঝটকায় শেষ হয়ে গেলো ক্যারিবিয় প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) ও ইন্ডিয়ান প্রিমিয়িার লিগ (আইপিএল)। কারণ তাকে দীর্ঘ ৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এ ছড়াও রয়েছে আরও কিছু কঠিক শাস্তি। বিসিবির সভা শেষে  সোমবার নাজমুল হাসান পাপন এমপি এসব সিদ্ধান্তের কথা সাংবাদিকদের জানান। সর্বশেষ অনাপত্তিপত্র না নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্যাবিরীয় প্রিমিয়ার লিগে খেলতে যাওয়া, রাগের মাথায় কোচকে টেস্ট ও ওয়ানডে দল থেকে অবসর নিয়ে ফেলার মন্তব্য করার পর এ শাস্তি দিল বিসিবি।
শাস্তির মধ্যে রয়েছে- নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন জাতীয় দলের সাথে তিনি অনুশীলনও করতে পারবেন না। তবে শাস্তির মেয়াদ এখানেই শেষ হয়ে যায়নি। ২০১৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাইরের কোনো লিগে খেলার জন্য তাকে এনওসি কবা অনাপত্তিডপত্রও দেয়া হবে না। এছাড়াও কিছু টুর্নামেন্টের জন্য ইতোপূর্বে দেয়া অনাপত্তিপত্রও বাতিল করে দিয়েছে বিসিবি। ফলে আগামী আইপিএলেও তার খেলা হবে না।
ড্রেসিং রুমে অশ্লীল ভঙ্গি প্রদর্শন, বিসিবির কোড অব কন্ডাক্ট ভঙ্গ করা, দর্শকদের পেটানো এবং কোচের সাথে দুর্ব্যবহার করা সহ নানা অভিযোগে জর্জরিত হয়েছেন এ দেশ সেরা অলরাউন্ডার। তার বিরুদ্ধে করা সব অভিযোগের ভিত্তিতে দেশের ক্রিকেটের স্বার্থ রক্ষার্থেই ব্যবস্থা নিতেই আজ সোমবার বোর্ডের জরুরি সভা ডাকা হয়েছিলো। সভায় বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, পরিচালক আ জ ম নাসির, আকরাম খান, ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সহ বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সভা শেষে সংবাদিকদের ব্রিফিংকাল বিসিবির সভাপতি জানান, সভায় সাকিবের আচরণের বিষয়টি বিশেষভাবে উঠে আসে। বোর্ড মনে করছে, খেলোয়াড়দের ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ নিয়ন্ত্রণের বাইরের চলে যাচ্ছে। তনি বলেন, প্রথমত তার মারাত্মক আচরণগত সমস্যা রয়ছে এবং তার এ আচরণগত সমস্যাটা এমন যে এর আগে বাংলাদেশের ক্রিকেটের ইতিহাসে এমন কাউকে আমরা পাইনি। সব দেখে আমাদের মনে হয়েছে তার ব্যবহারটা এমন যা আমাদের দলের উপর সরাসরি প্রভাব ফেলছে। এটি টিম কম্বিনেশন এবং পারফর্ম্যান্সেও প্রভাব ফেলছে।
পাপন বলেন, ক্রিকেট বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ৬ মাসের জন্য সকল প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট (জাতীয় ও আন্তর্জাতিক) থেকে সে সাসপেন্ডেড এবং ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ পর্যন্ত যেকোনো বাইরের টুর্নামেন্টের এনওসি সে আর পাবে না। বাইরের সমস্ত টুর্নামেন্ট খেলা বন্ধ। এমনকি এর পুনরাবৃত্তি ঘটলে আজীবন নিষিদ্ধ হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে যে কোন খেলোয়াড়ের। এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, শুধু এ কারণেই সাকিবের ওপর এ শাস্তি নয়। দীর্ঘ দিন ধরে সাকিবকে নিয়ে জমে থাকা অভিযোগের ভিত্তিতেই কঠোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিবি।
সম্ভবত এ কারণেই বোর্ড কার্যালয় থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময়ও তার মুখ ছিল খুব ভার। হয়তো তিনি তখনই জানতেন যে, ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় শাস্তিটাই অপেক্ষা করছে তার জন্য? এর আগে সর্বশেষ শ্রীলঙ্কা সিরিজ চলার সময় ৩ ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা ভোগ করা এ দাম্ভিক ক্রিকেটার এবার ৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ হলেন। ঘরোয়া এবং আন্তর্জাতিক ২ ধরনের ক্রিকেটই এ সময় খেলতে পারবেন না তিনি।
শুধু অনাপত্তি নিয়ে খেলতে যাওয়াই নয়, ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ চলার সময় সাজঘর ছেড়ে গ্যালারিতে গিয়েও শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্যও এ শাস্তি পেলেন সাকিব। ওই ঘটনার জন্যও পরে ভুল স্বীকার করেছিলেন তিনি। গত ১৫ জুন মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ভারতের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে চলার সময় সাকিবের স্ত্রী উম্মে আহমেদ শিশিরকে কয়েকজন যুবক উত্ত্যক্ত করলে বিসিবির নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের কয়েকজনকে ধরে মারধর করার সময় সাকিবও এসে তাতে যোগ দেন।
পরে সাকিবের ব্যাখ্যা জানতে তাকে ডেকে পাঠায় জাতীয় ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। ম্যাচ চলার সময় গ্যালারিতে যাওয়া যাবে না- এমন কোনো নিয়ম তার জানা ছিল না বলে দাবি করেন তিনি। এ ব্যাখ্যা মেনে নেয়নি বিসিবি। সাকিবের ওই জবাবে যেন আরো বেশি বিরক্ত নাজমুল। তার মতে, এটা সাকিবের ড্যাম কেয়ার ভাব। দলের শৃঙ্খলা ঠিক রাখতে তার এমন উদ্ধত আচরণ আর প্রশ্রয় দেয়া ঠিক হবে না বলে মনে করেন বোর্ড সভাপতি।
বিসিবি সূত্রে জানা যায়, সাকিবের এমন ব্যবহারের কারণে জাতীয় দলের মধ্যেও শৃঙ্খলাজনিত সমস্যা শুরু হয়েছে। সাকিবদের দেখাদেখি দলের অনেকেই নাকি ওর মতো কথা বলা শুরু করেছে। এভাবে চলতে থাকলে এবং এখনই কোনো ব্যবস্থা না নেয়া হলে আর কিছুদিন পর দলের অনেকেই আর কারো কথা শুনবে না বলে মনে করছে বিসিসি। তাই নতুন বড় কোনো সমস্যা এড়াতে সাকিবকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বোর্ড।
বিসবি সূত্রে জানা যায়, এ শাস্তির কারণে সাকিবকে ছাড়াই আগামী মাসের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যাবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে সাকিবই মাশরাফির বদলে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন দলের। এছাড়া নভেম্বরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজেও খেলা হবে না তার। তবে আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে শুরু হকেত যাওয়া ২০১৫ বিশ্বকাপের আগে দলে ফিরবেন এ তিনি।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email