বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২২ ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউটের ১ম স্থান অর্জন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কৃষি মন্ত্রনালয়ের অধীন ১৭ টি নার্সভুক্ত প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ) বাস্তবায়ন এবং মূল্যায়ন ও অগ্রগতিতে বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিডব্লিউএমআরআই) ১ম স্থান অর্জন করেছে। যা নবসৃষ্ট ইনস্টিটিউটের এই অনন্য অর্জন সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে। উল্লেখ্য যে লাগসই কৃষিপ্রযুক্তি, দক্ষ ব্যবস্থাপনা, আধুনিক কলাকৌশল, উন্নত জাতের গম ও ভুট্টা বীজ উদ্ভাবন, পুষ্টি সংযোজন, অবমুক্তকরণ, উন্নত ও যুগোপযোগী প্রশিক্ষন প্রদান এবং প্রযুক্তি হস্তান্তর ও সম্প্রসরণ করে নবসৃষ্ট বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট নশিপুর দিনাজপুর কৃষি মন্ত্রনালয়ের আওতাধীন ১৭ টি সংস্থার মধ্যে “বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি এপিএ সঠিক সময়ে অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে অর্পিত দায়িত্ব পালন করে ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ১ম স্থান অর্জন করেছে। যা সদ্য ভুমিষ্ঠ বাংলাদেশ গম ও ভ্ট্টুা গবেষণা ইনস্টিটিউট দিনাজপুরের জন্য কৃষি মন্ত্রনালয় কর্তৃক অনন্য স্বীকৃতিস্বরুপ। প্রকাশ থাকে যে অত্র ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে গম ও ভুট্টার উন্নতবীজ ও প্রযুক্তিরউন্নয়নে ও সম্প্রসারণের লক্ষ্যে দেশের ৪ টি স্থানে ৪ টি আঞ্চলিক কেন্দ্র রয়েছে। যথা- বিডব্লিউএমআরআই শ্যামপুর রাজশাহী, জয়দেবপুর-গাজিপুর, জামালপুর ও যশোর। এছাড়াও বীজ উৎপাদন কেন্দ্র রয়েছে পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে ও উপকেন্দ্র রয়েছে ঠাকুরগাও সদরে। বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির কৌশলগত উদ্দেশ্যের ৩৫ টি এবং আবশ্যিক কৌশলগত উদ্দেশ্যের ১৭ টি সূচকের মোট ১০০ নম্বরের মধ্যে ৯৭ নম্বর পেয়ে ১ম স্থান অধিকার করেছে। এসব সূচকের মধ্যে প্রধান প্রধান সূচক হলো জাত ও প্রযুক্তির উদ্ভাবন ও হস্তান্তরকরন, কৃষক প্রশিক্ষন, প্রদর্শনী স্থাপন, গম ও ভুট্টার প্রজনন ও মানঘোষিত বীজ উৎপাদন, বিতরণ এবং যথাযথ ও সাফল্যজনকভাবে মাঠদিবস ও কর্মশালা পালন। উল্লেখ্য যে কৃষিমন্ত্রনালয়ের ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির চুড়ান্ত মূল্যায়ন প্রতিবেদনে জানা যায় যে ১ম স্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশ গম গবেষনা ইনস্টিটিউট, ২য় স্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশ কৃষি গবেষনা কাউন্সিল, ৩য় স্খান অর্জন করেছে বীজ প্রত্যয়ন এজেন্সি। এই বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ)-এর নেতৃত্বে ছিলেন সদ্য অবসর প্রাপ্ত বিদায়ী মহাপরিচালক ড. এম এছরাইল হোসেন, ড. মোঃ আমিরুজ্জামান, বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি (এপিএ)-এর সভাপতি ছিলেন বিডব্লিউএমআরআই-এর পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) কৃষিতত্ববিদ ড. মোঃ আবু জামান সরকার, এপিএ- এর ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা ছিলেন সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ আশরাফুল আলম। বিডব্লিউএমআরআই-এর মহাপরিচালক আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন প্রজননবিদ ড. গোলাম ফারুক এই অর্জনের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার জন্য আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির চুড়ান্ত মূল্যয়ন প্রতিবেদনে কৃষি মন্ত্রনালয় আমাদের বিডব্লিউএমআরআই কে ১ম স্থান অর্জনের সম্মাননা স্বিকৃতি দিয়েছেন, এইজন্য তিনি সকল কৃষিবিজ্ঞানী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, কৃষিশ্রমিক, কৃষক-কৃষানী এবং সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। তিনি বলেন বৈশ্বিক করোনার অতিমারিতে সকলেই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করেছেন যার স্বিকৃতিস্বরুপ এপিএ-এর এই ১ম স্থানের অনন্য অর্জন। আমরা অদূর ভবিষ্যতেও এই অর্জনটুকু ধরে রাখার চেষ্টা করবো ইনশা আল্লাহ। এদিকে বার্ষিক কর্মসংস্থান চুক্তি এপিএ-এর চুড়ান্ত মূল্যায়নে বিডব্লিউএমআরআই-এর প্রথম স্থান অর্জন করায় হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার বরেণ্য পশুসম্পদ বিজ্ঞানী-বীর মুক্তিযোদ্ধা-কলামিস্ট অধ্যাপক ডা. মোঃ ফজলুল হক, হাবিপ্রবির ডিন প্রখ্যাত কৃষিবিজ্ঞানী অধ্যাপক মোঃ সাজ্জাত হোসেন সরকার, কৃষি ভিত্তিক দাতা সংস্থা সিমিট বাংলাদেশ এর দিনাজপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক অফিসার কৃষিবিদ মোঃ এলানুজ্জমান আর্ন্তজাতিক ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট-ইরির সোসাল ডেভলাভমেন্ট অফিসার কৃষিবিদ মোঃ আবু আব্দুল্লাহ মিয়াজী, ফুলবন ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার সভাপতি কলামিস্ট কৃষক নেতা আলহাজ্ব মোঃ দবিরুল ইসলাম, বিশিষ্ট সমাজসেবক জননেতা মোঃ রেজাউল ইসলাম রাকি, বিশিষ্ট সমাজসেবক ব্যবসায়ী অভিজিৎ কুমার বসাক ও ১ নম্বর চেহেলগাজি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য- সমাজ সেবক মোঃ জর্জিস আহমেদ সোহেল গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউটের এই অনন্য অর্জনের জন্য সকল কৃষিবিজ্ঞানী কর্মকর্ত-কর্মচারী ও কৃষি শ্রমিক এবং কৃষক-কৃষানিদের কে প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেছেন এবং এই অনন্য অর্জনের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email