বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৯ মাস পরেও বিধ্বস্ত অবস্থা চিড়াকুটা সাঁওতাল পল্লীর

আজহারুল আজাদ জুয়েল, দিনাজপুরঃ দিনাজপুরের পাবর্বতীপুর উপজেলার মোস্তফাপুর ইউনিয়নের হাবিবপুর-চিড়াকুটা সাঁওতাল পল্লীতে হামলার ৯মাস অতিক্রামত্ম হতে চলছে। কিন্তু এতদিনেও সাঁওতাল পল্লীতে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসেনি। ক্ষতিগ্রস্থ বাড়ি-ঘর মেরামত না হওয়ায় এখন ঐ পল্লী বিধ্বস্ত রুপ ধারণ করেছে। ক্ষতিগ্রস্থরা আর কখনোই মাথা তুলে দাঁড়াতে যেন না পারে, বোধহয় সে-রকম একটা সুক্ষ প্রক্রিয়াই কাজ করছে সরকার ও প্রশাসনের মাথায়।

এ বছরের ২৪ জানুয়ারী সকাল সোয়া ৮টায় চিড়াকুটায় বসবাসরত সাঁওতালদের একটি জমি (খতিয়ান জেএল-৬৯, সিএস-৫৯, এসএ-৫২, দাগ-৬১০ দলা) দখল করতে যায় হাবিবপুর গ্রামের সালাইপুর নিবাসী জহিরুল হক (৫৮), পিতা- মৃত মোহাম্মদ আলী, তার পুত্র শাফিউল হক সোহাগ (২৪)সহ ৬/৭ জন। তারা ঐ জমিতে সেচ দেয়া শুরু করলে সাঁওতালরা বাঁধা দেয়। জহিরুল দাবী করেন, জমি তার। আদালত থেকে রায় পেয়েছেন। কিন্তু সাঁওতালরা কিছুতেই তা মানতে রাজি নয়। কারণ তাদেরও দলিল আছে।

তর্কাতর্কি থেকে মারমারির পর্যায়ে সাঁওতালদের নিক্ষিপ্ত তীরে মারা যায় জহিরুল হকের পুত্র সোহাগ। খবর পেয়ে পুলিশ ১৯ জন আদিবাসী পুরুষকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়। পুরুষশুন্য অবস্থার সুযোগে পুলিশের উপস্থিতিইে সাঁওতাল পল্লীতে আড়াই-তিন হাজার বাঙ্গালী হামলা চালিয়ে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, ভাঙ্চুরসহ ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। হামলার সময় সাঁওতালদের প্রতিটি বাড়ির টিউবওয়েল তুলে ফেলা হয়। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ঘরের দেয়াল, চালা, বেড়া, আসবাবপত্র কেটে চিড়ে ধ্বংস করা হয়। ঘরের টিন, ধান-চালের বস্তা, গরু, ছাগল, থালা, গ্লাস, পাতিলসহ নিত্য প্রয়োজনীয়, অপরিহার্য ও মূল্যবান মালামালসহ সাঁওতাল বাড়িগুলোর যাবতীয় মালামাল লুট করা হয়। অনেক বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয় ।

সাঁওতালদের উপর হামলার ধরণটা ছিল ভয়াবহ, অমানবিক ও নিষ্ঠুর। হামলা হওয়ার পর তাদের কোন বাড়িতেই টিউবওয়েল ছিল না, পানি পান করার মত গ্লাস, বাটি, থালা, প্লেট কিছুই ছিল না। স্বাধীন বাংলাদেশে ভূমিদস্যুদের পক্ষ নিয়ে আদিবাসীদের উপর বাঙালি জনগোষ্ঠীর এই হামলার ঘটনা ছিল অতিমাত্রায় বর্বরোচিত।

ঘটনার ৯মাস অতিক্রামত্ম হয়েছে। কিন্তু সাঁওতালরা এখনো তাদের স্বাভাবিক জীবন ফিরে পায়নি। এখনো তাদের ৪ জন যুবক কারাগারে ধুঁকে ধুঁকে বিনা বিচারে বন্দী জীবন কাটাচ্ছে! এখনো অনেকে নিজেদের ধ্বংস হওয়া ঘর-বাড়িতে ফিরতে না পেরে অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে কোন রকমে দিন পার করছে! সরকারের প্রতিনিধিরা আশ্বাস দিয়েছিল যে, ক্ষতিগ্রস্থ ঘর-বাড়ি সরকারী খরচে ঠিক করে দেয়া হবে, কিন্তু আজ পর্যন্ত তা না হওয়ায় সাম্প্রতিক বর্ষায় অনেক বাড়ি ধ্বসে গিয়ে ধ্বংসস্ত্তপে পরিণত হয়েছে। ফলে অতি মানবেতর জীবন-যাপন করতে বাধ্য হচ্ছে সাঁওতালরা।

৪ জন কারাগারে এখনোঃ ২৪ জানুয়ারী সকালে আদিবাসীদের তীরে সোহাগ নামে এক যুবকের মৃত্যুর খবর পেয়ে পুলিশ ছুটে আসেন চিরাকুটায়। ইউপি চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান আইনের কাছে ধরা দিতে বললে আদিবাসীরা তা মেনে নেন। পুলিশ ১৯জন আদিবাসী পুরম্নষকে গ্রেফতার করে পার্বতীপুর থানায় নিয়ে যায়। পরে আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে কারাগারে পাঠানো হয়। এরপর বিভিন্ন সময়ে ১৫জন জামিন পেয়েছেন। কিন্তু কারাগারে এখনো আটক আছেন মানির টুডুর দুই পুত্র হাবিল টুডু (৫৭) ও বার্ণাবাস টুডু (৪০), পাসকাল টুডুর পুত্র জুবিয়েল টুডু (২২) এবং আলফ্রেড হেমব্রমের পুত্র জীবন হেমব্রম রুবেন (২১)। পাসকাল টুডু বলেন, জামিন নিতে যে অর্থের প্রয়োজন সেটা দিতে পারিনি। ফলে ছেলেদের জামিন নিতে পারছিনা।

স্বামী ৯মাস ধরে জেলে থাকার কারণে হাবিল টুডুর স্ত্রী বিপাকে রয়েছেন সন্তানদের নিয়ে। যথেষ্ট বয়সকালে বিয়ের দিন, তারিখ ঠিক হয়ে গিয়েছিল বার্ণাবাস টুডুর। কিন্তু তার আগেই এ ঘটনা। বিয়ের পরিবর্তে কারাগার। বিয়ে হয়তো আর হবেই না তার জীবনে। জীবন হেমব্রম আমবাড়ী হাই স্কুলের ৯ম শ্রেণীরর ছাত্র। তার পড়া-লেখা আর হয়তো হবে না অনিশ্চিত কারা জীবনের কারণে। এরকম হতাশা, দুঃখ আর কষ্টের মধ্যে আছেন কারাবন্দীদের পরিবার। সাঁওতালরা কারাগারে থাকলেও হামলা, ভাংচুর, লুটপাটের মামলায় কারাগারে নাই হামলাকারীদের কেউ!

পরের বাড়িতে এখনো আশ্রিতা কয়েকটি পরিবার : কোন ঝামেলা ছাড়াই ১৯ আদিবাসী তরুণকে পুলিশ ধরে নিয়ে যাওয়ার পর আড়াই-তিন হাজার বাঙ্গালী উম্মাদের মত চিড়াকুটা সাঁওতাল পলস্নীতে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল ২৪ জানুয়ারী। তারা সাঁওতাল পল্লীর প্রতিটি বাড়িতে, প্রতিটি ঘরে গিয়ে অগ্নি সংযোগ, ভাংচুর ও লুটপাট করতে থাকে। সাঁওতালদের ঘরের টিন খুলে নিয়ে যায়। সাঁওতাল নারীদের বেদম মারধর করে। তাদের নির্যাতন, লুটপাট আর ধ্বংসযজ্ঞের ভয়াবহতা এখনো রয়ে গেছে চিরাকুটার সাঁওতাল পল্লীতে

বাচ্চু হেমব্রমের (৪৫) দুইটি মাটির ঘর। হামলার সময় তার দুই ঘরেই ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালানো হয়। সবগুলো ঘরের টিন খুলে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। যেগুলো টিন খুলতে পারে নাই সেই সব টিনে ধারালো অস্ত্রের কোপ বসানো হয়। ফলে ঘরগুলো বসবাসের অনুপযোগি হয়ে পড়ে। নিজ বাড়িতে আশ্রয়হীন হয়ে পড়েন তিনি। আশ্রয় নেন প্রতিবেশি ও মামাত বোন নীলিমা হেমব্রমের বাড়িতে।

নীলিমার বাড়িতেও হামলা হয়েছিল। হামলাকারীরা লুটপাট করেছিল, আগুন দিয়েছিল। কিন্তু সৌভাগ্যবশত আগুন ভয়াবহ রুপ নিতে পারে নাই। ফলে এই বাড়ি অনেকের আশ্রয়স্থল হয়ে উঠে। বাঙালিদের ব্যাপক তান্ডবলীলার পর এই বাড়িতে এসে আশ্রয় নেন বাচ্চু হেমব্রম, পাসকাল টুডু, চেলসিস হেমব্রম, হাবিল টুডু, রানী টুডু, বেনাতোস হেমব্রমের পরিবার।

হাবিল ও পাসকালের বাড়ির সব কিছু লুট হয়েছে। বার্নাড ছিলেন কার্পেন্টার। এই কাজে ব্যবহৃত মেসিন সহ তার সবকিছু লুট করার পাশপাশি বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছিল। এরকম অসহায় অবস্থার শিকার হয়ে তারা আশ্রয় নেন নীলিমার বাসায়। ৮ মাসেরও বেশি ঐ বাড়িতে থাকার পর হাবিল, রানী, বেনাতোস এর পরিবার দেড় সপ্তাহ আগে নিজেদের বাড়িতে ফিরে গেছেন। অন্যেরা রয়ে গেছেন সেখানেই। যারা এখনো আছেন তারা কবে নিজেদের বাড়িতে যেতে পারবেন এখনো তা জানেন না। পাসকালের বড় ছেলে জুবিয়েল টুডু আছেন কারাগারে। থাকার জায়গা না থাকায় ছেলের বউ আছেন বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি সংলগ্ন বাপের বাড়ি হরিরামপুরে। পাসকাল টুড,ু বলেন, মিশন থেকে আমাকে সহায়তা দিতে চেয়েছে। যদি সেটা পাই তাহলে কোন রকমে একটা ঘর করে নিজের বাড়িতে ফিরে যাব।

বর্ষায় ধ্বসে পড়েছে কয়েকটি বাড়ি : সাঁওতাল পল্লীতে ব্যাপক ধ্বংসলীলার ঘটনায় ঐ এলাকার সাংসদ এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজার রহমান, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ সরকারের উচ্চ পর্যায়ের অনেকে গিয়ে আশ্বাস দিয়েছিলেন যে, ক্ষতিগ্রস্ত ঘর-বাড়ি সরকারি অর্থায়নে মেরামত করে দেয়া হবে। কিন্তু এখন পর্যমত্ম সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করা হয়নি। ক্ষতিগ্রস্ত সাঁওতালরাও অর্থের অভাবে লুট হওয়া টিনের পরিবর্তে নতুন টিন কিনে আনতে পারেনি। ফলে সাম্প্রতিক বর্ষায় ক্ষতিগ্রস্তদের অনেগুলো ঘর বৃষ্টির পানিতে ভিজে সম্পুর্ণরুপে ধ্বসে গেছে। পাসকাল টুডুর ৪টি ঘর, হাবিল টুডুর ২ ঘরু, শ্রীমন মার্ডির ১ ঘর এবং ষ্টেফান মার্ডির ১টি ঘর ও প্রাচীর ধ্বসে গেছে সম্পুর্ণ রুপে। মাটির তৈরী এই সব ঘর মেরামত করার কোন সুযোগ আর নাই। এখন ঘর দিতে হবে সম্পুর্ণ নতুনভাবে। এছাড়া বৃষ্টিতে ভিজে আরো অনেকের মাটির ঘর ধ্বসে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। অতি দ্রুত টিন দিতে না পারলে সেগুলোও ধ্বসে যেতে পারে। কিন্তু ভয়াবহ ক্ষতির শিকার সাঁওতালদের পক্ষে সেটা করা কখনোই সম্ভব হবে না।

সরকার আদৌ তাদের ঘর মেরামত করে দিবেন কি না তা নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে। কারণ প্রশাসন এখন আদিবাসীদের দলিল দেখাতে বলছেন। কিন্তু ভূমি অফিস সহ প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা আদিবাসীদের জমি নিয়ে কি খেলা করে থাকেন তা অনেকেরই জানা।

ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা নিয়ে নতুন খেলাঃ ২৪ জানুয়ারীর হামলায় ব্যাপক ক্ষতির শিকার হয়েছেন সাঁওতাল পল্লীর সবাই । ক্ষতির শিকার হয়েছিলেন ৫০টি পরিবার। ক্ষতিগ্রস্তদের একটি তালিকাও দেয়া হয়েছিল উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে। কিন্তু পরে অজ্ঞাত কারণে সেই তালিকা সংশোধন করে নতুন আরেকটি তালিকা করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের ঐ তালিকায় অনেকের নাম না থাকায় ক্ষতিগ্রস্থরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। পাসকেল টুডুর ভয়াবহ ক্ষতি হলেও তালিকায় তার নাম নাই। ক্ষতিগ্রস্ত বিমল টুডুসহ আরো অনেকের নাম নাই ঐ তালিকায়। ফলে সরকার কখনো ক্ষতিপূরণ দিলে তালিকায় না থাকার কারণে তারা বঞ্চিত হবেন।

উপজেলা প্রশাসনের এই তালিকাটি ভুলে-ভালে ভরা। এখানে অনেকের স্বামীর নামকে পিতা, পিতাকে স্বামী হিসেবে দেখানো হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ নীলিমা হেমব্রম এর বিয়ে না হলেও তালিকায় তার স্বামী দেখানো হয়েছে। আবার স্বামী হিসেবে যার নাম উল্লেখ করা হয়েছে প্রকৃত পক্ষে সেই যোগেন হেমব্রম হলেন নীলিমার পিতা। আবার নীলিমা নামটাকেও বিকৃতভাবে লিলুমা লেখা হয়েছে। এভাবে নানান ভুলে ভরা এবং অনেকের নাম বাদ পড়া তালিকা নিয়ে অসন্তুষ্টি আছে চিরাকুটা সাঁওতাল পল্লীতে। তাদের ধারণা এর মধ্যেও হয়তো কোন খেলা আছে। কারণ আদিবাসীদের জমি নিয়ে ভূমিদস্যুদের যে খেলাগুলো হয় তা কিছু ভুলের সুযোগ নিয়েই তারা করতে পারে।

Adibasi2দলিল আছে আদিবাসীদেরঃ প্রায় ২১ একর জমি নিয়ে চিড়াকুটার আদিবাসীদের সাথে জহিরুল পরিবারের জমি সংক্রান্ত বিরোধ দীর্ঘদিনের। জহিরুল হকের পিতা মরহুম মোহাম্মদ আলী স্বাধীনতার পর মোস্তফাপুর ইউনিয়ন পরিদের চেয়ারম্যান থাকাকালে বিরোধের উৎপত্তি হয়। তীরবিদ্ধ হয়ে ছেলের মৃত্যুর পর জহিরুল জানিয়েছিলেন যে, সাঁওতালরা ব্যক্তি মালাকানাধীন জমিকে পত্তনী জমি হিসেবে ভোগ দখলের দাবী করলেও দাবীর স্বপÿÿ তাদের কাছে কোন কাগজ নাই।

জহিরুল হকের এই দাবী সে সময় অনেকটাই সত্য ছিল কারণ তখন সাঁওতালদের সমস্ত ঘরবাড়ি তছনছ করা হয়েছিল, আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছিল। অধিকাংশ পুরুষ মানুষকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। অন্যেরা প্রাণ হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছিল। এরকম অবস্থায় কাগজ দেখানোর পরিবেশ তাদের ছিলনা। তবে পরবর্তীতে তারা কাগজ উদ্ধার করেছে।

কাগজ-পত্রে দেখা যায় যে, সাঁওতালরা আধিয়ার হিসেবে বিরোধীয় জমি ভোগদখল করতেন বৃটিশ আমল থেকে। পাকিস্তান সৃষ্টির পর জমির মালিক ভারতে চলে যান এবং পাকিস্তান সরকার ঐ জমিকে খাস সম্পত্তি হিসেবে ঘোষণা দেয়। জমি সাঁওতালরাই ভোগ দখল করতে থাকেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭৬ সালের মার্চমাসে ১৬জন সাঁওতালের নামে সরকারের পক্ষে তৎকালীন মহকুমা প্রশাসক ১৫ বছরের জন্য বন্দোবস্ত প্রদান করেন। শর্ত ছিল যে, এই জমি শুধু চাষাবাদের কাজে ব্যবহার করা যাবে। এর জন্য কোন সালামী বা ভূমি রাজস্ব দিতে হবেনা। তবে প্রচলিত হারে উন্নয়ন কর ও অন্যান্য কর দিতে হবে।এছাড়া আরো কিছু সাধারণ শর্ত আরোপ করে বন্দোবস্ত পত্রে বলা হয় যে, ‘‘শর্তসমূহ পালন সাপেক্ষে ১৫ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পর এই বন্দোবস্ত পত্র আপনা হতে লীজ গ্রহীতার স্থায়ী মালিকী বন্দোবস্তে পরিণত হবে।’’ অর্থাৎ বন্দোবস্ত প্রাপ্তরা জমির মালিক হিসেবে গণ্য হবেন।

এখানেই হলো ভূমি দস্যুদের খেলা। সাঁওতালরা বন্দোবস্ত প্রাপ্তির প্রথম ৫ বছর শর্ত মোতাবেক সকল কর দিয়েছেন। কিন্তু এরপর কর দিতে গেলেও ভূমি অফিস নেয়নি। কেন নেয়নি তা বোঝাই যায়। ভূমি দস্যুদের আবির্ভাব ঘটেছে এর মধ্যেই। ১৫ বছর পর যেন সাঁওতালরা জমির মালিকানা না পায় সেই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে কর আদায় বন্ধ রাখা হয়েছে বলে মনে করেন আদিবাসীরা। পাসকাল টুডু বলেন, আমরা কর দিতে গেলেও ভূমি অফিস নেয়নি। কেন নেয়নি সে কথাও কোন দিন বলেনি। বলেছে, হুকুম হলে নেবে। আমার প্রশ্ন, হুকুম কেন হচ্ছে না? বাপ-দাদার আমল থেকে যে জমি আমাদের সেটা কেউ কেড়ে নিতে চাইলেই কি আমরা দিয়ে দিব?

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email