মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৮৪ ঘন্টা হরতাল সারাদেশে আতঙ্ক

1384010409ডেক্স নিউজ : আগামীকাল রবিবার ভোর ৬টা থেকে বুধবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত টানা ৮৪ ঘন্টার হরতাল ফাঁদে পড়ছে গোটা দেশ। এ হরতালকে সামনে রেখে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা থেকেইে সারাদেশে অসংখ্য যানবাহনে ভাংচুর-অগ্নিসংযোগসহ ব্যাপক তান্ডব শুরু করেছে হরতাল সমর্থকরা। ফলে এখন সারাদেশে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। গত শুক্রবার বিরোধীদলীয় জোটের মহাসচিব পর্যায়ের সভা শেষে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম ৭২ ঘন্টার হরতাল ঘোষণা করা হয়। এর পর আজ শনিবার আবার তা ১২ ঘন্টা বাড়ানো হয়েছে। ওই রাতে বিএনপির ৫ শীর্ষস্থানীয় নেতাকে গ্রেফতার এবং নেতাদের বাড়িতে পুলিশি হানার প্রতিবাদে হরতালের মেয়াদ আরো ১২ ঘন্টা বাড়ানো হয়েছে বলে বিএনপির প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়েছে।
তাছাড়া শুক্রবার রাতে বিএনপির ৫ শীর্ষস্থানীয় নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে শনিবার ৫ জেলায় হরতাল পালিত হয়। ওসব এলাকা থেকে রাজধানীমুখী কোনো বাস-ট্রাকসহ স্থলপথে কোনো যানবাহন চলাচল করতে পারেনি। তাছাড়া হরতালের কারণে শনিবার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ভোর থেকে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। হরতালকারীরা ওই মহাসড়কে গাড়ি ভাঙচুর এবং চাকার হাওয়া ছেড়ে দিয়ে আড়াআড়িভাবে গাড়ি ফেলে রেখে অবরো সৃষ্টি করে। সীতাকুণ্ডে হরতাল সমর্থকরা প্রায় শতাধিক গাড়িতে ভাঙচুর চালায়। এর ফলে চট্টগ্রামের সিটি গেইট থেকে মীরসরাই পর্যন্ত ৬০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজটে মারাত্মক দুর্ভোগে পড়ে দূরপাল্লার যাত্রীরা। রাস্তায় এলোপাথাড়ি ফেলে রাখা গাড়ি সরাতে পুলিশকে বেগ পেতে হয়।
এদিকে হরতালের আগেই রাজধানীর ১৪ স্থানে ঘটানো হয়েছে নাশকতা। শনিবার সকাল থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত রাজধানীতেই ১১টি গাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে। কয়েক স্থানে ঝটিকা মিছিল থেকে ককটেল বিস্ফোরণ ও যানবাহনে ভাঙচুর চালানো হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে শাহবাগের শিশুপার্কের সামনে ইটিসি পরিবহনের একটি বাসে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে দুর্বৃত্তরা। এতে বাসের দরজায় দাড়ানো অন্তত ৩ যাত্রী আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে অধিক দগ্ধ রাজ্জাক মিঠু (২২) নামে এক যাত্রীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।
সন্ধ্যা সোয়া ৫টার দিকে গুলিস্তান গোলাপশাহ মাজারের পাশে রমনা টেলিফোন ভবনের সামনে স্কাইলাইন পরিবহনের একটি বাসে দুর্বৃত্তরা আগুন দেয়। ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই বাসটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। গোলাপশাহ মাজারের কাছে আরেকটি বাসেও আগুন দেয়া হয়। তবে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি পৌঁছার আগেই ওই আগুন শ্রমিকরা নিভিয়ে ফেলে। সন্ধ্যা প্রায় সাড়ে ৬টার দিকে বঙ্গবাজারের সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের সামনে প্রভাতী বনশ্রী পরিবহনের একটি বাসে দুর্বৃত্তরা আগুন দেয়। ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় রোকেয়া সরণির তালতলা এলাকায় মিরপুর থেকে উত্তরাগামী জাবলেনুর পরিবহনের একটি বাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।  তাছাড়া সকাল সাড়ে ৯টার দিকে যাত্রাবাড়ির কুতুবখালী এলাকায় ঝটিকা মিছিল করে জামায়াত-শিবির কর্মীরা। সেসময় মিছিলকারীরা একটি দোতলা বাস এবং আরেকটি বাসে আগুন দেয়। আগুনে বিআরটিসি দোতলা বাসটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।
দুপুর পৌনে ১২টার েিক মহাখালীর গুলশান লিংক রোডে তিতুমীর কলেজের সামনে একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটেনি। ঘটনার পরপরই তিতুমীর কলেজের ছাত্ররা ধাওয়া করে অগ্নিসংযোগকারী আশিক নামের একজনকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করে। দুপুর সোয়া ১২টার দিকে ফকিরাপুলের পুলিশ হাসপাতালের সামনে দুই-তিনটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে একটি প্রাইভেটকারে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থরে এসে আগুন নেভায়। মিরপুরের রূপনগর-টিনসেট এলাকায় দুপুর সোয়া ২টার দিকে একটি যাত্রীবাসী বাসে আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটে। তাতে বাসটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। দুপুর ১২টায় শান্তিনগরে একটি মাইক্রোবাসে আগুন দেয়া হয়। সন্ধ্যায় ওই এলাকায় শিবিরের ঝটিকা মিছিল থেকে হামলা চালিয়ে কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।
দুপুর আড়াইটায় খিলগাঁওয়ে পল্লীমা সংসদের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা একটি মাইক্রোবাসে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভায়। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উত্তর বাড্ডা জেনারেল হাসপাতালের সামনে শিবিরের একটি ঝটিকা মিছিল থেকে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এসময় ৩/৪টি বাসে ভাঙচুর চালায় মিছিলকারীরা। পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুরান ঢাকার সিএমএম আদালতের সামনে সকাল ১১টার দিকে ঝটিকা মিছিল বের করে শিবির কর্মীরা। মিছিল থেকে ৪টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এর কিছু সময় পর টিপু সুলতান রোডে দুর্বৃত্তরা ৩টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কারওয়ান বাজারের জাহাঙ্গীর টাওয়ারের সামনে ২টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটনায় দুর্বৃত্তরা।
নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতেই বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিরোধী দলীয় জোট একের পর এক টানা হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা দিচ্ছে। ইতিপূর্বে পর পর দুই সপ্তাহে দুই দফা ৬০ ঘন্টা হরতাল করার পর শুক্রবার বিকেলে বিরোধী দলীয় জোটের পক্ষ থেকে আবারো ৭২ ঘন্টার হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। পক্ষান্তরে বিরোধী জোটের ঘন ঘন হরতালে বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ ও জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার্থীরা। হরতালের কারণে ইতিমধ্যে সরকার আবারো ওসব পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন করেছে।
সা¤প্রতিকালের বিরোধীদলীয় জোটের হরতালে নেতাকর্মীরা মাঠে না থাকলেও ব্যাপক হারে বেড়েছে বোমাবাড়ি ও জ্বালাও-পোড়াওসহ নানা নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড। আর এর শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। ইতিমধ্যে হরতালের দুই ডজনের বেশি মানুষ মারা গেছে। তারপরও বিরোধীদলীয় জোট হরতাল কর্মসূচি নিয়েই আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার পথে অনড়। ইতিমধ্যে সামনের দিনগুলোতে আরো হরতাল, অবরোধ ও ঘেরাওসহ বিভিন্ন কর্মসূচি দেয়ার হুমকি দেয়া হয়েছে।
ঘন ঘন হরতালের কারণে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের সাথে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে রাজধানী। পাশাপাশ্যি সীমিত আয়ের মানুষের নাভিশ্বাস উঠছে। কারণ প্রতিদিনই হু হু করে বাড়ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম। ক্রমাগত তা সাধারণ মানুষের সীমার বাইরে চলে যাচ্ছে। তাছাড়া ব্যবসা-বাণিজ্য ছাড়াও আর্থিক ও চিকিৎসা সেবা নিতেও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে মানুষ। অপরদিকে বিরোধী দলীয় জোটের টানা ৮৪ ঘন্টার হরতাল মোকাবেলায় মাঠে নামছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। হরতালের নামে মানুষ হত্যা ও নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের মোকাবেলায় ক্ষমতাসীন মহাজোট এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।